NU Literary Criticism Exam 2019

National University

Fourth Year

Literary Criticsm

Special Suggestion

Exam – 2019

Part-A

  1. What is meant by “illusion”?
    Ans: It means something which does not exist but creates a momentary impression.
  2. How is poetry ‘the criticism of life’?
    Ans: Poetry deals with the ideas of life that a reader finds when he reads a poem.
  3. What does the term ‘poetic truth’ mean?
    Ans: It means that the subject matter of poetry should correspond to the truth.
  4. Who is Homer?
    Ans: First greatest epic poet of ancient Greece who wrote Iliad and Odyssey.
  5. Who is ‘touchstone’?
    Ans: It is a stone that is used to judge the purity of gold.
  6. How does Chaucer present human life?
    Ans: From the truly human point of view.
  7. How is the structure of Herbert’s sentences?
    Ans: Far from simple. It is a fidelity to thought and feeling.
  8. How was Marlowe as an Elizabethan dramatist?
    Ans: He was of prodigious intelligence.
  9. What does Eliot want to conclude about the ‘metaphysical poets’?
    Ans: The metaphysical poets are in the direct current of English poetry, and that their faults should be reprimanded by this standard.
  10. In what sense is Conrad a precursor of the Western views of the Third World?
    Ans: Because he tends to deliver the non-European world either for analysis and judgment or for satisfying the exotic tastes of the Western readers.
  11. What is Said’s expectation about the American nation?
    Ans: He expects that the United States will remain a coherent nation despite having cultural diversity.
  12. What kind of writing is “The Study of Poetry”?
    Ans: Critical Writing.
  13. Define Charlatanism?
    Ans: It is a show of knowledge where there is no true knowledge.
  14. What is Chivalry?
    Ans: Chivalry refers to the qualities of the knights in middle age like courage, honor, loyalty, etc.
  15. Who was Cowley?
    Ans: the 17th-century metaphysical poet who was highly appreciated by Dr. Johnson.
  16. Who was T.S Eliot?
    Ans: T.S Eliot was one of the greatest poets and critics of the 20th century.
  17. How does Eliot brand Grierson’s metaphysical poetry?
    Ans: Eliot brands it as a so-called school of poetry or a movement.
  18. What does Orientalism mainly deal with?
    Ans: Deals with the affairs of the Middle East.
  19. What is diction?
    Ans: It refers to the vocabulary used by a writer.
  20. What is one of the main subjects of Said’s book “Culture and Imperialism”?
    Ans: The historical experience in relation to culture and aesthetic forms.
  21. What is high seriousness?
    Ans: It means the serious treatment or grand style of the subject-matter.
  22. Whom does Arnold regard as the ideal poets?
    Ans: Homer, Virgil, Dante, Shakespeare, and Milton.
  23. What is the dissociation of sensibility?
    Ans: It is a literary term first used by T.S Eliot in his essay “Metaphysical Poets”. It refers to the way in which intellectual thought was separated from the experience of feeling in 17th-century poetry.
  24. Who, according to Said, are the children of decolonization?
    Ans: A new generation of scholars and critics.
  25. Why does T.S Eliot praise the metaphysical poets?
    Ans: Because the metaphysical poets have the tendency to be engaged in the task of trying to find the verbal equivalent for states of mind and feeling.
  26. What is “Orientalism”?
    Ans: It is a famous critical work of Edward Said, shows the attitude of the West towards the East.
  27. What is the theme of “The Rise of English”?
    Ans: It deals with the development of English literature from the 18th century onwards under British imperial rule.
  28. What is the meaning of the word ‘neoclassical’?
    Ans: It refers to the style of art and literature of 18th century England, based on the classical models of ancient Greece and Rome.
  29. What are organic societies?
    Ans: In Eagleton’s view, the organic societies are just convenient myths for belaboring the mechanized life of modern industrial capitalism.
  30. How does Arnold define poetry?
    Ans: Poetry is the criticism of life under the conditions fixed for such a criticism by the laws of poetic truth and poetic beauty.
  31. How do the colonizers deserve the right of ruling the colonized?
    Ans: Because the colonized people are inferior to the colonizers.
  32. What is ‘creative imagination’?
    Ans: It is an image of non-alienated labor, the intuitive and spiritual essence of the poetic mind, according to Eagleton.
  33. When did Said’s family leave Cairo?
    Ans: In 1963
  34. What is Matthew Arnold’s concept of culture?
    Ans: The concept is that culture is refining and elevating elements, each society’s reservoir of the best.
  35. Where is Conrad’s Nostromo set in?
    Ans: In an independent Central American republic, rich in silver mine.
  36. What sort of view does Nastromo offer?
    Ans: A profoundly unforgiving view.
  37. When did America come out as an empire?
    Ans: During the 19th and the second half of the 20th century.
  38. Who is Matthew Arnold?
    Ans: Most powerful English poet-critic.
  39. Why does Arnold say, ‘for poetry the idea is everything’?
    Ans: He means that poetry is based on ideas that are fundamental to humanity.
  40. Which age does Arnold belong to?
    Ans: Victorian age.
  41. Who says, ‘poetry attaches its emotion to the idea that the idea is the fact’?
    Ans: Matthew Arnold.
  42. What is Arnold’s definition of classic?
    Ans: Classic means the works of literature or art of the first rank or authority of acknowledged excellence.
  43. What is touchstone method?
    Ans: It is a method of comparison between the truly great poets of the past with the new poets in the qualities of their creations.
  44. When does a poet achieve ‘high seriousness’ in his poetry?
    Ans: When he treats a serious subject in simple and intense manner.
  45. What is Eliot’s brief comment on Grierson’s anthology?
    Ans: He comments that it is a ‘piece of criticism and a provocation of criticism’.
  46. In what sense is a poet better when he is more intelligent?
    Ans: In the sense that when he is more intelligent, he will have more interests.
  47. What is the connection between “Culture and Imperialism” and “Orientalism”?
    Ans: A general world-wide pattern of imperial culture and a historical experience of resistance against empire form Culture and Imperialism and this makes it different from Orientalism.
  48. Why is Donne more successful than Cowley?
    Ans: For using brief words and sudden contrasts.
  49. How does Edward Said associate ‘culture’ with ‘art’?
    Ans: Said associates ‘culture’ with ‘art’ in the sense that it exists in aesthetic forms aiming at giving pleasure and it includes all the practices in the art of description, communication, and representation that are autonomous from economic social, and political fields.
  50. When does culture become a source of identity?
    Ans: When there is a difference between ‘us’ (the colonizers) and ‘them’ (the colonized), culture becomes a source of identity.
  51. What was ‘Scrutiny’?
    Ans: It was a quarterly periodical of literary criticism, founded in 1932 by L.C. Knights and F.R. Leavis.
  52. What kind of writing is “The Study of Poetry”?
    Ans: Critical Writing.
  53. What is the role of poetry in human life?
    Ans: It sustains and consoles human beings by interpreting life.
  54. How does Eliot characterize Donne’s line ‘A bracelet of bright hair about the bone”?
    Ans: He characterizes it as the telescoping of images and multiplied associations.
  55. How is the language of the metaphysical poets?
    Ans: Simple and pure.
  56. How does Said admire Dante and Shakespeare?
    Ans: They gave mankind ‘the best that was thought and known’, the realistic picture of life.
  57. What kind of writing is “The Rise of English?
    Ans: It is an essay which is the first chapter after introduction in Terry Eagleton’s famous book Literary Theory: An Introduction.
  58. What is An Apology for Poetry?
    Ans: It is a long essay of Sir Philip Sidney to defend the superiority of poetry.
  59. What according to Eagleton should be the motive of literature?
    Ans: Literature should convey timeless truths, thus distracting the masses from their immediate commitments.
  60. What is the difference between idea and illusion?
    Ans: Idea is a thought in the mind and exists, but the illusion is something that does not exist.
  61. What element of poetry is common for Donne and Cowley?
    Ans: Both employ metaphysical devices.
  62. What is A Defense of Poetry?
    Ans: An essay of P.B. Shelley.
  63. Name some of Arnold’s best poems.
    Ans: The Scholar Gipsy, Dover Beach, Thyrsis, Rugby Chapel.
  64. What has Arnold said about religion in “The Study of Poetry”?
    Ans: The religious faith has crumbled and become subject to question and change.
  65. How is the language of Herbert?
    Ans: Simple and elegant.
  66. How is poetry greater than history?
    Ans: Poetry deals with universal and deeper human truths, and undoubtedly greater than history which deals with what happens in reality or dry facts of life.
  67. What was worrying for the Victorian ruling class?
    Ans: Loss of faith or failure of religion.
  68. How does Eliot characterize the work of the 17th century?
    Ans: As “more often named than reading, and more often read than profitably studied”.
  69. Who, according to Eliot, is more profound and less sectarian than the other metaphysical poets?
    Ans: Crashaw.
  70. Who is Montaigne?
    Ans: Famous French writer is known as the first essayist in world literature.

Part – B

  1. What are the different estimates enunciated by Arnold?
    Or, discuss in short, the judgment of poetry as classic.
  2. What is charlatanism?
  3. What is touchstone method?
  4. Write the merits and demerits of touchstone method.
  5. Write a short note on metaphysical poetry.
  6. How does Eliot evaluate Johnson as a critic of metaphysical poets?
  7. What are the two-ford implications of culture?
  8. Why does Edward Said call his “Culture and Imperialism” as an exile’s book?
  9. What is Eagleton’s attitude to imperialism?
  10. Why does Edward Said admire Joseph Conrad?
  11. How does Eagleton evaluate New criticism?
  12. Discuss Joseph Conrad as imperialist and anti-imperialist.
  13. What are the features of Victorian criticism?
  14. Discuss shortly Matthew Arnold as a critic.
  15. What is the dissociation of sensibility?

Part – C

  1. “Poetry is the criticism of life governed by the laws of poetic truth and poetic beauty”- discuss.
  2. Discuss the characteristic features of good poetry from Arnold’s point of view.
  3. How does Arnold assess the 17th and 18th-century poets?
  4. Differentiate between intellectual poets and reflective poets.
  5. What is the unification of sensibility? Discuss Donne’s ability of unification of sensibility.
    Or, why does T.S. Eliot praise Donne’s ability to unify the intellectual thoughts and sensation of feelings?
  6. Discuss culture as an instrument of imperialism.
  7. What made Said write his book “Culture and Imperialism”?
  8. Discuss Eagleton’s prose style.
  9. Discuss how the ‘Rise of English’ relates to the growth and consolidation of imperialism.
  10. Discuss the influence of English in perpetuating imperialism.

Part – B

  1. Question: Discuss the term “poetry is the criticism of life”.

Or, evaluate Arnold’s theory or definition of poetry.

Introduction: One of the most prestigious forms of writing is poetry. It is an art that is embedded in the soul and spirit of the people. The ‘first modern critic’ Matthew Arnold (1822-1888) shows a high conception of poetry in his literary criticism “The Study of Poetry” which is his attempt to establish the standard of what poetry should be. He asserts that the best poetry is the “criticism of life by the laws of poetic truth and poetic beauty”.

ভূমিকা: লেখার অন্যতম মর্যাদাপূর্ণ রূপ হ’ল কবিতা। এটি এমন একটি শিল্প যা মানুষের আত্মা এবং চেতনায় অন্তর্ভুক্ত। ‘প্রথম আধুনিক সমালোচক’ ম্যাথু আর্নল্ড (1822-1888) কবিতার উপর উচ্চ ধারণা দেখায় তাঁর সাহিত্যের সমালোচনা “কবিতা অধ্যয়ন”এ যা তার প্রয়াস স্ট্যান্ডার্ড প্রতিষ্ঠার জন্য যে কবিতা কেমন হওয়া উচিত । তিনি বলে যে সেরা কাব্যগ্রন্থ হ’ল “কাব্যিক সত্য ও কাব্যিক সৌন্দর্যের বিধি দ্বারা জীবনের সমালোচনা”।

The “Criticism of Life”: The phrase “Criticism of life” means proper interpretation of life. Poetry accurately explains life. Here we discover and analyze how poetry is the criticism of life.

জীবনের সমালোচনা

“জীবনের সমালোচনা” শব্দটির অর্থ জীবনের যথাযথ ব্যাখ্যা। কবিতা জীবনকে সঠিকভাবে ব্যাখ্যা করে। এখানে আমরা আবিষ্কার এবং বিশ্লেষণ করব যে কবিতা কীভাবে জীবনের সমালোচনা।

Integrity between poetry and human life: Arnold defines poetry as a critique of life. To put it differently, poetry must concern itself with life and the problems of life. It should not be remote in a way that does not directly connect to our lives.

কবিতা এবং মানব জীবনের মধ্যে অখণ্ডতা

আর্নল্ড কবিতাকে জীবনের সমালোচনা হিসাবে সংজ্ঞা দিয়েছেন। এটিকে অন্যভাবে বলতে গেলে কবিতা অবশ্যই জীবন এবং জীবনের সমস্যাগুলির সাথে নিজেকে উদ্বেগিত করে। এটি এমনভাবে দূরবর্তী হওয়া উচিত নয় যা আমাদের জীবনের সাথে সরাসরি সংযোগ না করে।

Source of ingredients of life: By the phrase “Criticism of Life” Arnold means to say that the readers can identify their faults and mistakes for the purpose of rectification by going through poems. They must apply the powerful ideas which they pick up through reading poetry.

জীবনের উপাদানগুলির উত্স

“জীবনের সমালোচনা” এই বাক্যটির দ্বারা আর্নল্ড বলতে চেয়েছেন যে পাঠকরা তাদের ত্রুটি এবং ভুলগুলি সনাক্ত করতে পারেন সংশোধন করার উদ্দেশ্যে কবিতা পড়ে । তাদের অবশ্যই শক্তিশালী ধারণাগুলি প্রয়োগ করতে হবে যা তারা কবিতা পড়ার মাধ্যমে গ্রহণ করে।

The ways of leading life: Arnold claims that poetry teaches us how to lead life since it is filled with moral ideas. By emphasizing on the moral system, Arnold does not mean the composing of moral or didactic poems. Rather, according to Arnold, it is the question how to live and whatever comes under it, that is moral. Arnold quotes Milton:

“Nor love thy life nor hate; but what thou liv’st

Live well; how long or short, permit to heaven”

Besides poetry gives shelter and consolation in crisis.

জীবন যাপনের উপায়

আর্নল্ড দাবি করেছেন যে কবিতা আমাদের শেখায় যে কীভাবে জীবনকে পরিচালনা করতে হয় যেহেতু কবিতা নৈতিক ধারণা দিয়ে পূর্ণ। নৈতিক ব্যবস্থাতে জোর দিয়ে, আর্নল্ড শুধু নৈতিক বা অনুমানমূলক কবিতা রচনাকে বোঝাইনি। বরং আর্নল্ডের মতে, কীভাবে বাঁচতে হবে এবং যা কিছু এর নৈতিক আওতায় আসে, এটাই প্রশ্ন। আর্নল্ড মিল্টনের উদ্ধৃতি দিয়েছেন:

তোমাদের জীবনকে খুব ভালোবেসোনা না বা ঘৃণা করো না; তবে পছন্দ মতো ভালোভাবে বাঁচো

ভাল থাক; স্বর্গীয় সুখের মতো কারণ জীবন সংক্ষিপ্ত

Conclusion: To sum up, we can say that poetry is the criticism of life. It is the responsibility of the reviewer to examine both poetry and life at the same time. Arnold performs his duty as a father of modern criticism, although his theory of poetry has extended the hornet’s nest or numerous reactions.

2. Question: Discuss the characteristic features of good poetry.

Introduction: Matthew Arnold (1822-1888) is a prominent English poet and critic of the twentieth century. He has brought a revolution to the world of English literature with his critical essays, prose and poetry. As poetry is a high-quality literary work that shows deep feelings with beauty and elegance, it should be written following a number of organized requirements.

ভূমিকা: ম্যাথু আর্নল্ড (1822-1888) বিশ শতকের বিশিষ্ট ইংরেজী কবি এবং সমালোচক। তিনি তাঁর সমালোচনামূলক প্রবন্ধ, গদ্য এবং কবিতা দিয়ে ইংরেজি সাহিত্যের জগতে একটি বিপ্লব নিয়ে এসেছেন। কবিতা যেহেতু একটি উচ্চমানের সাহিত্যকর্ম যা সৌন্দর্য এবং কমনীয়তার সাথে গভীর অনুভূতি প্রদর্শন করে, এটি বেশ কয়েকটি সংগঠিত প্রয়োজনীয়তার অনুসরণ করে রচনা করা উচিত।

Features of good poetry: According to Arnold, the high-quality poetry contains the following features.

The criticism of life: A poetry cannot be good without having the criticism of life since Matthew Arnold has declared the high position of poetry. The term “criticism of life” means the proper interpretation of life. Poetry accurately explains life. Arnold defines poetry as a critique of life. To put it differently, poetry must concern itself with life and the problems of life.

Poetic truth and poetic beauty: Poetic truth and poetic beauty are the soul of poetry. They are so vital that a poet cannot imagine his poetical success without them.

“But for supreme poetical success more is required than the powerful application of ideas to life;

it must be an application under the conditions fixed, by the laws of poetic beauty and poetic truth.”

By poetic truth, Arnold indicates the representation of life in the true way, and by poetic beauty he refers to the manner and style of poetry. The subject-matter of the best poem is characterized by truth, and seriously to a certain degree.

কাব্যিক সত্য এবং সৌন্দর্য

কাব্যিক সত্য এবং কাব্যিক সৌন্দর্য কবিতার প্রাণ। এগুলি এতটাই প্রাণবন্ত যে একজন কবি এগুলি ছাড়া তাঁর কাব্যিক সাফল্য কল্পনা করতে পারে না।

তবে সর্বোচ্চ কাব্যিক সাফল্যের জন্য জীবনে ধারণার শক্তিশালী প্রয়োগের চেয়ে আরও বেশি প্রয়োজন; কাব্যিক সৌন্দর্য এবং কাব্যিক সত্যের আইন অনুসারে এটি অবশ্যই নির্ধারিত শর্তের অধীনে একটি অ্যাপ্লিকেশন হতে হবে

কাব্যিক সত্য দ্বারা, আর্নল্ড সত্য উপায়ে জীবনের উপস্থাপনা নির্দেশ করে, এবং কাব্যিক সৌন্দর্যে তিনি কবিতার স্টাইলকে বোঝান। সেরা কাব্যগ্রন্থের বিষয় সত্য দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছে, এবং গুরুত্ব সহকারে একটি নির্দিষ্ট ডিগ্রি পর্যন্ত।

High seriousness: The laws of the poetic truth and poetic beauty insist on the condition of “high seriousness” in poetry. This is the quality that gives poetry its power and strength. It comes from absolute sincerity that the poet feels for his subject. A poet’s sincerity consists in his speaking because when the readers can feel the sincerity of the poet about his subject-matter, it is sure that he speaks from his very inmost soul. The quality of high seriousness is found in the poetry of Dante, Homer, and Milton. It is the power of sincerity that gives poets the power to interpret life properly.

উচ্চ গম্ভীরতা

কাব্যিক সত্য এবং কাব্যিক সৌন্দর্যের আইনগুলি কবিতায় “উচ্চ গম্ভীরতার” অবস্থার উপর জোর দেয়। এটি সেই গুণ যা কবিতাকে তার শক্তি দেয়। এটি পরম আন্তরিকতা থেকে আসে যা কবি তার বিষয়টির জন্য অনুভব করেন। একজন কবির আন্তরিকতা তার বক্তৃতায় অন্তর্ভুক্ত কারণ পাঠকরা যখন তাঁর বিষয় সম্পর্কে কবির আন্তরিকতা অনুভব করতে পারেন, এটা নিশ্চিত যে সে তার অন্তর থেকে কথা বলে। দান্তে, হোমার এবং মিল্টনের কবিতায় উচ্চ গম্ভীরতার গুণটি পাওয়া যায়। এটি আন্তরিকতার শক্তি যা কবিদের জীবনকে সঠিকভাবে ব্যাখ্যা করার শক্তি দেয়।

Conclusion: To sum up, we can say that truth, high seriousness, a powerful application of ideas to life, absolute sincerity, excellence of diction and movement in the matter of style, these are the essential requirements of great poetry. And we also understand that Matthew Arnold had a broad idea about criticism and poetry.

3. Question: Discuss Eagleton’s prose style.

Introduction: The style is not mere decoration. It is rather a way of searching and explaining the truth. Its purpose is not to impress, but to express. Since Terry Eagleton is the most renowned critic of modern English literature, his critical writing has a number of prominent features.

ভূমিকা: শৈলী নিছক সাজসজ্জা নয়। এটি বরং সত্য অনুসন্ধান এবং ব্যাখ্যা করার একটি উপায়। এর উদ্দেশ্য প্রভাবিত করা নয়, বরং প্রকাশ করা। টেরি ইগল্টন যেহেতু আধুনিক ইংরেজি সাহিত্যের সর্বাধিক খ্যাতিমান সমালোচক, তাই তাঁর সমালোচনা লেখার বেশ কয়েকটি বিশিষ্ট বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

Dialectical style: One of the key features of Eagleton’s critical prose is the brilliant inverse logical style. He intelligently considers social and cultural conflicts and raises the opposing arguments so strongly in the conflict that they burst and suddenly some unexpected insight or vision is revealed.

দ্বান্দ্বিক স্টাইল: ইগল্টনের সমালোচনামূলক গদ্যের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হ’ল উজ্জ্বল বিপরীত লজিক্যাল স্টাইল। তিনি বুদ্ধিমানভাবে সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক দ্বন্দ্বকে বিবেচনা করেন এবং বিরোধের পক্ষে যুক্তি এতটা দৃড় তার সাথে উত্থাপন করেন যে তারা আবির্ভাব হয় এবং হঠাৎ করে কিছু অপ্রত্যাশিত অন্তর্দৃষ্টি বা দৃষ্টিভঙ্গি প্রকাশ পায়।

Lightening opacity: Absolute ambiguity is one of the most permanent and attractive qualities in Terry Eagleton’s writings. It has helped him to be one of the most colorful and controversial figures in cultural politics today. So, Eagleton’s style is unclear due to the riddle of the question. But whenever questions are solved, his idea shines. His “The Rise of English” is the paradigm of sheer audacity.

আলোকিত অস্বচ্ছতা

সম্পূর্ণ অস্পষ্টতা টেরি ইগল্টনের লেখাগুলির মধ্যে অন্যতম স্থায়ী এবং আকর্ষণীয় গুণ। এটি তাকে সাংস্কৃতিক রাজনীতির অন্যতম বর্ণময় এবং বিতর্কিত ব্যক্তিত্ব হতে সাহায্য করেছে। সুতরাং, প্রশ্নের ধাঁধার কারণে ইগল্টনের স্টাইল অস্পষ্ট। কিন্তু যখনই প্রশ্নগুলির সমাধান হয়ে যায় , তার ধারণাটি জ্বলজ্বল করে। তাঁর “রাইস অফ ইংলিশ” নিছক চরম অস্পষ্টতার দৃষ্টান্ত।

Historical references: Eagleton is an outspoken critic his generation. His best-selling publication “Literary Theory: An Introduction” published in 1983 reflects the breadth of his theory of knowledge. In this book the second chapter entitled “The Rise of English” contains many historical references of literature.

ঐতিহাসিক তথ্যসূত্র: ইগলটন তাঁর প্রজন্মের একটি স্পষ্টবাদী সমালোচক। 1983 সালে প্রকাশিত তাঁর সর্বাধিক বিক্রিত বই “লিটারারি  থিওরি : এন  ইন্ট্রোডাকশন ” তাঁর জ্ঞানের তত্ত্বের প্রশস্ততা প্রতিফলিত করে। এই বইতে “রাইস অফ ইংলিশ”  দ্বিতীয় অধ্যায়ের অন্তর্ভুক্ত  সাহিত্যের অনেক ঐতিহাসিক রেফারেন্স রয়েছে।

Humor: Most of the reversal comments in “The Rise of English” are humorous. In this work, Eagleton offers scathing assessments of various currents of criticism. While discussing the concept of value-judgement, he notes:

 “Nobody would bother to say that a bus ticket was an example of inferior literature, but someone might well say that the poetry of Ernest Dowson was”.

কৌতুকরসবোধ: “দ্য রাইজ অব ইংলিশ” -র বেশিরভাগ বিপরীত মন্তব্য হাস্যকর। এই রচনায়, ইগলটন সমালোচনার বিভিন্ন স্রোতের বিশদ মূল্যায়ন প্রদান করে, মূল্য-রায় ধারণাটি নিয়ে আলোচনার সময় তিনি মন্তব্য করে:

“কেউই এটা বলার মাথা ঘামায় না যে বাসের টিকিট নিকৃষ্ট সাহিত্যের উদাহরণ, তবে কেউ হয়তো বলতে পারেন যে আর্নেস্ট ডওসনের কবিতা নিকৃষ্ট সাহিত্যে ছিল”।

Satirical reversal in argument: Another technique often employed by Eagleton is the Swift-like satirical reversal in argument.

যুক্তিতে ব্যঙ্গাত্মক বিপরীত: ইগল্টনের মাঝেমধ্যে নিযুক্ত আরেকটি কৌশল হ’ল যুক্তি  সুইফটের মতো যুক্তিতে ব্যঙ্গাত্মক বিপরীত বা তিনি সুইফটের মতো বিদ্রূপকারী ।

Tiresome extent: Pointless is not the staple of Eagleton’s prose. In fact, his style is clearer than most of the formal methods. But long stretches of text can be tiring. In spite of the tedious limitations, there is something different in his prose that can regenerate the text and the readers separately independent, it means that his criticism works like a catalyst.

ক্লান্তিকর বিশদ

অর্থহীন হ’ল ইগল্টনের গদ্যের মূল নয়। আসলে, তাঁর রীতিটি বেশিরভাগ আনুষ্ঠানিক পদ্ধতির চেয়ে পরিষ্কার। তবে পাঠ্যের দীর্ঘ প্রসার ক্লান্তিকর হতে পারে। ক্লান্তিকর সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও, তাঁর গদ্যের মধ্যে আলাদা কিছু রয়েছে যা পাঠ্য এবং পাঠকদের আলাদাভাবে স্বাধীন করতে পারে অর্থাৎ তার সমালোচনা সাহিত্য ক্যাটালিস্ট হিসাবে কাজ করে ।

Conclusion: Thus, writing in a style is accessible. Eagleton has specifically argued in the field of literary theory. His rhetorical skills are perhaps unequalled by contemporary critics. These are something that many critical theorists could benefit from studying.

উপসংহার: এইভাবে, একটি স্টাইলে লেখা প্রবেশযোগ্য। ইগলটন সাহিত্য তত্ত্বের ক্ষেত্রে বিশেষভাবে যুক্তি দেখিয়েছেন। তাঁর অলঙ্কৃত দক্ষতা সম্ভবত সমকালীন সমালোচকদের চাইতে অনেক বেশি উৎকৃষ্ট। এগুলি এমন কিছু যা অনেক সমালোচক তাত্ত্বিকরা অধ্যয়ন করে উপকৃত হতে পারে।

4. Question: What is the Background of “Culture and Imperialism”?

Or, what are the reasons for which Said has written “Culture and Imperialism”?

Introduction: “Culture and Imperialism” published in 1993 is a collection of essays by Edward Said (1935-2003). This was followed by his highly influential “Orientalism”, published in 1978. In his series of essays, the author attempts to identify the connection between imperialism and culture in the 18th, 19th and 20th centuries. In the “Introduction”, Mr. Said himself describes the reasons and resources for which he is going to write his internationally acclaimed book.

ভূমিকা: ১৯৯৩ সালে প্রকাশিত “সংস্কৃতি ও সাম্রাজ্যবাদ” অ্যাডওয়ার্ড সাইদ (১৯৩৫-২০০৩) রচনা সংকলন। এটি তার অত্যন্ত প্রভাবশালী “প্রাচ্যবাদ” দ্বারা অনুসরণ করা হয়েছিল, 1978 সালে প্রকাশিত। তাঁর রচনামূলক সিরিজে লেখক 18 তম, 19 এবং 20 শতকে সাম্রাজ্যবাদ এবং সংস্কৃতির মধ্যে সংযোগ সনাক্ত করার চেষ্টা করেছেন। “ভূমিকা” তে, মিঃ সাইদ নিজেই যে কারণগুলি এবং সংস্থানগুলির জন্য তাঁর আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংসিত বইটি লিখতে চলেছেন তা বর্ণনা করেছেন।

Limitation of “Orientalism”: In his internationally acclaimed book Orientalism, Edward Said suggests that a general essay on the relationship between culture and empire has not yet been written. He composes “Culture and Imperialism” as an attempt to expand the “logics” of orientalism in order to describe a more general pattern of relationship between the western imperialists and their overseas territories.

প্রাচ্যবাদএর সীমাবদ্ধতা: তাঁর আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংসিত বই ওরিয়েন্টালিজমে, এডওয়ার্ড সাইদ ইঙ্গিত দেয় যে সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যের মধ্যে সম্পর্কের উপর একটি সাধারণ রচনা এখনও রচনা করা হয়নি। তিনি “সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদ” রচনা করেছেন প্রাচ্যবাদের “লজিকস” প্রসারিত করার প্রয়াস হিসাবে সম্পর্কের আরও সাধারণ প্যাটার্ন বর্ণনা করার জন্য পশ্চিমা সাম্রাজ্যবাদীদের এবং তাদের বিদেশের অঞ্চলগুলির মধ্যে।

To expose the hidden meaning of culture: In order to point out the furtive two-fold facets of culture, Said writes “Culture and Imperialism”. According to him, culture means two things from the surface and inner perspectives.

সংস্কৃতির গোপন অর্থ প্রকাশ করতে: সংস্কৃতির দুগুণযুক্ত দিকগুলি চিহ্নিত করার জন্য, সাইদ লিখেছেন “সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদ”। তাঁর মতে সংস্কৃতি মানে দুটি জিনিস পৃষ্ঠ এবং অভ্যন্তরীণ দৃষ্টিকোণ থেকে।

Secret strength of the imperialists: It is surprising and praiseworthy that Edward Said is the first mammoth critic who discovers the power of literature to sustain imperialism. Since literature is the mirror of society, he critically focuses on the French and English literature of 19th and 20th which displayed the imperialistic experiences throughout the world but specially in Africa, India, Australia, Caribbean, Ireland, Latin America.

সাম্রাজ্যবাদীদের গোপন শক্তি: এটা অবাক এবং প্রশংসনীয় যে এডওয়ার্ড সাইদ হলেন প্রথম বিশাল সমালোচক যিনি সাম্রাজ্যবাদকে টিকিয়ে রাখতে সাহিত্যের শক্তি আবিষ্কার করেছিলেন। সাহিত্য যেহেতু সমাজের আয়না, তাই তিনি সমালোচকভাবে 19 ও 20 তম ফরাসি এবং ইংরেজি সাহিত্যের দিকে মনোনিবেশ করেন যা বিশ্বজুড়ে সাম্রাজ্যবাদী অভিজ্ঞতা প্রদর্শন করেছিল তবে বিশেষত আফ্রিকা, ভারত, অস্ট্রেলিয়া, ক্যারিবিয়ান, আয়ারল্যান্ড, লাতিন আমেরিকা।

Ethical point of view: Being a humanitarian, Mr. Said forced to formulate “Culture and Imperialism”. He focuses on the challenges of imperialism and confidently declares that imperialism must always encounter resistance which creates conflict and destruction. So, he preaches that it is better to refrain than reign. And the people of third world have to be well conceived and united to establish peace and progress.

নৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি

মানবিক হওয়া, জনাব সাঈদ “সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদ” লিখতে বাধ্য হয়েছিলেন। তিনি সাম্রাজ্যবাদের চ্যালেঞ্জগুলিতে মনোনিবেশ করেন এবং আত্মবিশ্বাসের সাথে এটি ঘোষণা করেন সাম্রাজ্যবাদকে সর্বদা প্রতিরোধের মুখোমুখি হতে হবে যা দ্বন্দ্ব ও ধ্বংস সৃষ্টি করে। সুতরাং, তিনি প্রচার করেছেন যে রাজত্বের চেয়ে বিরত থাকা ভাল। এবং তৃতীয় বিশ্বের জনগণকে শান্তি ও অগ্রগতি প্রতিষ্ঠায় সু-কল্পনা ও সংহত হতে হবে।

Conclusion: In termination, it can be asserted though it is difficult to accept Edward Said starkly, it is undoubted that his critical power has brought about a revolution in the field of criticism. And one can get a vast vista of the secret sources of imperialism by reading his “Culture and Imperialism”.

5. Question: How is culture an instrument of imperialism?

Introduction: Edward W. Said (1935-2003) is considered to be one of the illustrious critics and philosophers of late 20th century who has expounded the most critical concept in his collection of essays “Introduction to Culture and Imperialism” published in 1993 that there is a very subtle relationship between culture and imperialism. He looks into the relationship between culture and imperialism from a different angle as he has got different instruments of culture for imperialism.

ভূমিকা: এডওয়ার্ড ডাব্লু সাইদ (১৯৩৫-২০০৩) বিশ শতকের শেষের অন্যতম বিশিষ্ট সমালোচক এবং দার্শনিক হিসাবে বিবেচিত যা তিনি ১৯৯৩ সালে প্রকাশিত “সংস্কৃতি ও সাম্রাজ্যবাদের পরিচয়” রচনামূলক সংকলনে সবচেয়ে সমালোচনামূলক ধারণাটি ব্যাখ্যা করেছেন। সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদের মধ্যে একটি খুব সূক্ষ্ম সম্পর্ক। তিনি সাম্রাজ্যবাদের জন্য সংস্কৃতির বিভিন্ন উপকরণ পেয়েছেন বলে সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদের মধ্যে সম্পর্কের বিষয়টি অন্য একটি কোণ থেকে দেখেন।

Fragile culture of the natives: At the very outset of the essay Said says that the culture of the third world is very fragile which was the strength of the imperialists. The imperialists always left contest among the natives. Said considers that supine or inert natives were the main strength of the imperialists.

স্থানীয়দের নাজুক সংস্কৃতি: রচনাটির একেবারে শুরুতে সাইদ বলে যে তৃতীয় বিশ্বের সংস্কৃতি অত্যন্ত নাজুক যা ছিল সাম্রাজ্যবাদীদের শক্তি। সাম্রাজ্যবাদীরা সর্বদা স্থানীয়দের মধ্যে প্রতিযোগিতা ছেড়ে দেয়। তিনি বিবেচনা করেন যে জড় দেশীয়রা ছিল সাম্রাজ্যবাদীদের প্রধান শক্তি।

Ethical power of culture: The imperialists of Britain and France were so called light bearer and maker of civilization. They went to spread the light of education and religion that was not only so called but also namely to make the people of overseas colonies fool. In Said’s analysis, the search of trade and commerce and civilizing missions in India and Africa provided an ethical power to the colonialists but they went to the countries for looting and dominating.

“Culture conceived in this way can become a protective enclosure:

check your politics at the door before you enter it.”

সংস্কৃতির নৈতিক শক্তি

ব্রিটেন এবং ফ্রান্সের সাম্রাজ্যবাদীরা তথাকথিত আলোক বহনকারী এবং সভ্যতার নির্মাতা বলা হত। তারা শিক্ষা এবং ধর্মের আলো ছড়িয়ে দিতে গিয়েছিল যা কেবল তথাকথিত নয় বরং বিদেশী উপনিবেশের লোকদের বোকা বানানোর উদ্দেশ্যে তৈরি করেছিল। সাইদের বিশ্লেষণে, ভারত ও আফ্রিকার বাণিজ্য এবং সভ্য মিশনের অনুসন্ধানগুলি উপনিবেশবাদীদের একটি নৈতিক শক্তি প্রদান করেছিল কিন্তু তারা লুটপাট এবং আধিপত্যের জন্য দেশগুলিতে গিয়েছিল।

“এইভাবে কল্পনা করা সংস্কৃতি একটি প্রতিরক্ষামূলক ঘেরে পরিণত হতে পারে: আপনার রাজনীতি দ্বারে দ্বারে পরীক্ষা করুন প্রবেশ করার আগে। “

Literature as an institution of culture: It is universally accepted that literature is the mirror of society. Said opines though the poetry, fiction and philosophy teach how to practice and venerate culture, they discourse colonialism in an indirectly deep way. As a result, the most professional humanists have been unable to connect between prolonged practice of imperialism and culture of literature. Here in this essay, Said especially talks about narrative fictions, novels, which play vital role for the expansion of imperialism in camouflage of culture.

সংস্কৃতির একটি প্রতিষ্ঠান হিসাবে সাহিত্য

এটা সর্বজনস্বীকৃত যে সাহিত্যই সমাজের আয়না। তিনি প্রকাশ করেছেন যদিও কবিতা, কল্পকাহিনী এবং দর্শন সংস্কৃতি চর্চা ও শ্রদ্ধা করতে শেখায়, তারা উপনিবেশবাদকে পরোক্ষভাবে গভীর উপায়ে আলোচনা করে। ফলস্বরূপ, বেশিরভাগ পেশাদার মানবতাবাদীরা দীর্ঘকাল সাম্রাজ্যবাদের চর্চা এবং সাহিত্যের সংস্কৃতির মধ্যে সংযোগ রাখতে অক্ষম হয়েছেন। এখানে এই প্রবন্ধে সৈয়দ বিশেষত বর্ণনামূলক কল্পকাহিনী, উপন্যাস সম্পর্কে কথা বলেছেন যা সংস্কৃতির ছদ্মবেশে সাম্রাজ্যবাদের প্রসারের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

Immigrating culture: Immigrating culture is an instrument of post-colonial capitalism. Edward Said relates that imperialism exists even in 20th century but not in shape of 18th and 19th centuries because in fine of the essay he asserts:

“This is a book about past and present, about us and them.”

সংস্কৃতি অভিবাসন

উপনিবেশিক পুঁজিবাদের একটি উপকরণ হিজরত সংস্কৃতি। এডওয়ার্ড সাইদ বর্ণনা করেছেন যে সাম্রাজ্যবাদ বিংশ শতাব্দীতেও বিদ্যমান তবে 18 এবং 19 শতকের আকারে নয় কারণ প্রবন্ধের  শেষে তিনি দৃড়ভাবে বলেছেন:

“এটি আমাদের এবং তাদের সম্পর্কে অতীত ও বর্তমান সম্পর্কে একটি বই”

Conclusion: To sum up, Edward Said is such a genius who reveals the secret of improved culture as the instrument of imperialism and capitalism in a convincing and fabulous way so that the countries of this universe can enjoy freedom and sovereignty being aware of culture.

6. Question: Distinguish between the intellectual poet and reflective poets?

Introduction: As Eliot fixes the goal that he will abolish all the overdone misconception about the metaphysical school of poetry, he introduces a new term in his essay that is known as ‘reflective and intellectual poet’. He distinguishes between the intellectual poet and the reflective poet in his famous critical essay “The Metaphysical Poets” to declare the superiority of the metaphysical poets.

ভূমিকা: এলিয়ট যেহেতু এই লক্ষ্য স্থির করেছেন যে তিনি কবিতার অধিবিদ্যামূলক বিদ্যালয় সম্পর্কে সমস্ত অতিভ্রষ্ট ধারণা বাতিল করবেন, তাই তিনি তাঁর রচনায় একটি নতুন শব্দ প্রবর্তন করেছেন যা ‘প্রতিবিম্বিত ও বৌদ্ধিক কবি’ নামে পরিচিত। তিনি আধ্যাত্মিক কবিদের শ্রেষ্ঠত্ব ঘোষণা করার জন্য তাঁর বিখ্যাত সমালোচক প্রবন্ধ “দ্য মেটিফিজিকাল পোয়েট” -এ বুদ্ধিজীবী কবি এবং প্রতিবিম্বিত কবির মধ্যে পার্থক্য করেছেন।

Definition: Eliot clearly defines that the poets who are passionate thinker are called intellectual poets. To put it differently, the metaphysical poets are intellectual poets. But the poets who are deeply thoughtful but separated from passion and emotion are called reflective poets.

সংজ্ঞা: এলিয়ট স্পষ্টভাবে সংজ্ঞায়িত করেছেন যে অনুরাগী চিন্তাবিদ কবিদেরকে বুদ্ধিজীবী কবি বলা হয়। একে অন্যভাবে বলতে গেলে রূপক কবিরা হলেন বুদ্ধিজীবী কবি। তবে গভীরভাবে চিন্তাশীল কিন্তু আবেগ থেকে বিচ্ছিন্ন কবিদের প্রতিবিম্বিত কবি বলা হয়।

Versification technique: Eliot deeply suggests that the metaphysical poets have achieved their versification technique from their predecessors of sixteenth century dramatists who were the master of ‘mechanism of sensibility’. On the other hand, the reflective poets especially Tennyson and Browning as a writer of dramatic monologue are the followers of the intellectual poets.

কবিতা রচনার কৌশল: এলিয়ট গভীরভাবে ইঙ্গিত দেয় যে রূপক কবিরা তাদের কবিতা রচনার কৌশল তাদের ষোড়শ শতাব্দীর পূর্বসূরী নাট্যকারদের কাছ থেকে অর্জন করেছেন যারা ‘সংবেদনশীলতার  কর্তা ছিলেন। অন্যদিকে প্রতিবিম্বিত কবিরা বিশেষত টেনিসন এবং ব্রাউনিং ড্রামাটিক মনোলোগ লেখক হিসাবে বুদ্ধিজীবী কবিদের অনুসারী।

Dissociation of sensibility: The term ‘dissociation of sensibility’ has been coined out by Eliot in his essay. Dr. Johnson blames the intellectual poets in the following manner:

‘the most heterogeneous ideas are yoked by violence together’

Such blame recommends that the metaphysical poets were the first to separate thought and passion. But it is crystal clear that the reflective poets are engulfed with dissociation of sensibility, but the intellectual poets are the lord of unification of sensibility.

সংবেদনশীলতা বিযুক্তি

এলিয়ট তাঁর প্রবন্ধে ‘সংবেদনশীলতার বিচ্ছিন্নতা’ শব্দটি আবিষ্কার করেছেন। ডাঃ জনসন নিম্নলিখিত পদ্ধতিতে বুদ্ধিজীবী কবিদের দোষ দিয়েছেন:

‘সর্বাধিক ভিন্নধর্মী ধারণা একসাথে সহিংসতা দ্বারা যোগ করা হয়’

এই ধরনের দোষ সুপারিশ করে যে রূপক কবিরা সর্ব প্রথম চিন্তা ও আবেগকে পৃথক করেছিলেন। সুতরাং, এটি স্ফটিক স্পষ্ট যে প্রতিবিম্বিত কবিরা সংবেদনশীলতা বিচ্ছিন্নতায় আবদ্ধ, তবে বুদ্ধিজীবী কবিগণ সংবেদনশীলতার একীকরণের কর্তা।

Diction vs feeling: Eliot presents a unique discovery between the intellectual poets and the reflective poets in case of use of language.

রচনাশৈলী বনাম অনুভূতি: এলিয়ট ভাষা ব্যবহারের ক্ষেত্রে বুদ্ধিজীবী কবি এবং প্রতিবিম্বিত কবিদের মধ্যে একটি অনন্য আবিষ্কার উপস্থাপন করেছেন।

Conclusion: In a nutshell, it can be said that though Eliot is not starkly accurate differentiating between the intellectual poets and the reflective poets, his intention is perfect because he has just wanted to show that the metaphysical poets are the inevitable part in the galaxy of English literature.

7. Question: How does T.S. Eliot praise Donne’s ability to unify the intellectual thoughts and sensation of feeling?

Introduction: T.S. Eliot (1888-1965) is the first critic who in his essay “The Metaphysical Poets” has praised the ability of John Donne. Sensuous apprehension of thought which is called the unification of sensibility. To put it differently, unified sensibility means the combination of emotion and thought. Donne’s power of fusing intellectual thoughts and sensation of feeling is the key issue of Eliot’s essay.

ভূমিকা: টি.এস. এলিয়ট (1888-1965) হলেন প্রথম সমালোচক যিনি তাঁর রচনা “দ্য মেটিফিজিকাল পোয়েট” এ জন ডোন-এর দক্ষতার প্রশংসা করেছেন। চিন্তার সংবেদনশীল ধারণা যাকে বলা হয় সংবেদনশীলতা একীকরণ। এটিকে অন্যভাবে বলতে গেলে সংহত সংবেদনশীলতা মানে আবেগ এবং চিন্তার সংমিশ্রণ। ডানের বুদ্ধিজীবী চিন্তাভাবনা এবং অনুভূতির সংবেদনকে মিশ্রিত করার  শক্তি ইলিয়টের রচনার মূল বিষয়।

The Variety of mood and experience: Eliot argues that Donne’s poetry is chiefly remarkable for the range and variety of mood and attitude. By dint of the variety of mood, Donne has been able to blend thought and emotion in a bizarre way that has been designated as ‘a mechanism of sensibility’ which can devour any kind of experience. 

মেজাজ এবং অভিজ্ঞতার বৈচিত্র্য: এলিয়ট যুক্তি দেখান যে ডোনের কবিতা প্রধানত উল্লেখযোগ্য মেজাজ এবং মনোভাবের পরিসীমা এবং বিভিন্নতার জন্য। Donne চিন্তা এবং আবেগ মিশ্রিত করতে সক্ষম হয়েছে উদ্ভট উপায়ে যা মনোনীত করা হয়েছে ‘সংবেদনশীলতার ব্যবস্থা’ হিসাবে যা কোনও ধরণের অভিজ্ঞতা গ্রাস করতে পারে।

Intellectualism and logical quality: According Eliot, the metaphysical poets are called intellectual poets, but their intellectuality is not devoid of passionate thinking. But rather they are logically associated. The critic refers one of the love poems of Donne entitled “A valediction: Forbidding Mourning” in which Donne moves from thought to thought with a measured and weighty music.

বৌদ্ধিকতা এবং যৌক্তিক গুণ: এলিয়টের মতে, রূপক কবিদের বুদ্ধিজীবী কবি বলা হয়, তবে তাদের বৌদ্ধিকতা সংবেদনশীল চিন্তাভাবনা থেকে বঞ্চিত নয়। বরং তারা যুক্তিযুক্তভাবে যুক্ত হয়। সমালোচক  “একটি শপথ: শোককে হারাম” শিরোনামে ডানের একটি প্রেমের কবিতা উল্লেখ করেছেন যার মধ্যে ডোন একটি পরিমাপযোগ্য এবং ওজনযুক্ত সংগীত নিয়ে চিন্তাভাবনা থেকে চিন্তায় চলে আসে।

Using imagery and conceits: Eliot remarks that Donne’s poems arise from an emotional situation. Then the poet argues to make his attitude acceptable and, in this process, the conceits are used as instruments. His originality is reflected when he uses images and conceits from various sources and fields. Eliot specially mentions “The Relic” that is one of the famous poems of John Donne.

“A bracelet of bright hair about the bone,”

Using Imagery and conceits: এলিয়ট মন্তব্য করেছেন যে ডোনের কবিতাগুলি একটি সংবেদনশীল পরিস্থিতি থেকে উদ্ভূত হয়। তারপরে কবি তার মনোভাবকে গ্রহণযোগ্য করার পক্ষে যুক্তি দেখান এবং, এই প্রক্রিয়াতে, অহঙ্কার যন্ত্র হিসাবে ব্যবহৃত হয় যখন তিনি বিভিন্ন উত্স এবং ক্ষেত্রের চিত্র এবং অহঙ্কার ব্যবহার করেন তখন তাঁর মৌলিকতা প্রতিফলিত হয়। এলিয়ট বিশেষভাবে “দ্য রিলিক” উল্লেখ করেছেন এলিয়ট বিশেষভাবে  জন ডোনির অন্যতম বিখ্যাত কবিতা”দ্য রিলিক” কে উল্লেখ করেছেন।

হাড় সম্পর্কে উজ্জ্বল চুলের একটি ব্রেসলেট,”

Conclusion: Thus, Donne achieves the power of unification of sensibility very successfully and artificially. His poetry gives the impression that the thought and arguments are arising immediately out of passionate feeling. It is the part of the dramatic realism of his style. He could combine disparate experiences and build something new by a variety of subjects.

8. Question: Write a short note on Chaucer.

Introduction: Geoffrey Chaucer (1343-1400) was a poet, scientific thinker, author, philosopher and diplomat. He made a huge contribution for the development of English literature and language. His three stages of literary career make him not only famous but also recognizable. According to John Dryden, Chaucer is the father of English poetry. He is given this title for a number of reasons.

Arnold’s evaluation on Chaucer: In “The Study of Poetry” Matthew Arnold refers to Chaucer and seeks to establish real estimate of his poetry. He says that the poetical importance of Chaucer does not need the assistance of the historic estimate. He is a genuine source of joy. He admits that the language of Chaucer is a cause of difficulty for us but he believes that it is a difficulty to be unhesitatingly accepted and overcome. In the recognition of Chaucer as a classic, the famous Arnoldian touchstone method stands in the way and spoil the whole game. Arnold is prepared to acknowledge the fact that the poetry of Chaucer is far better than the poetry before him. He is prepared to accept that he enjoys Chaucer’s writing. He says in most emphatic terms that it was dependent upon his talent. It is by the own words of Arnold:

“Chaucer is not one of the great classics. His poetry transcends and effaces, easily and without effort,………”

Conclusion: Arnold’s evaluation of Chaucer has been generally accepted by subsequent critics. G. K. Chesterton says that Chaucer was a humorist in the grand style. Some critics are also shocked to see Arnold’s notion of seriousness.

9. Question: What do you mean by consolidation of imperialism?

Introduction: Imperialism is the process of expanding European overseas territories. To put it differently, it is the process of domination over weaker nations by powerful hypocrite nations. The whole process of imperialism is based on the consolidation of imperialism which is transparently coined out by Edward Said in literature.

Consolidation of imperialism: The consolidation of imperialism was the procedure of building of armies based on conscription, compulsory schooling, and the use of imperialism as a means of deflecting internal discontent and strengthening loyalties to the nation. To make easy the term ‘consolidation of imperialism’, Said discovers the two-fold meanings of culture that help the imperialists by focusing on the following aspects of culture:

  1. Fragile culture of the natives
  2. Ethical power of culture
  3. Literature as an institution of culture

Conclusion: Thus, the term consolidation of imperialism is venture of permanent domination in the legalized process.

10. Question: What do you mean by post-colonialism or post-colonial theory?

Introduction: The history of colonialism is deeply rooted in the ups and downs of human history. Post-colonial theory was invented with the concept of post-modernism, but it spread around the world in the 1980s when the United Kingdom and the United States incorporated this theory into their academics.

Defined concept: Postcolonialism or post-colonial theory is the academic study of the cultural legacy of colonialism and imperialism. This theory focuses on the human consequences of the control and exploitation of colonized people and their lands. It is a critical analysis of the history, culture, literature, and discourse of European imperial power.

Expansion of the theory: The field of postcolonial studies was influenced by Edward Said’s path-breaking book Orientalism. Said uses the term Orientalism in several different ways. Orientalism is a specific field of academic study about the Middle East and Asia. This term described a structured set of concepts, assumptions, and discursive practices that were used to produce, interpret, and evaluate knowledge about non-European people. Said’s analysis made it possible for scholars to deconstruct literary and historical texts in order to understand how they reflected and reinforced the imperialist project. In “Introduction to Culture and Imperialism”, Said clearly states the theory post-colonialism by referring immigrating culture.

Conclusion: Thus, post-colonialism is a new term to enhance imperialistic power. This theory is a golden key for the imperialists to dominate the weaker nations sitting in a fixed place.

11. Question: What similarity do you find between the metaphysical poets and modern poets?

Introduction: T. S. Eliot (1888-1965) in his critical essay “The Metaphysical Poets” has shown the affinity between the metaphysical poets and the modern poets. He asserts that modern poetry is the result of metaphysical poetry. To put it differently, he is in the opinion that without the shadow of the metaphysical poets, modern poetry cannot get its way of improvement.

Variety and complexity: Variety and complexity have been the key fact against the metaphysical poets raised by Dr. Samuel Johnson (1709-1784). It is in Johnson’s tongue:

“The most heterogeneous ideas are yoked by violence together”

But Eliot finds a great link between metaphysical poets and modern poets on a great variety of mood and complexity. Because juxtaposition is one of the significant features of modern poetry.

The use of language: Eliot says that the poet must become more and more comprehensive, allusive and indirect in order to force language into his meaning. Comprehensive, allusive and indirect qualities of the metaphysical poets are produced by the use of conceits. And today, the name of conceits is changed into obscure words mingled with simple phrasing.

Other similarities: Beside these, we also find some other similarities which are as follow:

  1. The quality of transforming ideas into sensations
  2. Dramatic beginning
  3. Intellectual quality

Conclusion: To sum up, it can be said that Eliot has wanted to say that the modern poets are the perfect imitators of the metaphysical poets because modern poetry descends in a direct line to the metaphysical poets.

PART-C

  1. Question: Critically analyze Arnold’s assessment of the poetry written in the 17th and 18th centuries in England.

Or, how does Arnold evaluate Dryden, Pope, Gray and Burns? Do you agree with him?

Introduction: “The Study of Poetry” by Matthew Arnold (1822-1888) deals with poetry from Chaucer onward. The purpose of this essay is to define the classics and non-classics by applying ‘touchstone method’. As a pure lover of poetry, Arnold has long discussed the poets of 17th and 18th century and he is reluctant to recognize them as classical poets without Gray.

Introduction: “The Study of Poetry” by Matthew Arnold (1822-1888) কবিতা নিয়ে আলোচনা করে চৌসার থেকে। এই প্রবন্ধের উদ্দেশ্য হল ‘টাচস্টোন পদ্ধতি’ প্রয়োগ করে ক্লাসিক এবং নন-ক্লাসিকগুলি সংজ্ঞায়িত করা। কবিতার খাঁটি প্রেমিক হিসাবে, আর্নল্ড দীর্ঘদিন ধরে 17 তম এবং 18 শতকের কবিগুলি নিয়ে আলোচনা করেছেন এবং গ্রে ছাড়াই তাদের Classical poet হিসাবে স্বীকৃতি দিতে তিনি নারাজ।

Group of 17th and 18th century poets

Before starting the detail discussion of this group of poets, Arnold has made it transparent that Shakespeare and Milton are undoubtedly classics. Arnold has limned in detail about Dryden, Pope, Gray and Burns as the group of 17th and 18th century poets. He has focused on these poets and recognized them at the same time. By this group of poets, he means to say the poets of “Neo-classical Age” (1660-1785).

এই দলের কবিদের বিশদ আলোচনা শুরু করার আগে আর্নল্ড এটিকে স্বচ্ছ করে তুলেছেন যে শেক্সপিয়ার এবং মিল্টন নিঃসন্দেহে ক্লাসিক. আর্নল্ড বিস্তারিতভাবে সীমাবদ্ধ করেছেন ড্রইডেন, পোপ, গ্রে এবং বার্নস সম্পর্কে 17 এবং 18 শতকের কবিদের দল হিসাবে. তিনি এই কবিদের প্রতি মনোনিবেশ করেছেন এবং তাদের একই সাথে স্বীকৃতি দিয়েছেন। এই দলটির কবিদের তিনি “Neo-classical Age” (1660-1785) এর কবি বলতে চাইছেন।

John Dryden (1631-1700) and Alexander Pope (1688-1744)

Though Dryden and Pope are ever accepted as the prominent poets in the history of English literature, Arnold is reluctant to recognize them as poets, let alone classical poets. According to him, they are the puissant or influential and glorious founder and priest of prose. It is in Arnold’s tongue:

“We are to regard Dryden as the puissant and glorious founder, Pope as the splendid high priest, of our age of prose and reason, of our excellent and indispensable eighteenth century”.

যদিও ড্রাইডেন এবং পোপ কখনও ইংরেজী সাহিত্যের ইতিহাসে বিশিষ্ট কবি হিসাবে গৃহীত হয়, তবে আর্নল্ড তাদের কবি হিসাবে স্বীকৃতি দিতে অনিচ্ছুক, ক্লাসিক্যাল কবি হিসাবেতো দুরের কথা. তাঁর মতে তারা হলেন গদ্যের পূজা বা প্রভাবশালী এবং গৌরবময় প্রতিষ্ঠাতা এবং পুরোহিত।

“আমরা ড্রাইডেনকে পূজাশীল ও গৌরবময় প্রতিষ্ঠাতা হিসাবে বিবেচনা করব, পোপকে দুর্দান্ত মহাযাজক হিসাবে দেখবো, আমাদের গদ্য ও যুক্তির যুগের, আমাদের দুর্দান্ত এবং অপরিহার্য আঠারো শতকের” ।

Arnold further argues that if he is asked about the verse of Dryden and Pope, he will admirably answer that they are the inaugurator and priest of prose and reason because of lack of inseparable manner of adequate poetic criticism. Their poetry has been considered to be the builders of an age of prose and reason although they may be in certain sense the masters of the art of versification.

“Dryden and Pope are not classics of our poetry, they are classics of our prose.”

আর্নল্ড আরও যুক্তি দেখিয়েছেন যে, যদি তাকে ড্রাইডেন এবং পোপের আয়াত সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়, তবে তিনি প্রশংসার সাথে উত্তর দেবেন যে তারা পর্যাপ্ত কাব্য সমালোচনার অবিচ্ছেদ্য পদ্ধতিতে অভাবের কারণে গদ্য ও কারণের উদ্বোধক এবং পুরোহিত. তাদের কবিতা গদ্য ও কারণের যুগের নির্মাতা হিসাবে বিবেচিত হয়েছে যদিও তারা নির্দিষ্ট বোধে দক্ষতার শিল্পের দক্ষতা থাকতে পারে।

“ড্রাইডেন এবং পোপ আমাদের কবিতার ক্লাসিক নয়,

তারা আমাদের গদ্যের ক্লাসিক “

Thomas Gray (1716-1771)

Gray has a singular position in poetry from the perspective of independent criticism of life in conformity with Arnold. He studies the Greek classical poets and has not only been able to catch their poetic manner but also to apply them in times. Arnold asserts though Gray has not composed a lot of volumes of poetry, he is classic in our poetry.

“He is the scantiest and frailest of classics in our poetry, but he is classic.”

Thus, Arnold has presented Gray as the only classical poet among the founder and priest of an age of prose and reason.

আর্নল্ডের মতে, গ্রে এর কবিতায় একটি একক অবস্থান আছে জীবনের স্বাধীন সমালোচনার দৃষ্টিকোণ থেকে. তিনি গ্রীক শাস্ত্রীয় কবিদের পড়াশোনা করেছেন এবং তাদের কবিতাগত পদ্ধতিটি কেবল ধরতে পেরেছেন তা নয় বরং সময়মত তাদের প্রয়োগ করতে পেরেছেন। আর্নল্ড দৃরভাবে দাবি করেছেন যে গ্রে যদিও প্রচুর পরিমাণে কবিতা রচনা করেন নি, তিনি আমাদের কবিতায়.

তিনি আমাদের কবিতায় ধ্রুপদী এবং বুদ্ধিমান, তবে তিনি ক্লাসিক।

সুতরাং, গদ্য এবং যুক্তির যুগের প্রতিষ্ঠাতা এবং পুরোহিতের মধ্যে আর্নল্ড গ্রেকে একমাত্র শাস্ত্রীয় কবি হিসাবে উপস্থাপন করেছেন।

Robert Burns (1759-1796)

Robert Burns is an illustrious Scottish poet who in general belongs to the eighteenth century. Arnold has made a long discussion on Burns but starts declaring that Burns has little importance for English poetry. Arnold boldly says that Burns’ poetry permanently deals with Scotch drink, religion and manners which are often harsh and sordid or nasty that is why he has told that Burns has not even followed the proper seriousness of ‘bacchanalian poetry’.

রবার্ট বার্নস একজন খ্যাতিমান স্কটিশ কবি যিনি সাধারণত আঠারো শতকের অন্তর্ভুক্ত। আর্নল্ড বার্নস নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা করেছেন তবে এই ঘোষণা দিয়ে শুরু করে যে ইংরেজি কবিতায় বার্নসের তেমন গুরুত্ব নেই। আর্নল্ড সাহস করে বলে যে বার্নসের কবিতা স্থায়ীভাবে স্কচ পানীয়, ধর্ম এবং শিষ্টাচার নিয়ে কাজ করে, যেগুলি প্রায়শই কঠোর এবং তীব্র, বা অশ্লীল সে কারণেই তিনি বলে যে বার্নস লম্পট কবিতার যথাযথ গুরুত্বকে অনুসরণ করেননি।

 Arnold further argues that the admirers of Burns’ poetry may assert that he has high seriousness of life, but Arnold does not agree to this. He has compared him with Chaucer who has short of the high seriousness of the great classics. So, Burns is not included in the group of classics by Arnold as well.

আর্নল্ড আরও যুক্তি দেয় যে বার্নস এর কবিতার প্রশংসকরা জোর দিতে পারে যে তাঁর জীবনের উচ্চ গুরুত্ব রয়েছে, কিন্তু আর্নল্ড এতে একমত নন. তিনি তাকে চোসারের সাথে তুলনা করেছেন যার কাছে দুর্দান্ত ক্লাসিকগুলির উচ্চ গম্ভীরতার সংক্ষিপ্ততা রয়েছে। সুতরাং, বার্নস আর্নল্ড দ্বারা ক্লাসিকের গ্রুপে অন্তর্ভুক্ত নয়।

Conclusion: Arnold’s appreciation about the poets of 17th and 18th poets has possessed a strong platform since Neo-Classical Age is considered to be the age of prose and reason in the history of English literature.

উপসংহার: নব্য-শাস্ত্রীয় যুগকে ইংরেজী সাহিত্যের ইতিহাসে গদ্য এবং কারণ হিসাবে বিবেচনা করা হয় বলে 17 ও 18 শতকের কবিদের সম্পর্কে আর্নল্ডের প্রশংসা একটি শক্তিশালী প্ল্যাটফর্মের অধিকারী।

2. Question: Discuss Eagleton’s prose style.

Introduction: The style is not mere decoration. It is rather a way of searching and explaining the truth. Its purpose is not to impress, but to express. Since Terry Eagleton is the most renowned critic of modern English literature, his critical writing has a number of prominent features.

পরিচিতি: শৈলী নিছক সাজসজ্জা নয়। এটি বরং সত্য অনুসন্ধান এবং ব্যাখ্যা করার একটি উপায়। এর উদ্দেশ্য প্রভাবিত করা নয়, বরং প্রকাশ করা। টেরি ইগল্টন যেহেতু আধুনিক ইংরেজি সাহিত্যের সর্বাধিক খ্যাতিমান সমালোচক, তাই তাঁর সমালোচনা লেখার বেশ কয়েকটি বিশিষ্ট বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

Dialectical style

One of the key features of Eagleton’s critical prose is the brilliant inverse logical style. He intelligently considers social and cultural conflicts and raises the opposing arguments so strongly in the conflict that they burst and suddenly some unexpected insight or vision is revealed. In this way, the readers feel seemingly ridiculous and far-fetched assumptions. But immediately they discover how precise and reasonable the arguments are.

“In eighteenth-century England, the concept of literature was not confined as it sometimes is today to ‘creative’ or ‘imaginative’ writing.”

The above sentence may be seemed positive but expresses the limited concept of literature since it was not creative and imaginative in the 18th century. Thus, the dialectical style is the soul of his prose style.

দ্বান্দ্বিক স্টাইল

ইগল্টনের সমালোচনামূলক গদ্যের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হ’ল উজ্জ্বল বিপরীত লজিক্যাল স্টাইল। তিনি বুদ্ধিমানভাবে সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক দ্বন্দ্বকে বিবেচনা করেন এবং বিরোধের পক্ষে যুক্তি এতটা দৃড় তার সাথে উত্থাপন করেন যে তারা আবির্ভাব হয় এবং হঠাৎ করে কিছু অপ্রত্যাশিত অন্তর্দৃষ্টি বা দৃষ্টিভঙ্গি প্রকাশ পায়। এইভাবে পাঠকরা আপাতদৃষ্টিতে হাস্যকর এবং সুদূর অনুমান অনুভব করে। তবে তাত্ক্ষণিকভাবে তারা আবিষ্কার করে যে তর্কগুলি যথাযথ এবং যুক্তিসঙ্গত।

“অষ্টাদশ শতাব্দীর ইংল্যান্ডে সাহিত্যের ধারণাটি সীমাবদ্ধ ছিল না কারণ আজকাল এটি ‘সৃজনশীল’ বা ‘কল্পনাশক্তিপূর্ণ’ লেখার মতো।”

উপরের বাক্যটি ইতিবাচক বলে মনে হতে পারে তবে সাহিত্যের সীমাবদ্ধ ধারণাটি প্রকাশ করে যেহেতু এটি আঠার শতাব্দীতে সৃজনশীল এবং কল্পনাপ্রসূত ছিল না। সুতরাং, দ্বান্দ্বিক স্টাইল তাঁর গদ্য রীতির প্রাণ।

Lightening opacity

Absolute ambiguity is one of the most permanent and attractive qualities in Terry Eagleton’s writings. It has helped him to be one of the most colorful and controversial figures in cultural politics today. When we examine his critical writings, we can see that no one explains critical theory with greater clarity than he does. The appeal of his work stems from the bold enquiry. He has introduced the origins and aims of English studies. This is meant that the function of criticism relates to the closely related and equally relentless questions. So, Eagleton’s style is unclear due to the riddle of the question. But whenever questions are solved, his idea shines. His “The Rise of English” is the paradigm of sheer audacity.

আলোকিত অস্বচ্ছতা

সম্পূর্ণ অস্পষ্টতা টেরি ইগল্টনের লেখাগুলির মধ্যে অন্যতম স্থায়ী এবং আকর্ষণীয় গুণ। এটি তাকে সাংস্কৃতিক রাজনীতির অন্যতম বর্ণময় এবং বিতর্কিত ব্যক্তিত্ব হতে সাহায্য করেছে। আমরা যখন তাঁর সমালোচনামূলক লেখাগুলি পরীক্ষা করি, আমরা দেখতে পাই যে সমালোচনামূলক তত্ত্বটি তার চেয়ে বেশি স্পষ্টতার সাথে কেউ ব্যাখ্যা করেনি। তাঁর কাজের আবেদনটি সাহসী তদন্ত থেকে শুরু হয়েছে। তিনি ইংরেজি অধ্যয়নের উত্স এবং লক্ষ্য চালু করেছেন। এর অর্থ হ’ল সমালোচনার ক্রিয়াটি নিবিড়ভাবে সম্পর্কিত এবং সমানভাবে নিরলস প্রশ্নগুলির সাথে সম্পর্কিত। সুতরাং, প্রশ্নের ধাঁধার কারণে ইগল্টনের স্টাইল অস্পষ্ট। কিন্তু যখনই প্রশ্নগুলির সমাধান হয়ে যায় , তার ধারণাটি জ্বলজ্বল করে। তাঁর “রাইস অফ ইংলিশ” নিছক চরম অস্পষ্টতার দৃষ্টান্ত।

Historical references

Eagleton is an outspoken critic his generation. His best-selling publication “Literary Theory: An Introduction” published in 1983 reflects the breadth of his theory of knowledge. In this book the second chapter entitled “The Rise of English” contains many historical references of literature. His knowledge includes criticism not only of British critics but of Europe, Russia and America. It is important that Eagleton himself is not a historian but his concept on literature excels the historians. Therefore, he studies how English studies went through changes from adorable drawing rooms of aristocracy to the venerable middle class and how it replaces religion to perform the ideological platform to enforce social bonding. This approach is certainly unique and has been dispatched in dialectical style of Eagleton.

ঐতিহাসিক তথ্যসূত্র

ইগলটন তাঁর প্রজন্মের একটি স্পষ্টবাদী সমালোচক। 1983 সালে প্রকাশিত তাঁর সর্বাধিক বিক্রিত বই “লিটারারি  থিওরি : এন  ইন্ট্রোডাকশন ” তাঁর জ্ঞানের তত্ত্বের প্রশস্ততা প্রতিফলিত করে। এই বইতে “রাইস অফ ইংলিশ”  দ্বিতীয় অধ্যায়ের অন্তর্ভুক্ত  সাহিত্যের অনেক ঐতিহাসিক রেফারেন্স রয়েছে। তাঁর জ্ঞানের মধ্যে কেবল ব্রিটিশ সমালোচকদের নয়, ইউরোপ, রাশিয়া এবং আমেরিকার সমালোচনাও রয়েছে। এটি গুরুত্বপূর্ণ যে ইগলটন নিজেই ঐতিহাসিক নন তবে সাহিত্যের বিষয়ে তাঁর ধারণা ঐতিহাসিকদেরকে ছাড়িয়ে যায়। সুতরাং, তিনি অধ্যয়ন করেন যে কীভাবে ইংরাজী অধ্যয়নগুলি আভিজাত্যের অঙ্কন কক্ষগুলি থেকে শ্রদ্ধেয় মধ্যবিত্ত শ্রেণিতে পরিবর্তিত হয়েছিল এবং কীভাবে এটি ধর্মকে প্রতিস্থাপনের জন্য আদর্শিক প্ল্যাটফর্ম সম্পাদন করে ধর্মকে প্রতিস্থাপন করে বা হটিয়ে দেয়। এই পদ্ধতিটি অবশ্যই অনন্য এবং ইগলিটনের দ্বান্দ্বিক স্টাইলে প্রেরণ রূপান্তর করা হয়েছে।

Humor

Most of the reversal comments in “The Rise of English” are humorous. In this work, Eagleton offers scathing assessments of various currents of criticism. While discussing the concept of value-judgement, he notes:

 “Nobody would bother to say that a bus ticket was an example of inferior literature, but someone might well say that the poetry of Ernest Dowson was”.

This is grossly overdone statement, but one should, by no means, ignore the educational or pedagogical problems of Eagleton’s style.

কৌতুকরসবোধ

“দ্য রাইজ অব ইংলিশ” -র বেশিরভাগ বিপরীত মন্তব্য হাস্যকর। এই রচনায়, ইগলটন সমালোচনার বিভিন্ন স্রোতের বিশদ মূল্যায়ন প্রদান করে, মূল্য-রায় ধারণাটি নিয়ে আলোচনার সময় তিনি মন্তব্য করে:

“কেউই এটা বলার মাথা ঘামায় না যে বাসের টিকিট নিকৃষ্ট সাহিত্যের উদাহরণ, তবে কেউ হয়তো বলতে পারেন যে আর্নেস্ট ডওসনের কবিতা নিকৃষ্ট সাহিত্যে ছিল”।

এটি মারাত্মকভাবে অতিমাত্রার বক্তব্য, তবে যে কোনও উপায়েই ইগল্টনের স্টাইলে শিক্ষামূলক বা শিক্ষাগত সমস্যাগুলি উপেক্ষা করা উচিত।

Satirical reversal in argument

Another technique often employed by Eagleton is the Swift-like satirical reversal in argument. He describes in detail a seemingly plausible case only to knock it down unexpectedly with a penetrating observation and expose it with faults. This technique is used to create great effect in “The Rise of English”. When the critic satirizes the English short-lived poet and politician Ernest Dowson, it creates the Swift-like satirical reversal in argument.

যুক্তিতে ব্যঙ্গাত্মক বিপরীত

ইগল্টনের মাঝেমধ্যে নিযুক্ত আরেকটি কৌশল হ’ল যুক্তি  সুইফটের মতো যুক্তিতে ব্যঙ্গাত্মক বিপরীত বা তিনি সুইফটের মতো বিদ্রূপকারী । তিনি আপাতদৃষ্টিতে আপত্তিজনক বিষয়কে বিশদভাবে  বর্ণনা করে এটির কেবল অপ্রত্যাশিত নিম্নগামিতা দেখাতে একটি শক্তিশালী পর্যবেক্ষণ সহ এবং এটি ত্রুটির সঙ্গে প্রকাশ করতে। এই কৌশলটি “ইংলিশের উত্থান” -তে দুর্দান্ত প্রভাব তৈরি করতে ব্যবহৃত হয়। সমালোচক যখন ইংরেজ ক্ষণজন্মা কবি ও রাজনীতিবিদ আর্নেস্ট ডওসনকে বিদ্রূপ করেন, তখন এটি যুক্তি অনুসারে সুইফ্ট-এর মতো ব্যঙ্গাত্মক বিপরীত সৃষ্টি করে।

Tiresome extent

Pointless is not the staple of Eagleton’s prose. In fact, his style is clearer than most of the formal methods. But long stretches of text can be tiring. In spite of the tedious limitations, there is something different in his prose that can regenerate the text and the readers separately independent, it means that his criticism works like a catalyst.

ক্লান্তিকর বিশদ

অর্থহীন হ’ল ইগল্টনের গদ্যের মূল নয়। আসলে, তাঁর রীতিটি বেশিরভাগ আনুষ্ঠানিক পদ্ধতির চেয়ে পরিষ্কার। তবে পাঠ্যের দীর্ঘ প্রসার ক্লান্তিকর হতে পারে। ক্লান্তিকর সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও, তাঁর গদ্যের মধ্যে আলাদা কিছু রয়েছে যা পাঠ্য এবং পাঠকদের আলাদাভাবে স্বাধীন করতে পারে অর্থাৎ তার সমালোচনা সাহিত্য ক্যাটালিস্ট হিসাবে কাজ করে ।

Conclusion: Thus, writing in a style is accessible. Eagleton has specifically argued in the field of literary theory. His rhetorical skills are perhaps unequalled by contemporary critics. These are something that many critical theorists could benefit from studying.

উপসংহার: এইভাবে, একটি স্টাইলে লেখা প্রবেশযোগ্য। ইগলটন সাহিত্য তত্ত্বের ক্ষেত্রে বিশেষভাবে যুক্তি দেখিয়েছেন। তাঁর অলঙ্কৃত দক্ষতা সম্ভবত সমকালীন সমালোচকদের চাইতে অনেক বেশি উৎকৃষ্ট। এগুলি এমন কিছু যা অনেক সমালোচক তাত্ত্বিকরা অধ্যয়ন করে উপকৃত হতে পারে।

3. Question: Discuss poetry is the criticism of life.

Or, evaluate Arnold’s theory or definition of poetry.

Introduction: One of the most prestigious forms of writing is poetry. It is an art that is embedded in the soul and spirit of the people. The ‘first modern critic’ Matthew Arnold (1822-1888) shows high conception on poetry in his literary criticism “The Study of Poetry” which is his attempt to establish the standard of what poetry should be. He asserts that the best poetry is the “criticism of life by the laws of poetic truth and poetic beauty”.

ভূমিকা: লেখার অন্যতম মর্যাদাপূর্ণ রূপ হ’ল কবিতা। এটি এমন একটি শিল্প যা মানুষের আত্মা এবং চেতনায় অন্তর্ভুক্ত। ‘প্রথম আধুনিক সমালোচক’ ম্যাথু আর্নল্ড (1822-1888) কবিতার উপর উচ্চ ধারণা দেখায় তাঁর সাহিত্যের সমালোচনা “কবিতা অধ্যয়ন”এ যা তার প্রয়াস স্ট্যান্ডার্ড প্রতিষ্ঠার জন্য যে কবিতা কেমন হওয়া উচিত । তিনি বলে যে সেরা কাব্যগ্রন্থ হ’ল “কাব্যিক সত্য ও কাব্যিক সৌন্দর্যের বিধি দ্বারা জীবনের সমালোচনা”।

Arnold’s concept on poetry

According to Matthew Arnold, “poetry is simply the most delightful and perfect form of utterance that human words can reach; it is a criticism of life under the conditions fixed for such a criticism by the laws of poetic truth and poetic beauty”.

আর্নল্ডের কবিতা সম্পর্কে ধারণা

ম্যাথু আর্নল্ডের মতে, “কবিতা কেবল সর্বাধিক আনন্দদায়ক এবং নিখুঁত রূপ মানুষের কথা শৈলীর; এটি স্থির শর্তে জীবনের সমালোচনা কাব্যিক সত্য এবং কাব্যিক সৌন্দর্যের আইন দ্বারা এই জাতীয় সমালোচনা করার জন্য” ।

The “Criticism of Life”

The phrase “Criticism of life” means proper interpretation of life. Poetry accurately explains life. Here we discover and analyze how poetry is the criticism of life.

জীবনের সমালোচনা

“জীবনের সমালোচনা” শব্দটির অর্থ জীবনের যথাযথ ব্যাখ্যা। কবিতা জীবনকে সঠিকভাবে ব্যাখ্যা করে। এখানে আমরা আবিষ্কার এবং বিশ্লেষণ করব যে কবিতা কীভাবে জীবনের সমালোচনা।

Integrity between poetry and human life

Arnold defines poetry as a critique of life. To put it differently, poetry must concern itself with life and the problems of life. The idea, the subject-matter and the theme of poetry should be relevant to people’s lives. It should not be remote in a way that does not directly connect to our lives. The phrase “criticism of life” is further explained by Arnold as “noble and profound application of ideas.” The greatness of a poet lies in his powerful and beautiful application of ideas to life. Here we can cite from Shakespeare:

“We are such stuff

As dreams are made of and our little life

Is round with sleep”

কবিতা এবং মানব জীবনের মধ্যে অখণ্ডতা

আর্নল্ড কবিতাকে জীবনের সমালোচনা হিসাবে সংজ্ঞা দিয়েছেন। এটিকে অন্যভাবে বলতে গেলে কবিতা অবশ্যই জীবন এবং জীবনের সমস্যাগুলির সাথে নিজেকে উদ্বেগিত করে। ধারণা, বিষয়বস্তু এবং কবিতার থিম মানুষের জীবনের সাথে প্রাসঙ্গিক হওয়া উচিত। এটি এমনভাবে দূরবর্তী হওয়া উচিত নয় যা আমাদের জীবনের সাথে সরাসরি সংযোগ না করে। “জীবনের সমালোচনা” বাক্যাংশটি আরও ব্যাখ্যা করেছেন আর্নল্ড “ধারণাগুলির মহৎ এবং গভীর প্রয়োগ” হিসাবে। একজন কবির মাহাত্ম্য তাঁর ধারণাগুলি এবং জীবনে ধারণাগুলির সুন্দর প্রয়োগের মধ্যে নিহিত। এখানে আমরা শেক্সপিয়ার থেকে উদ্ধৃত করতে পারি:

আমরা এই জাতীয় জিনিস

যেমন স্বপ্নগুলি তৈরি হয় এবং আমাদের ছোট্ট জীবন

ঘুমের সাথে গোলাকার

N.B. এই উদ্ধৃতিটির অর্থ এই পৃথিবীতে স্বপ্নের মতো মানুষের জীবনও সংক্ষিপ্ত।

Source of ingredients of life

By the phrase “Criticism of Life” Arnold means to say that the readers can identify their faults and mistakes for the purpose of rectification by going through poems. They must apply the powerful ideas which they pick up through reading poetry. The poetry of Homer, Shakespeare, Milton and Dante is filled with noble and profound ideas. Matthew Arnold’s own poems such as “Dover Beach, The Scholar Gipsy, Thyrsis, To Marguerite, Resignation and A Southern Night” are packed with the “Criticism of Life” to a great extent. In a nutshell, poetry is the catalyst for the readers. Again, we can quote from Shakespeare:

“Life’s but a walking shadow, a poor player,

…………. It is a tale

Told by an idiot, full of sound and fury,

Signifying nothing.”

This profound idea makes us aware of not adopting illegal way to achieve our ambition because unfair means creates havoc.

জীবনের উপাদানগুলির উত্স

“জীবনের সমালোচনা” এই বাক্যটির দ্বারা আর্নল্ড বলতে চেয়েছেন যে পাঠকরা তাদের ত্রুটি এবং ভুলগুলি সনাক্ত করতে পারেন সংশোধন করার উদ্দেশ্যে কবিতা পড়ে । তাদের অবশ্যই শক্তিশালী ধারণাগুলি প্রয়োগ করতে হবে যা তারা কবিতা পড়ার মাধ্যমে গ্রহণ করে। হোমার, শেক্সপিয়র, মিল্টন এবং দান্তের কবিতা মহৎ এবং গভীর ধারণা দিয়ে পূর্ণ। ম্যাথু আর্নল্ডের নিজস্ব কবিতা যেমন “ডোভার বিচ, দ্য স্কলারার জিপসি, থারসিস, টু মার্গেরাইট, পদত্যাগ এবং একটি সাউদার্ন নাইট” অনেকাংশে “জীবনের সমালোচনা” দিয়ে পূর্ণ। সংক্ষেপে বলতে গেলে কবিতা পাঠকদের জন্য অনুঘটক। আবার আমরা শেক্সপিয়ারের কাছ থেকে উদ্ধৃতি দিতে পারি:

জীবন একটি চলমান ছায়া, একটি দরিদ্র খেলোয়াড়,

………… নির্বোধ এর দ্বারা বলা একটি গল্প ,

কিছুই নির্দেশ করেন।

এই গভীর ধারণাটি আমাদের উচ্চাকাঙ্ক্ষা অর্জনের জন্য অবৈধ উপায় অবলম্বন না করার বিষয়ে সচেতন করে তোলে কারণ অন্যায় উপায় সর্বনাশ সৃষ্টি করে।

The ways of leading life

Arnold claims that poetry teaches us how lead life since it is filled with moral ideas. By emphasizing on the moral system, Arnold does not mean the composing of moral or didactic poems. Rather, according to Arnold, it is the question how to live and whatever comes under it, that is moral. Arnold quotes Milton:

“Nor love thy life nor hate; but what thou liv’st

Live well; how long or short, permit to heaven”

In these lines, the moral idea is easily perceived. It teaches us to lead a life with full force whatever situation prevails in our life must be made the best of times not the worst of times.

জীবন যাপনের উপায়

আর্নল্ড দাবি করেছেন যে কবিতা আমাদের শেখায় যে কীভাবে জীবনকে পরিচালনা করতে হয় যেহেতু কবিতা নৈতিক ধারণা দিয়ে পূর্ণ। নৈতিক ব্যবস্থাতে জোর দিয়ে, আর্নল্ড শুধু নৈতিক বা অনুমানমূলক কবিতা রচনাকে বোঝাইনি। বরং আর্নল্ডের মতে, কীভাবে বাঁচতে হবে এবং যা কিছু এর নৈতিক আওতায় আসে, এটাই প্রশ্ন। আর্নল্ড মিল্টনের উদ্ধৃতি দিয়েছেন:

তোমাদের জীবনকে খুব ভালোবেসোনা না বা ঘৃণা করো না; তবে পছন্দ মতো ভালোভাবে বাঁচো

ভাল থাক; স্বর্গীয় সুখের মতো কারণ জীবন সংক্ষিপ্ত

এই লাইনে নৈতিক ধারণাটি সহজেই উপলব্ধি করা যায়। এটি আমাদেরকে শক্তির সাথে জীবনযাপন করতে শিখায় আমাদের জীবনে যে পরিস্থিতি বিরাজ করুক না কেন তা অবশ্যই সময়ের সেরা হিসাবে তৈরি করা উচিত।

Shelter and consolation in crisis

According to Arnold, poetry has high destinations as a criticism of life. His claim is that poetry is superior to philosophy, science and religion. Philosophy depends on reason which is a false display of knowledge. Science is soulless and artificial. It is incomplete without poetry. Religion combines its emotions with ideas that are indescribable or infallible. It provides a great representation of life and concepts without trying to falsify the truths. Therefore, Arnold is of the view that poetry can be our sustenance. The best poetry has the power to create, sustain, and delight us that nothing else can. Over time, mankind will discover that they have to go back to poetry to interpret their lives, and to comfort and sustain themselves because science, religion and philosophy will eventually prove to be fragile and unstable.

আশ্রয় সঙ্কটে সান্ত্বনা

আর্নল্ডের মতে জীবনের সমালোচনা হিসাবে কবিতার উচ্চ গন্তব্য রয়েছে। তাঁর দাবি, কবিতা দর্শন, বিজ্ঞান ও ধর্মের চেয়ে শ্রেষ্ঠ। দর্শন কারণের উপর নির্ভর করে যা জ্ঞানের মিথ্যা প্রদর্শন। বিজ্ঞান আত্মহীন ও কৃত্রিম। এটি কবিতা ব্যতীত অসম্পূর্ণ। ধর্ম তার আবেগকে এমন বর্ণনার সাথে একত্রিত করে যা বর্ণনাতীত বা অবর্ণনীয়। এটি সত্যকে মিথ্যা বলার চেষ্টা না করেই জীবন ও ধারণার দুর্দান্ত প্রতিনিধিত্ব করে। সুতরাং, আর্নল্ডের ধারণা, কবিতা আমাদের ভরণপোষণ হতে পারে। সেরা কবিতা আমাদের তৈরি, ধরে রাখতে এবং আনন্দ করতে পারে যা অন্য কিছুই  করতে পারে না।  সময়ের সাথে সাথে, মানবজাতি আবিষ্কার করবে যে তাদের জীবন ব্যাখ্যা করার জন্য এবং তাদের সান্ত্বনা ও টিকে থাকার জন্য কবিতায় ফিরে যেতে হবে কারণ বিজ্ঞান, ধর্ম এবং দর্শন শেষ পর্যন্ত ভঙ্গুর এবং অস্থির হিসাবে প্রমাণিত হবে।

Conclusion: To sum up, we can say that poetry is the criticism of life. It is the responsibility of the reviewer to examine both poetry and life at the same time. Arnold performs his duty as a father of modern criticism, although his theory of poetry has extended the hornet’s nest or numerous reactions.

4. Question: Discuss the characteristic features of good poetry.

Introduction: Matthew Arnold (1822-1888) is a prominent English poet and critic of the twentieth century. He has brought a revolution to the world of English literature with his critical essays, prose and poetry. As poetry is a high-quality literary work that shows deep feelings with beauty and elegance, it should be written following a number of organized requirements.

ভূমিকা: ম্যাথু আর্নল্ড (1822-1888) বিশ শতকের বিশিষ্ট ইংরেজী কবি এবং সমালোচক। তিনি তাঁর সমালোচনামূলক প্রবন্ধ, গদ্য এবং কবিতা দিয়ে ইংরেজি সাহিত্যের জগতে একটি বিপ্লব নিয়ে এসেছেন। কবিতা যেহেতু একটি উচ্চমানের সাহিত্যকর্ম যা সৌন্দর্য এবং কমনীয়তার সাথে গভীর অনুভূতি প্রদর্শন করে, এটি বেশ কয়েকটি সংগঠিত প্রয়োজনীয়তার অনুসরণ করে রচনা করা উচিত।

Features of good poetry

According to Arnold, the high-quality poetry contains the following features.

  1. Criticism of life
  2. The poetic truth and poetic beauty
  3. And maintenance of grand style or high seriousness.

ভাল কবিতার বৈশিষ্ট্য

আর্নল্ডের মতে, উচ্চ-মানের কবিতায় নিম্নলিখিত বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

  1. জীবনের সমালোচনা
  2. কাব্যিক সত্য এবং কাব্যিক সৌন্দর্য
  3. এবং গ্র্যান্ড স্টাইল বা উচ্চ গম্ভীরতার রক্ষণাবেক্ষণ।

The criticism of life

A poetry cannot be good without having the criticism of life since Matthew Arnold has declared the high position of poetry. The term “criticism of life” means the proper interpretation of life. Poetry accurately explains life. Arnold defines poetry as a critique of life. To put it differently, poetry must concern itself with life and the problems of life. Ideas, topics and themes of poetry should be relevant to people’s lives. It should not be remote in a way that does not directly connect to our lives. Therefore, Arnold asserts:

“….to take specimens of the poetry of the high, the very highest quality, and to say: the characters of a high quality of poetry are what is expressed there.”

Thus, Arnold provides guideline like Aristotle that if the topics, ideas and themes of poetry are not relevant to live, “Criticism of Life” will be completely absent. The criticism of life is further explained by Arnold as” noble and profound application of ideas.” The greatness of a poet lies in his powerful and beautiful application of ideas to life.

জীবনের সমালোচনা

জীবনের সমালোচনা না থাকলে একটি কবিতা ভাল হতে পারে না ম্যাথু আর্নল্ড যেহেতু কবিতার উচ্চ অবস্থান ঘোষণা করেছেন। “জীবনের সমালোচনা” শব্দটির অর্থ জীবনের যথাযথ ব্যাখ্যা। কবিতা জীবনকে সঠিকভাবে ব্যাখ্যা করে। আর্নল্ড কবিতাটিকে জীবনের সমালোচনা হিসাবে সংজ্ঞা দিয়েছেন। এটিকে অন্যভাবে বলতে গেলে কবিতা অবশ্যই জীবন এবং জীবনের সমস্যাগুলির সাথে নিজেকে উদ্বেগিত করে। আইডিয়া, বিষয় এবং কবিতার থিমগুলি মানুষের জীবনের সাথে প্রাসঙ্গিক হওয়া উচিত। এটি এমনভাবে দূরবর্তী হওয়া উচিত নয় যা আমাদের জীবনের সাথে সরাসরি সংযোগ না করে। অতএব, আর্নল্ড জোর দিয়ে বলেছেন:

“উচ্চ, খুব উচ্চমানের কবিতার নমুনা নিতে এবং বলতে: উচ্চ মানের কবিতার চরিত্রগুলি সেখানে অর্থাৎ কবিতায় প্রকাশিত হয়। “

সুতরাং, আর্নল্ড অ্যারিস্টটলের মতো গাইডলাইন সরবরাহ করে যে কবিতার বিষয়, ধারণা এবং থিমগুলি যদি জীবনধারণের সাথে প্রাসঙ্গিক না হয় তবে “জীবনের সমালোচনা” সম্পূর্ণ অনুপস্থিত থাকবে। আর্নল্ড জীবনের সমালোচনা আরও ব্যাখ্যা করেছেন “মহৎ এবং গভীর ধারণাগুলির প্রয়োগ” হিসাবে। একজন কবির মাহাত্ম্য তাঁর ধারণাগুলি এবং জীবনে ধারণাগুলির সুন্দর প্রয়োগের মধ্যে নিহিত।

Poetic truth and poetic beauty

Poetic truth and poetic beauty are the soul of poetry. They are so vital that a poet cannot imagine his poetical success without them.

“But for supreme poetical success more is required than the powerful application of ideas to life; it must be an application under the conditions fixed, by the laws of poetic beauty and poetic truth.”

By poetic truth, Arnold indicates the representation of life in the true way, and by poetic beauty he refers to the manner and style of poetry. The subject-matter of the best poem is characterized by truth, and seriously to a certain degree. The manner is characterized by superiority of diction and of movement. So, the matter and style must have the accent of high beauty. Arnold does not, however, determine what this accent is. He says that we will feel it for ourselves. By such expression, Arnold suggests that if a poet wants to be a classic, he has to be creative by the application of his own diction and movement.

Arnold states that the qualities of truth and seriousness that elevate poetry are inseparable from the excellence of diction and movement. If the matter of a poet has truth and high seriousness, the manner and diction also achieve superior accent.

কাব্যিক সত্য এবং সৌন্দর্য

কাব্যিক সত্য এবং কাব্যিক সৌন্দর্য কবিতার প্রাণ। এগুলি এতটাই প্রাণবন্ত যে একজন কবি এগুলি ছাড়া তাঁর কাব্যিক সাফল্য কল্পনা করতে পারে না।

“তবে সর্বোচ্চ কাব্যিক সাফল্যের জন্য জীবনে ধারণার শক্তিশালী প্রয়োগের চেয়ে আরও বেশি প্রয়োজন; কাব্যিক সৌন্দর্য এবং কাব্যিক সত্যের আইন অনুসারে এটি অবশ্যই নির্ধারিত শর্তের অধীনে একটি অ্যাপ্লিকেশন হতে হবে”

কাব্যিক সত্য দ্বারা, আর্নল্ড সত্য উপায়ে জীবনের উপস্থাপনা নির্দেশ করে, এবং কাব্যিক সৌন্দর্যে তিনি কবিতার স্টাইলকে বোঝান। সেরা কাব্যগ্রন্থের বিষয় সত্য দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছে, এবং গুরুত্ব সহকারে একটি নির্দিষ্ট ডিগ্রি পর্যন্ত। পদ্ধতিটি বৈশিষ্ট্যযুক্ত কল্পনা এবং তালের শ্রেষ্ঠত্ব দ্বারা। সুতরাং, বিষয় এবং শৈলীতে অবশ্যই উচ্চ সৌন্দর্যের উচ্চারণ থাকতে হবে। আর্নল্ড অবশ্য এই উচ্চারণটি কী তা নির্ধারণ করেন না। তিনি বলেছেন যে আমরা এটি নিজের জন্য অনুভব করব। এ জাতীয় অভিব্যক্তি দ্বারা, আর্নল্ড পরামর্শ দিয়েছেন যে কোনও কবি যদি ক্লাসিক হতে চান তবে তাঁর নিজস্ব রচনাশক্তি ও গতিবিধি প্রয়োগ করে তাকে সৃজনশীল হতে হবে।

আর্নল্ড বলেছেন যে সত্য ও গম্ভীরতার যে গুণগুলি কবিতাকে উন্নত করে সেগুলি ডিকশন এবং আন্দোলনের শ্রেষ্ঠত্ব থেকে অবিচ্ছেদ্য। যদি কোনও কবির বিষয়বস্তুতে সত্যতা এবং উচ্চ গুরুত্ব  থাকে তবে পদ্ধতি ও ডিসিশন উচ্চতর উচ্চারণ অর্জন করে।

High seriousness

The laws of the poetic truth and poetic beauty insist on the condition of “high seriousness” in poetry. This is the quality that gives poetry its power and strength. It comes from absolute sincerity that the poet feels for his subject. A poet’s sincerity consists in his speaking because when the readers can feel the sincerity of the poet about his subject-matter, it is sure that he speaks from his very inmost soul. The quality of high seriousness is found in the poetry of Dante, Homer, and Milton. It is the power of sincerity that gives poets the power to interpret life properly.

উচ্চ গম্ভীরতা

কাব্যিক সত্য এবং কাব্যিক সৌন্দর্যের আইনগুলি কবিতায় “উচ্চ গম্ভীরতার” অবস্থার উপর জোর দেয়। এটি সেই গুণ যা কবিতাকে তার শক্তি দেয়। এটি পরম আন্তরিকতা থেকে আসে যা কবি তার বিষয়টির জন্য অনুভব করেন। একজন কবির আন্তরিকতা তার বক্তৃতায় অন্তর্ভুক্ত কারণ পাঠকরা যখন তাঁর বিষয় সম্পর্কে কবির আন্তরিকতা অনুভব করতে পারেন, এটা নিশ্চিত যে সে তার অন্তর থেকে কথা বলে। দান্তে, হোমার এবং মিল্টনের কবিতায় উচ্চ গম্ভীরতার গুণটি পাওয়া যায়। এটি আন্তরিকতার শক্তি যা কবিদের জীবনকে সঠিকভাবে ব্যাখ্যা করার শক্তি দেয়।

Conclusion: To sum up, we can say that truth, high seriousness, a powerful application of ideas to life, absolute sincerity, excellence of diction and movement in the matter of style, these are the essential requirements of great poetry. And we also understand that Matthew Arnold had a broad idea about criticism and poetry.

5. Question: Discuss the role of English novel in perpetuating imperial rule.

Introduction: The English novels which have been scrutinized by Edward Wadie Said (1935-2003) for the first time in the history of English literature have duality. He blazons that the primary purpose of novels is to learn the cultural forms pleasurably and lucratively. Second, they have played gigantic role in formation of sustainable imperial attitudes, references and experiences.

ভূমিকা: ইংরেজি সাহিত্যের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো এডওয়ার্ড ওয়েডি সাইদ (১৯৩৫-২০০৩) দ্বারা যে ইংরেজি উপন্যাসগুলি যাচাই করা হয়েছে তাদের দ্বৈততা রয়েছে। তিনি উজ্জীবিত করেছেন যে উপন্যাসের প্রাথমিক উদ্দেশ্য হ’ল সাংস্কৃতিক রূপগুলি আনন্দদায়ক এবং লাভজনকভাবে শেখা। দ্বিতীয়ত, তারা টেকসই সাম্রাজ্যীয় দৃষ্টিভঙ্গি, উল্লেখ এবং অভিজ্ঞতা গঠনে বিশাল ভূমিকা পালন করেছে।

 Divers role of English novels

Mr. Said alludes sundry role of English novels in his international essay “Introduction to Culture and Imperialism”, 1993, which are illustrated here by pointing out with sufficient references from the essay.

ইংরেজি উপন্যাসের কয়েকটি ভূমিকা

মিঃ তার আন্তর্জাতিক প্রবন্ধ “সংস্কৃতি ও সাম্রাজ্যবাদের পরিচয়”, ১৯৯৩ সালে ইংরেজী উপন্যাসের কয়েকটি ভূমিকার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, যেগুলো এখানে প্রবন্ধ থেকে পর্যাপ্ত রেফারেন্স সহ চিত্রিত করা হল ।

Exploration of strange regions

 As it is known that the main battle of imperialism is over land and overlapping the land. The English novelists, side by side explorers, say about strange regions of the world and also represent the cultural habit of people of that very land so that imperialism functions well after trespassing. For this, Said has referred the prototypical modern novel “Robinson Crusoe.” Thus, English novels are inevitable for colonial expansion and perpetuation in accordance with Edward Said.

অদ্ভুত অঞ্চলগুলির অন্বেষণ

যেমনটি জানা যায় যে সাম্রাজ্যবাদের মূল যুদ্ধটি জমি নিয়ে এবং জমিনতে অবৈধভাবে প্রবেশকে কেন্দ্র করে. ইংরেজ উপন্যাসিকরা, এক্সপ্লোরারদের পাশাপাশি, বিশ্বের অদ্ভুত অঞ্চলগুলি সম্পর্কে বলেছেন এবং ঐ অঞ্চলের মানুষের সাংস্কৃতিক অভ্যাস উপস্থাপন করে ছেনযাতে অবৈধভাবে প্রবেশের পরে সাম্রাজ্যবাদ ভালভাবে কাজ করতে পারে। এর জন্য, সাইড আদি আধুনিক উপন্যাস “রবিনসন ক্রুসো” উল্লেখ করেছেন। সুতরাং, এডওয়ার্ড সাইড মতে ইংরেজি উপন্যাসগুলি উপনিবেশিক বিস্তৃতি এবং স্থায়ীত্বের জন্য অনিবার্য।

Psychological study

No other branches of knowledge do well as narrative fiction does in discovering xenophobia. The word xenophobia refers to dislike foreigners or racial intolerance. By discussing this term, English novels inform imperialists to be conscious. Such discovery is helpful for the newly appointed inexperienced imperialists to understand the natives amply. Such divers’ psychological studies are found in English novels that assist imperialism to hold down. In David Copperfield (1840s) by Charles Dickens (1812-1870), that it has been shown is quoted by Said in the following way:

“A sort of free system where the lobourers could do well on their own if allowed to do so.”

মানসিক গবেষণা

জ্ঞানের অন্য কোনও শাখা এর চেয়ে ভাল করতে পারে না যেমন আখ্যান কল্পকাহিনী জেনোফোবিয়া বা বিদেশাতঙ্ক আবিষ্কারে করে। জেনোফোবিয়া শব্দটি বিদেশী বা জাতিগত অসহিষ্ণুতা বা  অপছন্দকে বোঝায়। এই পদটি নিয়ে আলোচনা করে ইংরেজী উপন্যাসগুলি সাম্রাজ্যবাদীদের সচেতন হতে বলে দেয়। সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত অনভিজ্ঞ সাম্রাজ্যবাদীদের পক্ষে স্থানীয়দের বোঝার পক্ষে এ জাতীয় আবিষ্কার সহায়ক। এই জাতীয় বিভিন্ন মনোবিজ্ঞান গবেষণা ইংরেজী উপন্যাসগুলিতে পাওয়া যায় যা সাম্রাজ্যবাদকে ধরে রাখতে সহায়তা করে। চার্লস ডিকেন্স (1812-1870) দ্বারা ডেভিড কপারফিল্ডে (1840), এটি দেখানো হয়েছে যা নিম্নলিখিতভাবে সাইডের দ্বারা উদ্ধৃত হয়েছে:

এক ধরণের ফ্রি সিস্টেম যেখানে শ্রমিকরা ভাল করতে পারে যদি

তাদের নিজস্বভাবে এটি করার অনুমতি দেওয়া হয়।

Britain’s imperial intercourse through trade and travel

The British novelists are so cunning that by writing novels they prove that presently imperialism is free from criticism and will remain free from flaw and criticism because the purpose of imperialism was not to dominate but to trade and travel. For short space of time, Said only examines two novels, “Great Expectations” by Dickens and “Nostromo” by Joseph Conrad, which are the token of colonial purification and packed with the procedures of establishing penal colony in Australia and powerful and corrupted one in South American Republic. Hence English novels are the advocate for eternality of imperialism.

বাণিজ্য এবং ভ্রমণের মাধ্যমে ব্রিটেনের সাম্রাজ্যবাদী গতিবিধি

ব্রিটিশ উপন্যাসিকরা এতটাই ধূর্ত যে উপন্যাস লিখে তারা প্রমাণ করেছেন যে বর্তমানে সাম্রাজ্যবাদ সমালোচনা থেকে মুক্ত এবং ত্রুটি-বিচ্যুতি থেকে মুক্ত থাকবে কারণ সাম্রাজ্যবাদের উদ্দেশ্য আধিপত্য ছিল না বরং বাণিজ্য ও ভ্রমণ ছিল। স্বল্প সময়ের জন্য, সাইদ কেবল দুটি উপন্যাস পরীক্ষা করে, ডিকেন্সের “দুর্দান্ত প্রত্যাশা” এবং জোসেফ কনরাডের “নস্ট্রোমো”, যেগুলি উপনিবেশিক বিশুদ্ধকরণের দৃষ্টান্ত এবং অস্ট্রেলিয়ায় দ্বন্দদায়ক  কলোনি স্থাপনের পদ্ধতিগুলি দিয়ে ভরা এবং দক্ষিণ আমেরিকান প্রজাতন্ত্রের মধ্যে শক্তিশালী এবং দুর্নীতিগ্রস্থ একটি কলোনি দিয়ে ভরা। সুতরাং ইংরেজী উপন্যাসগুলি সাম্রাজ্যবাদের চিরন্তনতার প্রবক্তা।

La mission civilisatrice or civilizing mission

Civilizing mission was inaugurated by Portugal and France in 15th century and flourished by Great Britain. According to Edward said, Joseph Conrad is the precursor of the western views of the third world. Conrad’s novel “Nostromo” published in 1904 embodies paternalistic arrogance of imperialism. The term paternalistic arrogance concerns the imperialists to dominate the natives as an intruder providing all kind of necessities but without giving rights. It is noticed that such kind of bloody political thinking is pertinent in the third world even nowadays. He, Joseph Conrad, seems to be saying in the subtle going into of Said.

“We westerners will decide who is a good native or bad, because all natives have sufficient existence by virtue of our recognition.”

Thus, English novels have been able to convince imperialists that the other name of “la mission civilisatrice” is eternal domination and looting in a non-violent way.

সভ্যতা মিশন

সভ্য মিশনটি 15 তম শতাব্দীতে পর্তুগাল এবং ফ্রান্স দ্বারা উদ্বোধন করা হয়েছিল এবং গ্রেট ব্রিটেনের দ্বারা বিকাশ লাভ করেছিল। এডওয়ার্ডের মতে, জোসেফ কনরাড তৃতীয় বিশ্বের পশ্চিমী দৃষ্টিভঙ্গির অগ্রদূত। ১৯০৪ সালে প্রকাশিত কনরাডের উপন্যাস “নস্ট্রোমো” সাম্রাজ্যবাদের পৈতৃক আস্পর্ধাকে মূর্ত করেছে। পিতৃতান্ত্রিক ঔদ্ধত্য শব্দটি সাম্রাজ্যবাদীদের সচেতন করে তোলে অনুপ্রবেশকারী হিসাবে স্থানীয়দের শাসন করতে সব ধরণের প্রয়োজনীয়তা সরবরাহ করে কিন্তু অধিকার না দিয়ে এটি লক্ষ করা যায় যে তৃতীয় বিশ্বে এই ধরণের নোংরা রাজনৈতিক চিন্তাভাবনা প্রাসঙ্গিক এমনকি বর্তমানেও। সে বলছে বলে মনে হচ্ছে সাইদের সূক্ষ্ম পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী।

“আমরা পশ্চিমারা সিদ্ধান্ত নেব কে ভাল দেশি বা খারাপ,

কারণ আমাদের স্বীকৃতি অনুসারে সমস্ত নেটিভের পর্যাপ্ত অস্তিত্ব আছে। “

সুতরাং, ইংরেজি উপন্যাসগুলি সাম্রাজ্যবাদীদের বুঝাতে সক্ষম হয়েছে যে “সভ্য মিশন” এর অপর নাম হ’ল অহিংস উপায়ে চিরস্থায়ী আধিপত্য ও লুটপাট।

Anti-imperialistic view

Now it must be a question how anti-imperialistic view can be an issue of expanding and eternalizing imperialism. It is very interesting to note that Mr. Said has blazoned his mastery to figure out this. In conformity with Said, Conrad’s vilifying against imperialism has better concerned the imperialists as to the following facts.

  1. Comprehension of foreign cultures.
  2. Political willingness as alternative to imperialism etc.

That is why Said tells the world:

“To the extent that we see Conrad both criticizing

and reproducing the imperial ideology of his time”

conclusion: In termination, it can be simultaneously related that if there is no English novel, there is no perpetuation of imperialism and there is no imperialism, there is no progress of English novel as Dickens is the prolific master of narrative fiction.

6. Question: How does Edward W. Said show culture as an instrument of imperialism?

Or, discuss culture as an instrument of imperialism.

Introduction: Edward W. Said (1935-2003) is considered to be one of the illustrious critics and philosophers of late 20th century who has expounded the most critical concept in his collection of essays “Introduction to Culture and Imperialism” published in 1993 that there is a very subtle relationship between culture and imperialism. He looks into the relationship between culture and imperialism from a different angle as he has got different instruments of culture for imperialism.

ভূমিকা: এডওয়ার্ড ডাব্লু সাইদ (১৯৩৫-২০০৩) বিশ শতকের শেষের অন্যতম বিশিষ্ট সমালোচক এবং দার্শনিক হিসাবে বিবেচিত যা তিনি ১৯৯৩ সালে প্রকাশিত “সংস্কৃতি ও সাম্রাজ্যবাদের পরিচয়” রচনামূলক সংকলনে সবচেয়ে সমালোচনামূলক ধারণাটি ব্যাখ্যা করেছেন। সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদের মধ্যে একটি খুব সূক্ষ্ম সম্পর্ক। তিনি সাম্রাজ্যবাদের জন্য সংস্কৃতির বিভিন্ন উপকরণ পেয়েছেন বলে সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদের মধ্যে সম্পর্কের বিষয়টি অন্য একটি কোণ থেকে দেখেন।

Fundamental concept on culture

For well understanding “culture as an instrument of imperialism”, it is needed to go into deeply. First of all, the aspects of culture should be clarified. According to Edward Said, culture means two things in particular. It primarily means practices of arts and aesthetic forms. Second, culture is a concept of refining and elevating element and reservoir of the best in accordance with Matthew Arnold said in 1860s. This fundamental concept of culture provides information that the natives of India, Africa, America and so on could not preserve their arts and aesthetic forms that this why the imperialists could be able to be aggressive and searched for so called civilization.

সংস্কৃতি সম্পর্কে মৌলিক ধারণা

“সাম্রাজ্যবাদের একটি সরঞ্জাম হিসাবে সংস্কৃতি” ভাল করে বোঝার জন্য, এটি গভীরভাবে দেখা দরকার। প্রথমত, সংস্কৃতির দিকগুলি পরিষ্কার করা উচিত। এডওয়ার্ড সাইদের মতে সংস্কৃতি অর্থ বিশেষত দুটি জিনিস। এর অর্থ প্রধানত চারুকলা এবং নান্দনিক রূপগুলির অনুশীলন। দ্বিতীয়ত, সংস্কৃতি হ’ল 1860 এর দশকে ম্যাথু আর্নল্ডের মতে  সংস্কৃতি হলো পরিশোধিত ও উন্নত উপাদান এবং সর্বোত্তম জলাধারের ধারণা। সংস্কৃতির এই মৌলিক ধারণাটি এমন তথ্য সরবরাহ করে যে ভারত, আফ্রিকা, আমেরিকা ইত্যাদি স্থানীয় নাগরিকরা তাদের শিল্পকলা এবং নান্দনিক রূপগুলি সংরক্ষণ করতে পারেনি যে কারণে সাম্রাজ্যবাদীরা তথাকথিত সভ্যতার নামে আক্রমণাত্মক এবং অনুসন্ধান করতে সক্ষম হয়েছিল।

Fragile culture of the natives

At the very outset of the essay Said says that the culture of the third world is very fragile which was the strength of the imperialists. The imperialists always left contest among the natives. Said considers that supine or inert natives were the main strength of the imperialists.

“These two factors-a general worldwide pattern of the imperial culture

and a historical experience of resistance against empire”

 Besides, the critic mentions that the people of third world are mean minded and conservative. On the other hand, the imperialists are so conceived and concerned. Thus, culture of the overseas colonies became instrument for the imperialists.

স্থানীয়দের নাজুক সংস্কৃতি

 রচনাটির একেবারে শুরুতে সাইদ বলে যে তৃতীয় বিশ্বের সংস্কৃতি অত্যন্ত নাজুক যা ছিল সাম্রাজ্যবাদীদের শক্তি। সাম্রাজ্যবাদীরা সর্বদা স্থানীয়দের মধ্যে প্রতিযোগিতা ছেড়ে দেয়। তিনি বিবেচনা করেন যে জড় দেশীয়রা ছিল সাম্রাজ্যবাদীদের প্রধান শক্তি।

এই দুটি বিষয়সাম্রাজ্যের সংস্কৃতির সাধারণ বিশ্বব্যাপী প্যাটার্ন এবং সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে প্রতিরোধের ঐতিহাসিক অভিজ্ঞতা

তদ্ব্যতীত, সমালোচক উল্লেখ করেছেন যে তৃতীয় বিশ্বের মানুষ নিচু এবং রক্ষণশীল। অন্যদিকে, সাম্রাজ্যবাদীরা খুব সুগঠিত এবং উদ্বিগ্ন। সুতরাং, বিদেশী উপনিবেশগুলির সংস্কৃতি সাম্রাজ্যবাদীদের হাতিয়ারে পরিণত হয়েছিল।

Ethical power of culture

The imperialists of Britain and France were so called light bearer and maker of civilization. They went to spread the light of education and religion that was not only so called but also namely to make the people of overseas colonies fool. In Said’s analysis, the search of trade and commerce and civilizing missions in India and Africa provided an ethical power to the colonialists but they went to the countries for looting and dominating. Despite this, they were unquestionable to the international community for almost two centuries due to their surface motives of civilizing mission and trade and commerce. Hence Said suggests checking culture before entrance.

“Culture conceived in this way can become a protective enclosure:

check your politics at the door before you enter it.”

সংস্কৃতির নৈতিক শক্তি

ব্রিটেন এবং ফ্রান্সের সাম্রাজ্যবাদীরা তথাকথিত আলোক বহনকারী এবং সভ্যতার নির্মাতা বলা হত। তারা শিক্ষা এবং ধর্মের আলো ছড়িয়ে দিতে গিয়েছিল যা কেবল তথাকথিত নয় বরং বিদেশী উপনিবেশের লোকদের বোকা বানানোর উদ্দেশ্যে তৈরি করেছিল। সাইদের বিশ্লেষণে, ভারত ও আফ্রিকার বাণিজ্য এবং সভ্য মিশনের অনুসন্ধানগুলি উপনিবেশবাদীদের একটি নৈতিক শক্তি প্রদান করেছিল কিন্তু তারা লুটপাট এবং আধিপত্যের জন্য দেশগুলিতে গিয়েছিল। তা সত্ত্বেও, সভ্যতা মিশন ও বাণিজ্য নামে তাদের পৃষ্ঠের উদ্দেশ্যগুলির কারণে তারা প্রায় দুই শতাব্দী ধরে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে সন্দেহাতীত ছিল। সুতরাং সাইদ প্রবেশের আগে সংস্কৃতি চেক করার পরামর্শ দেয়।

এইভাবে কল্পনা করা সংস্কৃতি একটি প্রতিরক্ষামূলক ঘেরে পরিণত হতে পারে: আপনার রাজনীতি দ্বারে দ্বারে পরীক্ষা করুন প্রবেশ করার আগে।

Literature as an institution of culture

It is universally accepted that literature is the mirror of society. Said opines though the poetry, fiction and philosophy teach how to practice and venerate culture, they discourse colonialism in an indirectly deep way. As a result, the most professional humanists have been unable to connect between prolonged practice of imperialism and culture of literature. Here in this essay, Said especially talks about narrative fictions, novels, which play vital role for the expansion of imperialism in camouflage of culture.

“In thinking of Carlyle or Ruskin, or even Dickens and Thackeray, critics have often, I believe, relegated these writers’ ideas about colonial expansion,”

He gives evidence by mentioning and illustrating sundry novels such as “Great Expectations” (1861) by Charles Dickens (1812-1870) which is primarily a novel of self-delusion or misconception about oneself but deeply it is a rogue one of practicing penal colony in Australia. “Nostromo” published in 1904 by Joseph Conrad (1857-1924) regarding the proliferation and malformation of imperialism in South American Republic allows the readers to see that imperialism is a system. Therefore, literary culture is an instrument of imperialism.

সংস্কৃতির একটি প্রতিষ্ঠান হিসাবে সাহিত্য

এটা সর্বজনস্বীকৃত যে সাহিত্যই সমাজের আয়না। তিনি প্রকাশ করেছেন যদিও কবিতা, কল্পকাহিনী এবং দর্শন সংস্কৃতি চর্চা ও শ্রদ্ধা করতে শেখায়, তারা উপনিবেশবাদকে পরোক্ষভাবে গভীর উপায়ে আলোচনা করে। ফলস্বরূপ, বেশিরভাগ পেশাদার মানবতাবাদীরা দীর্ঘকাল সাম্রাজ্যবাদের চর্চা এবং সাহিত্যের সংস্কৃতির মধ্যে সংযোগ রাখতে অক্ষম হয়েছেন। এখানে এই প্রবন্ধে সৈয়দ বিশেষত বর্ণনামূলক কল্পকাহিনী, উপন্যাস সম্পর্কে কথা বলেছেন যা সংস্কৃতির ছদ্মবেশে সাম্রাজ্যবাদের প্রসারের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

কার্লাইল বা রুসকিন, এমনকি ডিকেনস এবং ঠাকরের কথা ভেবে সমালোচকরাও প্রায়শই এড়িয়ে গেছেন, আমি বিশ্বাস করি, উপনিবেশিক প্রসার সম্পর্কে এই লেখকরা উজ্জীবিত, “

তিনি চার্লস ডিকেন্স (১৮১২-১৮ “০) রচিত “গ্রেট এক্সপ্যাটিপেশনস” (১৮61১) এর মতো কয়েকটি উপন্যাসের উল্লেখ ও বর্ণনা দিয়ে প্রমাণ দিয়েছেন যা মূলত নিজের সম্পর্কে বিভ্রান্তি বা ভুল ধারণা ধারণার একটি উপন্যাস, তবে গভীরভাবে এটি শাস্তিমূলক কলোনির অনুশীলনকারী দুর্বৃত্ত অস্ট্রেলিয়া. জোসেফ কনরাড (১৮ 1907-১-19২৪) ১৯০৪ সালে দক্ষিণ আমেরিকা প্রজাতন্ত্রের সাম্রাজ্যবাদের বিস্তার ও বিকৃতি সম্পর্কিত প্রকাশিত “নস্ট্রোমো” পাঠকদের দেখতে দেয় যে সাম্রাজ্যবাদ একটি ব্যবস্থা। তাই সাহিত্তিক সংস্কৃতি সাম্রাজ্যবাদের একটি উপকরণ।

Immigrating culture

Immigrating culture is an instrument of post-colonial capitalism. Edward Said relates that imperialism exists even in 20th century but not in shape of 18th and 19th centuries because in fine of the essay he asserts:

“This is a book about past and present, about us and them.”

It has changed its fervidity and character through capitalism and globalization process. The people of third world are immigrating to the capitalists’ countries in search of better fortunes that is also a strong token of subservience and separation.

সংস্কৃতি অভিবাসন

উপনিবেশিক পুঁজিবাদের একটি উপকরণ হিজরত সংস্কৃতি। এডওয়ার্ড সাইদ বর্ণনা করেছেন যে সাম্রাজ্যবাদ বিংশ শতাব্দীতেও বিদ্যমান তবে 18 এবং 19 শতকের আকারে নয় কারণ প্রবন্ধের শেষে তিনি দৃড়ভাবে বলেছেন:

এটি আমাদের এবং তাদের সম্পর্কে অতীত বর্তমান সম্পর্কে একটি বই

এটি পুঁজিবাদ এবং বিশ্বায়ন প্রক্রিয়াটির মাধ্যমে তার বেহায়াপনা ও চরিত্রকে পরিবর্তন করেছে। তৃতীয় বিশ্বের লোকেরা আরও বেশি ভাগ্যের সন্ধানে পুঁজিপতিদের দেশগুলিতে অভিবাসিত হচ্ছে যা অধীনতা এবং বিচ্ছিন্নতার মজবুত চিহ্ন।

Conclusion: To sum up, Edward Said is such a genius who reveals the secret of improved culture as the instrument of imperialism and capitalism in a convincing and fabulous way so that the countries of this universe can enjoy freedom and sovereignty being aware of culture.

7. Question: How does Eliot distinguish between the intellectual poet and reflective poets?

Introduction: As Eliot fixes the goal that he will abolish all the overdone misconception about the metaphysical school of poetry, he introduces a new term in his essay that is known as ‘reflective and intellectual poet’. He distinguishes between the intellectual poet and the reflective poet in his famous critical essay “The Metaphysical Poets” to declare the superiority of the metaphysical poets.

ভূমিকা: এলিয়ট যেহেতু এই লক্ষ্য স্থির করেছেন যে তিনি কবিতার অধিবিদ্যামূলক বিদ্যালয় সম্পর্কে সমস্ত অতিভ্রষ্ট ধারণা বাতিল করবেন, তাই তিনি তাঁর রচনায় একটি নতুন শব্দ প্রবর্তন করেছেন যা ‘প্রতিবিম্বিত ও বৌদ্ধিক কবি’ নামে পরিচিত। তিনি আধ্যাত্মিক কবিদের শ্রেষ্ঠত্ব ঘোষণা করার জন্য তাঁর বিখ্যাত সমালোচক প্রবন্ধ “দ্য মেটিফিজিকাল পোয়েট” -এ বুদ্ধিজীবী কবি এবং প্রতিবিম্বিত কবির মধ্যে পার্থক্য করেছেন।

Definition

Eliot clearly defines that the poets who are passionate thinker are called intellectual poets. To put it differently, the metaphysical poets are intellectual poets. But the poets who are deeply thoughtful but separated from passion and emotion are called reflective poets.

“Tennyson and Browning are poets, and they think; but they do not feel their thought as immediately as the odour of a rose. A thought to Donne was an experience; it modified his sensibility.”

From this definition, it is transparent that the metaphysical poets are endowed with at least double qualifications. Thus, Eliot means to say that if Tennyson and Browning are accepted very positive, the metaphysical poets must deserve prestige.

সংজ্ঞা

এলিয়ট স্পষ্টভাবে সংজ্ঞায়িত করেছেন যে অনুরাগী চিন্তাবিদ কবিদেরকে বুদ্ধিজীবী কবি বলা হয়। একে অন্যভাবে বলতে গেলে রূপক কবিরা হলেন বুদ্ধিজীবী কবি। তবে গভীরভাবে চিন্তাশীল কিন্তু আবেগ থেকে বিচ্ছিন্ন কবিদের প্রতিবিম্বিত কবি বলা হয়।

টেনিসন এবং ব্রাউনিং কবি, এবং তারা মনে করেন; তবে তারা গোলাপের গন্ধ হিসাবে তত্ক্ষণাত তাদের চিন্তাভাবনা অনুভব করে না। ডোনের কাছে একটি চিন্তার অভিজ্ঞতা ছিল; এটি তার সংবেদনশীলতাকে পরিবর্তন করেছে।

এই সংজ্ঞা থেকে, এটি স্বচ্ছ যে রূপক কবিরা কমপক্ষে দ্বিগুণ যোগ্যতার অধিকারী। সুতরাং, এলিয়ট বলতে চান যে টেনিসন এবং ব্রাউনিংকে যদি খুব ইতিবাচকভাবে গ্রহণ করা হয় তবে রূপক কবিদের অবশ্যই মর্যাদার অধিকারী

Versification technique

Eliot deeply suggests that the metaphysical poets have achieved their versification technique from their predecessors of sixteenth century dramatists who were the master of ‘mechanism of sensibility’. On the other hand, the reflective poets especially Tennyson and Browning as a writer of dramatic monologue are the followers of the intellectual poets. Because they possess same tradition of abrupt beginning and silent listeners but really devoid of sensibility.

কবিতা রচনার কৌশল

এলিয়ট গভীরভাবে ইঙ্গিত দেয় যে রূপক কবিরা তাদের কবিতা রচনার কৌশল তাদের ষোড়শ শতাব্দীর পূর্বসূরী নাট্যকারদের কাছ থেকে অর্জন করেছেন যারা ‘সংবেদনশীলতার কর্তা ছিলেন। অন্যদিকে প্রতিবিম্বিত কবিরা বিশেষত টেনিসন এবং ব্রাউনিং ড্রামাটিক মনোলোগ লেখক হিসাবে বুদ্ধিজীবী কবিদের অনুসারী। কারণ তারা আকস্মিক শুরু এবং নীরব শ্রোতাদের একই ঐতিহ্যের অধিকারী তবে সংবেদনশীলতা থেকে বঞ্চিত।

Dissociation of sensibility

The term ‘dissociation of sensibility’ has been coined out by Eliot in his essay. Dr. Johnson blames the intellectual poets in the following manner:

‘the most heterogeneous ideas are yoked by violence together’

Such blame recommends that the metaphysical poets were the first to separate thought and passion. But Eliot argues that the dissociation of sensibility was started by the two most powerful poets of the seventeenth century namely John Dryden and John Milton, who are also in the class of reflective poets. Since the period of Milton and Dryden, the English poets could not come out of practicing dissociation of sensibility till the versatile creative time of modern period. Thus, it is crystal clear that the reflective poets are engulfed with dissociation of sensibility, but the intellectual poets are the lord of unification of sensibility.

সংবেদনশীলতা বিযুক্তি

এলিয়ট তাঁর প্রবন্ধে ‘সংবেদনশীলতার বিচ্ছিন্নতা’ শব্দটি আবিষ্কার করেছেন। ডাঃ জনসন নিম্নলিখিত পদ্ধতিতে বুদ্ধিজীবী কবিদের দোষ দিয়েছেন:

সর্বাধিক ভিন্নধর্মী ধারণা একসাথে সহিংসতা দ্বারা যোগ করা হয়

এই ধরনের দোষ সুপারিশ করে যে রূপক কবিরা সর্ব প্রথম চিন্তা ও আবেগকে পৃথক করেছিলেন। কিন্তু এলিয়ট যুক্তি দেখান যে সংবেদনশীলতা বিচ্ছিন্নকরণ সপ্তদশ শতাব্দীর  সবচেয়ে শক্তিশালী দুইজন কবি  জন ড্রাইডেন এবং জন মিল্টন দ্বারা শুরু হয়েছিল, যারা প্রতিবিম্বিত কবিদের শ্রেণিতেও ছিলেন। মিল্টন এবং ড্রাইডেনের সময়কাল থেকেই, ইংরেজ কবিগণ আধুনিক সময়ের বহুমুখী সৃজনশীল সময় অবধি সংবেদনশীলতা বিচ্ছিন্ন করার অনুশীলন থেকে বেরিয়ে আসতে পারেন নি। সুতরাং, এটি স্ফটিক স্পষ্ট যে প্রতিবিম্বিত কবিরা সংবেদনশীলতা বিচ্ছিন্নতায় আবদ্ধ, তবে বুদ্ধিজীবী কবিগণ সংবেদনশীলতার একীকরণের কর্তা।

Diction vs feeling

Eliot presents a unique discovery between the intellectual poets and the reflective poets in case of use of language. As reflective poets follow the dissociation of sensibility from the time of Milton and Dryden, their language grows and, in some cases, improves. The best verse of Collins, Gray and so on satisfies some of our fastidious demands better than that of Donne or Marvell or King. But while the language became more refined, the feeling became cruder. For instance, the feeling and the sensibility expressed in Gray’s Elegy is cruder than that in Marvell’s “To His Coy Mistress”. In case of language and feeling, the subjects of Tennyson and Browning were the most distinguished and famous among the Victorian poets. Thus, Eliot argues that reflective poets are lesser than metaphysical poets in case of passion.

রচনাশৈলী বনাম অনুভূতি

এলিয়ট ভাষা ব্যবহারের ক্ষেত্রে বুদ্ধিজীবী কবি এবং প্রতিবিম্বিত কবিদের মধ্যে একটি অনন্য আবিষ্কার উপস্থাপন করেছেন। যেহেতু প্রতিবিম্বিত কবিরা মিল্টন এবং ড্রাইডেনের সময় থেকে সংবেদনশীলতার বিচ্ছেদের অনুসরণ করেন, সেহেতু তাদের ভাষা বৃদ্ধি পায় এবং কিছু ক্ষেত্রে উন্নতি হয়। কলিন্স, গ্রে এবং অন্যান্যদের সেরা শ্লোক সন্তুষ্ট করে আমাদের কিছু খুঁতখুঁতে / কঠোর চাহিদা ডোনে বা মারভেল বা কিংয়ের চেয়ে ভাল ভাবে। ভাষাটি আরও পরিশ্রুত হওয়ার সাথে সাথে অনুভূতিটি ক্রোধে পরিণত হয়েছিল। উদাহরণস্বরূপ, গ্রে এর এলজিতে প্রকাশিত অনুভূতি এবং সংবেদনশীলতা মারভেলের “টু হিজ কই মিসট্রেস” -এর চেয়ে রুক্ষ। ভাষা এবং অনুভূতির ক্ষেত্রে, টেনিসন এবং ব্রাউনিংয়ের বিষয়গুলি ভিক্টোরিয়ান কবিদের মধ্যে সবচেয়ে বিশিষ্ট এবং বিখ্যাত ছিল। সুতরাং, এলিয়ট যুক্তি দেখান যে আবেগের ক্ষেত্রে প্রতিবিম্বিত কবিরা অধিবিদ্যার কবিদের চেয়ে কম।

Conclusion: In a nutshell, it can be said that though Eliot is not starkly accurate differentiating between the intellectual poets and the reflective poets, his intention is perfect because he has just wanted to show that the metaphysical poets are the inevitable part in the galaxy of English literature.

8. Question: What do you know about the background of writing “Culture and Imperialism” and its contents? Discuss with reference to the “Introduction”.

Or, discuss the circumstances that encourage to write “Culture and Imperialism”.

Or, what are the reasons for which Said has written “Culture and Imperialism”?

Introduction: “Culture and Imperialism” published in 1993 is a collection of essays by Edward Said (1935-2003). This was followed by his highly influential “Orientalism”, published in 1978. In his series of essays, the author attempts to identify the connection between imperialism and culture in the 18th, 19th and 20th centuries. In the “Introduction”, Mr. Said himself describes the reasons and resources for which he is going to write his internationally acclaimed book.

ভূমিকা: ১৯৯৩ সালে প্রকাশিত “সংস্কৃতি ও সাম্রাজ্যবাদ” অ্যাডওয়ার্ড সাইদ (১৯৩৫-২০০৩) রচনা সংকলন। এটি তার অত্যন্ত প্রভাবশালী “প্রাচ্যবাদ” দ্বারা অনুসরণ করা হয়েছিল, 1978 সালে প্রকাশিত। তাঁর রচনামূলক সিরিজে লেখক 18 তম, 19 এবং 20 শতকে সাম্রাজ্যবাদ এবং সংস্কৃতির মধ্যে সংযোগ সনাক্ত করার চেষ্টা করেছেন। “ভূমিকা” তে, মিঃ সাইদ নিজেই যে কারণগুলি এবং সংস্থানগুলির জন্য তাঁর আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংসিত বইটি লিখতে চলেছেন তা বর্ণনা করেছেন।

Limitation of “Orientalism”

In his internationally acclaimed book Orientalism, Edward Said suggests that a general essay on the relationship between culture and empire has not yet been written. He composes “Culture and Imperialism” as an attempt to expand the “logics” of orientalism in order to describe a more general pattern of relationship between the western imperialists and their overseas territories. In “Orientalism”, he only focuses on the societies and people of Asia, North Africa, and the Middle East. So, about five years after the publication of “Orientalism,” he began to gather his arguments for a decisive judgement of the relationship between culture and imperialism. Then during years 1985 and 1986, he began to deliver a series of lectures on the topic at several universities in the USA and Canada. These lectures formed the basic content of the book “Culture and Imperialism” which appeared in the year 1993.

প্রাচ্যবাদএর সীমাবদ্ধতা

তাঁর আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংসিত বই ওরিয়েন্টালিজমে, এডওয়ার্ড সাইদ ইঙ্গিত দেয় যে সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যের মধ্যে সম্পর্কের উপর একটি সাধারণ রচনা এখনও রচনা করা হয়নি। তিনি “সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদ” রচনা করেছেন প্রাচ্যবাদের “লজিকস” প্রসারিত করার প্রয়াস হিসাবে সম্পর্কের আরও সাধারণ প্যাটার্ন বর্ণনা করার জন্য পশ্চিমা সাম্রাজ্যবাদীদের এবং তাদের বিদেশের অঞ্চলগুলির মধ্যে। “প্রাচ্যতত্ত্ব” -তে, তিনি কেবল এশিয়া, উত্তর আফ্রিকা এবং মধ্য প্রাচ্যের সমাজ এবং লোকদের দিকে মনোনিবেশ করেন। সুতরাং, “প্রাচ্যবাদ,” প্রকাশের প্রায় পাঁচ বছর পরে, তিনি তার যুক্তি সংগ্রহ করতে শুরু করলেন সম্পর্কের সিদ্ধান্তমূলক সিদ্ধান্তের জন্য সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদের মধ্যে। তারপরে 1985 এবং 1986 বছরের মধ্যে, তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডার বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে এই বিষয়ে একাধিক বক্তৃতা প্রদান শুরু করেছিলেন। এই বক্তৃতাগুলি “সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদ” বইয়ের মূল বিষয়বস্তু গঠন করেছিল যা ১৯৯৩ সালে প্রকাশিত হয়েছিল।

To expose the hidden meaning of culture

In order to point out the furtive two-fold facets of culture, Said writes “Culture and Imperialism”. According to him, culture means two things from the surface and inner perspectives. It primarily means practices of arts and aesthetic forms. Second, Culture is the idea of a refined and improved materials and best reservoir. By referring Matthew Arnold in his “Introduction”, Said asserts that if culture is not equal for the all citizens of a country, it will suffer. This fundamental concept of culture provides information that the natives of India, Africa, America and so on could not preserve their arts and aesthetic forms that is why imperialists became able to be aggressive on the above-mentioned nations by the name of spreading so-called civilization.

সংস্কৃতির গোপন অর্থ প্রকাশ করতে

সংস্কৃতির দুগুণযুক্ত দিকগুলি চিহ্নিত করার জন্য, সাইদ লিখেছেন “সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদ”। তাঁর মতে সংস্কৃতি মানে দুটি জিনিস পৃষ্ঠ এবং অভ্যন্তরীণ দৃষ্টিকোণ থেকে। এর অর্থ প্রধানত চারুকলা এবং নান্দনিক রূপগুলির অনুশীলন। দ্বিতীয়ত, সংস্কৃতি হল একটি পরিশোধিত এবং উন্নত উপকরণ এবং সেরা জলাধারের ধারণা। ম্যাথিউ আর্নল্ডকে তার “ভূমিকা” তে উল্লেখ করে, সেড বলেছে যে সংস্কৃতি যদি কোনও দেশের সমস্ত নাগরিকের জন্য সমান না হয়, তবে তা ক্ষতিগ্রস্থ হবে। সংস্কৃতির এই মৌলিক ধারণাটি সেই তথ্য সরবরাহ করে ভারত, আফ্রিকা, আমেরিকা ইত্যাদির নেটিভরা তাদের শিল্প ও নান্দনিক রূপ সংরক্ষণ করতে পারেনি এই কারণেই সাম্রাজ্যবাদীরা উপরোক্ত বর্ণিত দেশগুলির উপর আক্রমণাত্মক হতে সক্ষম হয়েছিল তথাকথিত সভ্যতা ছড়িয়ে দেওয়ার নামে।

Secret strength of the imperialists

It is surprising and praiseworthy that Edward Said is the first mammoth critic who discovers the power of literature to sustain imperialism. Since literature is the mirror of society, he critically focuses on the French and English literature of 19th and 20th which displayed the imperialistic experiences throughout the world but specially in Africa, India, Australia, Caribbean, Ireland, Latin America.

As result of his critical evaluation, he has been capable enough to illustrate English novels that are powerful weapon of imperialism. English Fiction helped their oppressive rulers by providing the following information:

  1. Exploration of strange regions
  2. Psychological study
  3. Britain’s imperial intercourse through trade and travel
  4. La mission civilisatrice or civilizing mission
  5. Anti-imperialistic view

Now it seems to be awkward and questionable how English novelists are the imperialists in disguise, despite illustrating anti-imperialistic view. It is very interesting to note that Mr. Said has blazoned his mastery to figure out this. In conformity with Said, Conrad’s vilifying against imperialism has better concerned the imperialists as to the following facts.

  1. Comprehension of foreign cultures.
  2. Political willingness as alternative to imperialism etc.

That is why Said tells the world:

“To the extent that we see Conrad both criticizing and reproducing the imperial ideology of his time”

Therefore, it is obvious that literature forced Mr. Said to compose his last major work “Culture and Imperialism”.

সাম্রাজ্যবাদীদের গোপন শক্তি

এটা অবাক এবং প্রশংসনীয় যে এডওয়ার্ড সাইদ হলেন প্রথম বিশাল সমালোচক যিনি সাম্রাজ্যবাদকে টিকিয়ে রাখতে সাহিত্যের শক্তি আবিষ্কার করেছিলেন। সাহিত্য যেহেতু সমাজের আয়না, তাই তিনি সমালোচকভাবে 19 ও 20 তম ফরাসি এবং ইংরেজি সাহিত্যের দিকে মনোনিবেশ করেন যা বিশ্বজুড়ে সাম্রাজ্যবাদী অভিজ্ঞতা প্রদর্শন করেছিল তবে বিশেষত আফ্রিকা, ভারত, অস্ট্রেলিয়া, ক্যারিবিয়ান, আয়ারল্যান্ড, লাতিন আমেরিকা।

তার সমালোচনামূলক মূল্যায়নের ফলাফল হিসাবে, তিনি ইংরেজি উপন্যাস বর্ণনা করার জন্য যথেষ্ট সক্ষম হয়েছেন যেগুলো সাম্রাজ্যবাদের শক্তিশালী অস্ত্র। ইংলিশ ফিকশন তাদের অত্যাচারী শাসকদের নিম্নলিখিত তথ্য সরবরাহ করে সহায়তা করেছিল:

  1. অদ্ভুত অঞ্চলগুলির অন্বেষণ
  2. মানসিক গবেষণা
  3. বাণিজ্য এবং ভ্রমণের মাধ্যমে ব্রিটেনের সাম্রাজ্য সহবাস
  4. লা মিশন সভ্যতা বা সভ্যকরণ মিশন
  5. সাম্রাজ্যবাদবিরোধী দৃষ্টিভঙ্গি

এখন এটি বিশ্রী এবং প্রশ্নবিদ্ধ বলে মনে হচ্ছে ইংরেজি ঔপন্যাসিকরা কীভাবে ছদ্মবেশে সাম্রাজ্যবাদী, সাম্রাজ্যবাদবিরোধী দৃষ্টিভঙ্গি বর্ণনা করেও। এটা লক্ষ করা খুব আকর্ষণীয় জনাব সাইদ তাঁর দক্ষতা প্রদর্শন করেছেন এটি বের করতে। সাইদের মতে, সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে কনরাডের ঘৃণা সাম্রাজ্যবাদীদের নিম্নলিখিত বিষয়গুলির সম্পর্কে আরও ভালভাবে উদ্বিগ্ন হয়েছে।

  1. বিদেশী সংস্কৃতির সংজ্ঞা।
  2. সাম্রাজ্যবাদের বিকল্প হিসাবে রাজনৈতিক সদিচ্ছা ইত্যাদি।

এই কারণেই সাইদ বিশ্বকে বলে:

আমরা কনরাডকে বড় পরিমাণে তার সময়ের সাম্রাজ্যবাদী আদর্শের সমালোচনা পুনরুত্পাদন উভয়ই দেখতে পাই

সুতরাং, এটা স্পষ্ট যে সাহিত্য জনাব সাইদকে তাঁর শেষ বড় কাজ “সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদ” রচনা করতে বাধ্য করেছিল।

Ethical point of view

Being a humanitarian, Mr. Said forced to formulate “Culture and Imperialism”. He focuses on the challenges of imperialism and confidently declares that imperialism must always encounter resistance which creates conflict and destruction. So, he preaches that it is better to refrain than reign. And the people of third world have to be well conceived and united to establish peace and progress.

নৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি

মানবিক হওয়া, জনাব সাঈদ “সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদ” লিখতে বাধ্য হয়েছিলেন। তিনি সাম্রাজ্যবাদের চ্যালেঞ্জগুলিতে মনোনিবেশ করেন এবং আত্মবিশ্বাসের সাথে এটি ঘোষণা করেন সাম্রাজ্যবাদকে সর্বদা প্রতিরোধের মুখোমুখি হতে হবে যা দ্বন্দ্ব ও ধ্বংস সৃষ্টি করে। সুতরাং, তিনি প্রচার করেছেন যে রাজত্বের চেয়ে বিরত থাকা ভাল। এবং তৃতীয় বিশ্বের জনগণকে শান্তি ও অগ্রগতি প্রতিষ্ঠায় সু-কল্পনা ও সংহত হতে হবে।

Conclusion: In termination, it can be asserted though it is difficult to accept Edward Said starkly, it is undoubted that his critical power has brought about a revolution in the field of criticism. And one can get a vast vista of the secret sources of imperialism by reading his “Culture and Imperialism”.

9. Question: Discuss how “The Rise of English” relates to the growth and consolidation of imperialism?

Introduction: The development of English as a field of serious scholarly inquiry was due to several reasons. In his essay “The Rise of English” Terry Eagleton has shown how the growth and consolidation of imperialism were simultaneous with the development of English literature and language in England from the 18th century onwards.

ভূমিকা: ইংরেজির বিকাশের  ক্ষেত্র হিসাবে পন্ডিতের অনুসন্ধানের বিভিন্ন কারণ ছিল।  Terry Eagleton তাঁর প্রবন্ধ “The Rise of English” তে দেখিয়েছেন যে কীভাবে সাম্রাজ্যবাদের বিকাশ ও একীকরণে ১৮ তম শতাব্দীর পর থেকে ইংল্যান্ডে ইংরেজি সাহিত্য এবং ভাষার বিকাশের সাথে একত্রে ছিল।

English and militant nationalism

Eagleton suggests that the English needed to ‘masculinize’ because British capital power was losing ground to the Germans and the Americans. So, there was a need for the national mission and identity. The English poets were then most perfect for increasing the national tradition and identity which would become rallying points and marketing techniques for the troops. For this, during the Victorian age, Civil Service exams began to test on English literature to exhilarate the imperial mind and to leverage English culture as a jingoistic tool. Thus, the study of English literature ascended through a combination of nationalism and spiritual searching amid the English ruling class.

ইংরেজি ও জঙ্গি জাতীয়তাবাদ

Eagleton পরামর্শ দেয় যে ব্রিটিশদের মূলধন শক্তি জার্মান এবং আমেরিকানদের কাছে ভিত্তি হারাতে থাকায় ইংরেজদের ‘পুংলিঙ্গ’ করা দরকার ছিল। সুতরাং, জাতীয় মিশন এবং পরিচয়ের প্রয়োজন ছিল। ইংরেজ কবিরা তখন জাতীয় ঐতিহ্য এবং পরিচয় বাড়ানোর জন্য সবচেয়ে নিখুঁত ছিলেন যা সৈন্যদের জন্য মূল বিষয় এবং বিপণনের কৌশল হয়ে উঠত।এর জন্য, ভিক্টোরিয়ার যুগে সিভিল সার্ভিস পরীক্ষাগুলি ইংরেজী সাহিত্যের উপর সাম্রাজ্যবাদী মনকে প্রশংসিত করতে এবং ইংরেজি সংস্কৃতিকে একটি গোড়া দেশপ্রেমের  হাতিয়ার হিসাবে লাভ করার জন্য পরীক্ষা শুরু করে। সুতরাং, ইংরেজি শাসক শ্রেণীর মধ্যে জাতীয়তাবাদ এবং আধ্যাত্মিক অনুসন্ধানের সংমিশ্রণের মাধ্যমে ইংরেজী সাহিত্যের অধ্যয়ন আরোহণ হয়।

Ideological crisis and capitalism

Historically the nineteenth century was a period of revolution. In America and France, the old colonialists of feudalist regimes were overthrown by the revolution of the middle classes, while England was getting its economic development because of the enormous profits from the eighteenth-century slave trade and its imperial control of the overseas. Thus, England became the worlds’ first industrial capitalist nation. But the visionary hopes and the revolutionary thoughts of Romantic poetry were in contradiction with the harsh realities of the new bourgeois regimes that is why the romantic poets represent the common people in their writings. So, we can say that if there was no feudalism, capitalism, or imperialism, there would be no growth of English literature.

আদর্শগত সংকট এবং পুঁজিবাদ

ঐতিহাসিকভাবে উনিশ শতক ছিল বিপ্লবের একটি সময়কাল। আমেরিকা ও ফ্রান্সে সামন্ততান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থার পুরাতন উপনিবেশবাদীরা মধ্যবিত্ত শ্রেণীর বিপ্লব দ্বারা উৎখাত হয়েছিল, এবং অষ্টাদশ শতাব্দীর দাস ব্যবসায় এবং বিদেশের সাম্রাজ্যিক নিয়ন্ত্রণের বিপুল লাভের কারণে ইংল্যান্ড তার অর্থনৈতিক বিকাশ লাভ করেছিল। সুতরাং, ইংল্যান্ড বিশ্বের প্রথম শিল্প পুঁজিবাদী দেশ হয়ে ওঠে। কিন্তু স্বপ্নদর্শী আশা এবং রোমান্টিক কবিতার বিপ্লবী চিন্তাভাবনাগুলি নতুন বুর্জোয়া শাসনের কঠোর বাস্তবতার সাথে সাংঘর্ষিক ছিল, এ কারণেই রোমান্টিক কবিরা তাদের লেখায় সাধারণ মানুষের প্রতিনিধিত্ব করেন। সুতরাং, আমরা বলতে পারি যে সামন্তবাদ, পুঁজিবাদ বা সাম্রাজ্যবাদ না থাকলে ইংরেজি সাহিত্যের কোনও বৃদ্ধি হত না।

Odds with the capitalists

Searching for ‘felt experience, personal response or imaginative uniqueness’ in literature is a modern preoccupation, inherited from the Romantics and the 19th century. Around the turn of the 18th century, literature becomes limited to creative, imaginative works, and poetry represents human creativity, at odds with capitalist, industrial utilitarianism. Similarly, ‘prosaic’ acquires negative connotations during the Romantic period because of partial presentation of the upper class.

“a distinction between fictional and factual writing was long established, and ‘poetry’ traditionally associated with the former; but seeing ‘imaginative’ as a positive attribution – think of words like ‘visionary’ or ‘inventive’ – that was something new to this time.”

Thus, English literature gets its new innovative way by the expertise hands of the romantic poets.

পুঁজিবাদীদের সাথে মতভেদ

সাহিত্যে ‘অনুভূত অভিজ্ঞতা, ব্যক্তিগত প্রতিক্রিয়া বা কাল্পনিক স্বাতন্ত্র্য’ অনুসন্ধান করা রোমান্টিকস এবং ১৯ শতকের উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত একটি আধুনিক ব্যস্ততা। আঠার শতাব্দীর শুরুতে সাহিত্য সৃজনশীল, কল্পিত কাজগুলিতে সীমাবদ্ধ হয়ে যায় এবং কবিতা মানব সৃজনশীলতার প্রতিনিধিত্ব করে, পুঁজিবাদী, শিল্প উপযোগবাদীতার সাথে মতবিরোধে। একইভাবে, উচ্চতর শ্রেণীর আংশিক উপস্থাপনার কারণে রোমান্টিক সময়কালে ‘গদ্যময়’ নেতিবাচক ধারণা অর্জন করে।

“কাল্পনিক এবং বাস্তবিক লেখার মধ্যে একটি পার্থক্য দীর্ঘকাল থেকেই প্রতিষ্ঠিত ছিল, এবং ‘কবিতা’ ঐ তিহ্যগতভাবে প্রাক্তনের সাথে জড়িত; তবে ‘কল্পনাশক্তি’ কে একটি ইতিবাচক গুণ হিসাবে দেখা – ‘স্বপ্নদর্শী’ বা ‘উদ্ভাবক’ এর মতো শব্দগুলির কথা ভাবা – এটি এ জন্য নতুন কিছু ছিল সময়”

রোমান্টিক কবিদের বিশেষজ্ঞের হাতে ইংরেজী সাহিত্য তার নতুন উদ্ভাবনী উপায় পেয়েছে।

Literature as an alternative ideology

There was some advocating for the study of English as a replacement for religion and a panacea against national sickness ‘to save the souls and heal the State.’ Religion is increasingly unable to provide cohesion and identity to this class-society; English is supplied as an alternative.

“The diminution of religious ideological control troubled the élite, since religion is effective for control.”

Even in such circumstances, the creative imagination of the Romantics was nothing but lazy escapism. At that time literary work was seen as transparently spontaneous and creative than no longer a technical method because of its significant social, political, and philosophical implications. Literature turned into a completely alternative ideology, and imagination became a political force by the powerful hands of Blake and Shelley. The poets’ task was to transform society in the name of ideological values.

বিকল্পধারা হিসাবে সাহিত্য

ধর্মের প্রতিস্থাপন এবং জাতীয় অসুস্থতার বিরুদ্ধে একটি মহাশক্তি হিসাবে ‘আত্মাকে বাঁচাতে ও রাষ্ট্রকে সুস্থ করার’ জন্য ইংরেজী অধ্যয়নের পক্ষে কিছু পরামর্শ। ধর্ম ক্রমশ এই শ্রেণি-সমাজকে সংহতি এবং পরিচয় দিতে অক্ষম; বিকল্প হিসাবে ইংরেজি সরবরাহ করা হয়।

“ধর্মীয় আদর্শিক নিয়ন্ত্রণের হ্রাস ইলিটকে সমস্যায় ফেলেছিল, যেহেতু ধর্ম নিয়ন্ত্রণের জন্য কার্যকর।”

এমনকি এমন পরিস্থিতিতেও রোমান্টিকসের সৃজনশীল কল্পনা অলস পলায়নবাদ ছাড়া কিছুই ছিল না। সেই সময়ে সাহিত্যকর্মটি উল্লেখযোগ্য সামাজিক, রাজনৈতিক এবং দার্শনিক জড়িত হওয়ার কারণে কোনও প্রযুক্তিগত পদ্ধতির চেয়ে স্বচ্ছ স্বতঃস্ফূর্ত এবং সৃজনশীল হিসাবে দেখা হত।সাহিত্য পুরোপুরি বিকল্প মতাদর্শে রূপান্তরিত হয়েছিল এবং কল্পনাটি ব্লেক এবং শেলির শক্তিশালী হাত দ্বারা একটি রাজনৈতিক শক্তি হয়ে ওঠে। কবিদের কাজ ছিল আদর্শিক মূল্যবোধের নামে সমাজকে রূপান্তর করা।

English as a university policy

In Eagleton’s view literature gradually assumed the shape of an ideology to replace religion, which had no longer a stronghold on the masses owing to a university discipline. Eagleton found the beginning of this development as parallel to the gradual admission of women to the institution of higher education. Since English literature was by then inseparable from its softening, moralizing, effects, it assumed an effeminate look and was thought very suitable for the growing number of women in the universities to study. Thus, English’s effects are understood as feminine and it is no surprise that its rise coincides with the rise of female admission to higher education institutions. Besides, the British includes English in the syllabus of their overseas territories to establish the idea that they are the finest moral nations.

বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতি হিসাবে ইংরেজি

Eagleton এর দৃশ্যে সাহিত্য ধীরে ধীরে ধর্ম প্রতিস্থাপনের জন্য একটি আদর্শের আকার ধারণ করে, যা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার কারণে জনসাধারণের কাছে আর শক্ত ঘাঁটি ছিল না। Eagletonউচ্চতর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মহিলাদের ধীরে ধীরে প্রবেশের সমান্তরাল হিসাবে এই বিকাশের সূচনা খুঁজে পেয়েছিল। যেহেতু ইংরেজী সাহিত্য ততক্ষণে এর নমনীয়তা, নৈতিকতা, প্রভাবগুলি থেকে অবিচ্ছেদ্য ছিল, তাই এটি একটি রূপক রূপ ধারণ করেছিল এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে নারীদের বর্ধমান সংখ্যার জন্য পড়াশোনা করার পক্ষে এটি খুব উপযুক্ত বলে মনে করা হয়েছিল। সুতরাং, ইংরেজির প্রভাবগুলি মেয়েলি হিসাবে বোঝা যায় এবং অবাক হওয়ার কিছু নেই যে এর উত্থান উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মহিলা ভর্তির উত্থানের সাথে মিলে যায়। এছাড়াও, ব্রিটিশরা তাদের বিদেশের অঞ্চলগুলির সিলেবাসে ইংরেজিকে অন্তর্ভুক্ত করে এই ধারণাটি প্রতিষ্ঠিত করে যে তারা সেরা নৈতিক দেশ।

Conclusion: “The Rise of the English” is an outstanding essay that examines how the concept of literature developed, how its studies have begun academically and how literary criticism in English has evolved. He discloses the capitalist motif behind using English as an academic discipline in British colonies.

উপসংহার:”The Rise of the English” একটি অসামান্য প্রবন্ধ যা পরীক্ষা করে যে সাহিত্যের ধারণাটি কীভাবে বিকশিত হয়েছিল, এর পড়াশোনা কীভাবে একাডেমিকভাবে শুরু হয়েছে এবং ইংরেজিতে সাহিত্য সমালোচনা কীভাবে বিকশিত হয়েছে। তিনি ব্রিটিশ উপনিবেশগুলিতে ইংরেজিকে একাডেমিক শৃঙ্খলা হিসাবে ব্যবহার করার পিছনে পুঁজিবাদী উদ্দেশ্যকে প্রকাশ করেছিলেন।

10. Question: Why does T.S. Eliot praise Donne’s ability to unify the intellectual thoughts and sensation of feeling?

Introduction: T.S. Eliot (1888-1965) is the first critic who in his essay “The Metaphysical Poets” has praised the ability of John Donne. Sensuous apprehension of thought which is called the unification of sensibility. To put it differently, unified sensibility means the combination of emotion and thought. Donne’s power of fusing intellectual thoughts and sensation of feeling is the key issue of Eliot’s essay.

ভূমিকা: টি.এস. এলিয়ট (1888-1965) হলেন প্রথম সমালোচক যিনি তাঁর রচনা “দ্য মেটিফিজিকাল পোয়েট” এ জন ডোন-এর দক্ষতার প্রশংসা করেছেন। চিন্তার সংবেদনশীল ধারণা যাকে বলা হয় সংবেদনশীলতা একীকরণ। এটিকে অন্যভাবে বলতে গেলে সংহত সংবেদনশীলতা মানে আবেগ এবং চিন্তার সংমিশ্রণ। ডানের বুদ্ধিজীবী চিন্তাভাবনা এবং অনুভূতির সংবেদনকে মিশ্রিত করার শক্তি ইলিয়টের রচনার মূল বিষয়।

The Variety of mood and experience

Eliot argues that Donne’s poetry is chiefly remarkable for the range and variety of mood and attitude. By dint of the variety of mood, Donne has been able to blend thought and emotion in a bizarre way that has been designated as ‘a mechanism of sensibility’ which can devour any kind of experience.  Eliot investigates the love poetry of John Donne to focus on the mechanism of sensibility and expresses that Donne’s experience and mood are highly involved.

মেজাজ এবং অভিজ্ঞতার বৈচিত্র্য

এলিয়ট যুক্তি দেখান যে ডোনের কবিতা প্রধানত উল্লেখযোগ্য মেজাজ এবং মনোভাবের পরিসীমা এবং বিভিন্নতার জন্য। Donne চিন্তা এবং আবেগ মিশ্রিত করতে সক্ষম হয়েছে উদ্ভট উপায়ে যা মনোনীত করা হয়েছে ‘সংবেদনশীলতার ব্যবস্থা’ হিসাবে যা কোনও ধরণের অভিজ্ঞতা গ্রাস করতে পারে। এলিয়ট জন ডোনের প্রেমের কবিতা তদন্ত করেন সংবেদনশীলতা প্রক্রিয়ার উপর ফোকাস করতে এবং প্রকাশ করার জন্য যে ডোনের অভিজ্ঞতা এবং মেজাজ অত্যন্ত জড়িত।

Intellectualism and logical quality

According Eliot, the metaphysical poets are called intellectual poets, but their intellectuality is not devoid of passionate thinking. But rather they are logically associated. The critic refers one of the love poems of Donne entitled “A valediction: Forbidding Mourning” in which Donne moves from thought to thought with a measured and weighty music. Here there is a series of reasoned comparisons.

“If they be two, they are two so

As stiff twin compasses are two;

Thy soul, the fixed foot, makes no show

To move, but doth, if the other do.”

Here it is noticed that the comparison of the two lovers in a pair of compasses creates a rapid attachment of thought with emotion. It is in Eliot’s own language:

“the comparison of two lovers to a pair of compasses. But elsewhere we find, instead of the mere explication of the content of a comparison, a development by rapid association of thought”

বৌদ্ধিকতা এবং যৌক্তিক গুণ

এলিয়টের মতে, রূপক কবিদের বুদ্ধিজীবী কবি বলা হয়, তবে তাদের বৌদ্ধিকতা সংবেদনশীল চিন্তাভাবনা থেকে বঞ্চিত নয়। বরং তারা যুক্তিযুক্তভাবে যুক্ত হয়। সমালোচক “একটি শপথ: শোককে হারাম” শিরোনামে ডানের একটি প্রেমের কবিতা উল্লেখ করেছেন যার মধ্যে ডোন একটি পরিমাপযোগ্য এবং ওজনযুক্ত সংগীত নিয়ে চিন্তাভাবনা থেকে চিন্তায় চলে আসে। এখানে যুক্তিযুক্ত তুলনার একটি সিরিজ আছে।

যদি তারা দুজন হয় তবে তারা দুজনই তাই

যেমন শক্ত দ্বিগুণ কমপাস দুটি;

আপনার আত্মা, স্থির পা, কোনও প্রদর্শন করে না

আমার আত্মা যদি তা করে শুধু তোমার কাছে কাছে ফিরে আসার জন্য

এখানে লক্ষ্য করা যায় যে দুটি প্রেমিকের তুলনা একজোড়া কম্পাসে সংবেদনের সাথে চিন্তার একটি দ্রুত সংযুক্তি তৈরি করে। এটি এলিয়টের নিজস্ব ভাষায়:

দুই প্রেমিকের তুলনা একজোড়া কম্পাসের সাথে। তবে অন্য কোথাও আমরা খুঁজে পাই, তুলনার বিষয়বস্তুর নিছক ব্যাখ্যা দেওয়ার পরিবর্তে, চিন্তার দ্রুত সংযুক্তি দ্বারা একটি উন্নয়নঅর্থাৎ সংযুক্তি দ্বারা উন্নয়ন বিশদ বর্ণার চাইতে অনেক ভালো।

Using imagery and conceits

Eliot remarks that Donne’s poems arise from an emotional situation. Then the poet argues to make his attitude acceptable and, in this process, the conceits are used as instruments. His originality is reflected when he uses images and conceits from various sources and fields. Eliot specially mentions “The Relic” that is one of the famous poems of John Donne.

“A bracelet of bright hair about the bone,”

By referring the above line from the poem of Donne, Eliot declares that the most powerful effect is produced by the sudden contrast of associations of ‘bright hair’ and of ‘bone’. This telescoping of images and multiplied associations is the unique quality of Donne that was characteristic feature of some of the dramatists of the Elizabethan and the Jacobean periods.

এলিয়ট মন্তব্য করেছেন যে ডোনের কবিতাগুলি একটি সংবেদনশীল পরিস্থিতি থেকে উদ্ভূত হয়। তারপরে কবি তার মনোভাবকে গ্রহণযোগ্য করার পক্ষে যুক্তি দেখান এবং, এই প্রক্রিয়াতে, অহঙ্কার যন্ত্র হিসাবে ব্যবহৃত হয় যখন তিনি বিভিন্ন উত্স এবং ক্ষেত্রের চিত্র এবং অহঙ্কার ব্যবহার করেন তখন তাঁর মৌলিকতা প্রতিফলিত হয়। এলিয়ট বিশেষভাবে “দ্য রিলিক” উল্লেখ করেছেন এলিয়ট বিশেষভাবে  জন ডোনির অন্যতম বিখ্যাত কবিতা”দ্য রিলিক” কে উল্লেখ করেছেন।

হাড় সম্পর্কে উজ্জ্বল চুলের একটি ব্রেসলেট,”

ডোনের কবিতা থেকে উপরের লাইনটি উল্লেখ করে, এলিয়ট ঘোষণা করেন যে সবচেয়ে শক্তিশালী প্রভাব তৈরি হয় ‘উজ্জ্বল চুল’ এবং ‘হাড়ের’ আকস্মিক বিপরীত সম্পৃক্ততার দ্বারা। চিত্র এবং গুণিত সংঘের এই দূরবীণ ডোনের অনন্য গুণ যা বৈশিষ্ট্যযুক্ত বৈশিষ্ট্য ছিল এলিজাবেথন এবং জ্যাকবীয় সময়কালের কিছু নাট্যকারের মধ্যে।

Conclusion: Thus, in conformity to Eliot, Donne achieves the power of unification of sensibility very successfully and artificially. His poetry gives the impression that the thought and arguments are arising immediately out of passionate feelings. It is the part of the dramatic realism of his style. He could combine disparate experiences and build something new by a variety of subjects.

SR Sarker
SR Sarker
Articles: 380

Leave a Reply

x
error: Sorry !!