Special Suggestion wise Notes: Literary Criticism Exam 2020 National University

PRC Foundation

Website: www.literaturexpres.com

The best way of learning and gaining

suggestion

Literary Criticism

Exam 2020 held in 2021

Part: C

  1. Discuss touchstone method with reference to ‘The Study of Poetry’.
  2. Discuss Eagleton’s views on Romanticism.
  3. Discuss the two-fold implications of culture.
  4. How does Eliot refute Johnson’s remark about Metaphysical Poetry?
  5. Discuss Matthew Arnold as a critic.
  6. Discuss the term Dissociation of Sensibility.
  7. How does Said appreciate English Novel in his critical essay.
  8. Discuss the crisis of modern civilization with reference to The Rise of English.

Part: B

  1. Discuss the term poetry is the criticism of life.
  2. What are the characteristics of good poetry?
  3. Write a short note on Eagleton’s prose style.
  4. Why does Said write his book Culture and Imperialism?
  5. What are the similarities between modern poets and Metaphysical poets?
  6. What do you mean by consolidation of Imperialism?
  7. What do you mean by post colonialism?
  8. How does Eliot praise Donne’s ability to unify the intellectual thoughts and sensation of feeling?
  9. What do You know about Abraham Cowley?
  10. How is culture an instrument of imperialism?
  11. Differentiate between intellectual poet and reflective poet.
  12. Write a short note on Chaucer.
  13. Write a short on Neo-classicism.

Part-A

1. What is meant by “illusion”?

Ans: It means something which does not exist but creates a momentary impression.

2. How is poetry ‘the criticism of life’?

Ans: Poetry deals with the ideas of life that a reader finds when he reads a poem.

3. What does the term ‘poetic truth’ mean?

Ans: It means that the subject matter of poetry should correspond to truth.

4. Who is Homer?

Ans: First greatest epic poet of ancient Greece who wrote Iliad and Odyssey.

5. Who is ‘touchstone’?

Ans: It is a stone that is used to judge the purity of gold.

6. How does Chaucer present human life?

Ans: From the truly human point of view.

7. How is the structure of Herbert’s sentences?

Ans: Far from simple. It is fidelity to thought and feeling.

8. How was Marlowe as an Elizabethan dramatist?

Ans: He was of prodigious intelligence.

9. What does Eliot want to conclude about the ‘metaphysical poets?

Ans: The metaphysical poets are in the direct current of English poetry, and that their faults should be reprimanded by this standard.

10. In what sense is Conrad a precursor of the Western views of the Third World?

Ans: Because he tends to deliver the non-European world either for analysis and judgment or for satisfying the exotic tastes of the Western readers.

11. What is Said’s expectation about the American nation?

Ans: He expects that the United States will remain a coherent nation despite having cultural diversity.

12. What kind of writing is “The Study of Poetry”?

Ans: Critical Writing.

13. Define Charlatanism?

Ans: It is a show of knowledge where there is no true knowledge.

14. What is Chivalry?

Ans: Chivalry refers to the qualities of the knights in middle age like courage, honor, loyalty etc.

15. Who was Cowley?

Ans: the 17th-century metaphysical poets were highly appreciated by Dr. Johnson.

16. Who was T.S Eliot?

Ans: T.S Eliot was one of the greatest poets and critics of the 20th century.

17. How does Eliot brand Grierson’s metaphysical poetry?

Ans: Eliot brands it as a so-called school of poetry or a movement.

18. What does Orientalism mainly deal with?

Ans: Deals with the affairs of the Middle East.

19. What is diction?

Ans: It refers to the vocabulary used by a writer.

20. What is one of the main subjects of Said’s book “Culture and Imperialism”?

Ans: The historical experience in relation to culture and aesthetic forms.

21. What is high seriousness?

Ans: It means the serious treatment or grand style of the subject matter.

22. Who does Arnold regard as the ideal poets?

Ans: Homer, Virgil, Dante, Shakespeare, and Milton.

23. What is the dissociation of sensibility?

Ans: It is a literary term first used by T.S Eliot in his essay “Metaphysical Poets”. It indicates the way in which intellectual thought was separated from the experience of feeling in 17th-century poetry?

24. Who, according to Said, are the children of decolonization?

Ans: A new generation of scholars and critics.

25. Why does T.S Eliot praise the metaphysical poets?

Ans: Because the metaphysical poets have the tendency to be engaged in the task of trying to find the verbal equivalent for states of mind and feeling.

26. What is “Orientalism”?

Ans: It is a famous critical work of Edward Said, showing the attitude of the West towards the East.

27. What is the theme of “The Rise of English”?

Ans: It deals with the development of English literature from the 18th century onwards under British imperial rule.

28. What is the meaning of the word ‘neoclassical’?

Ans: It refers to the style of art and literature of 18th century England, based on the classical models of ancient Greece and Rome.

29. What are organic societies?

Ans: In Eagleton’s view, organic societies are just convenient myths for belaboring the mechanized life of modern industrial capitalism.

30. How does Arnold define poetry?

Ans: Poetry is the criticism of life under the conditions fixed for such a criticism by the laws of poetic truth and poetic beauty.

31. How do the colonizers deserve the right of ruling the colonized?

Ans: Because the colonized people are inferior to the colonizers.

32. What is ‘creative imagination’?

Ans: It is an image of non-alienated labor, the intuitive and spiritual essence of a poetic mind, according to Eagleton.

33. When did Said’s family leave Cairo?

Ans: In 1963

34. What is Matthew Arnold’s concept of culture?

Ans: The concept is that culture is refining and elevating elements, each society’s reservoir of the best.

35. Where is Conrad’s Nostromo set in?

Ans: In an independent Central American republic, rich in a silver mine.

36. What sort of view does Nastromo offer?

Ans: A profoundly unforgiving view.

37. When did America come out as an empire?

Ans: During the 19th and the second half of the 20th century.

38. Who is Matthew Arnold?

Ans: Most powerful English poet-critic.

39. Why does Arnold say, ‘for poetry the idea is everything’?

Ans: He means that poetry is based on ideas that are fundamental to humanity.

40. Which age does Arnold belong to?

Ans: Victorian age.

41. Who says, ‘poetry attaches its emotion to the idea that the idea is the fact’?

Ans: Matthew Arnold.

42. What is Arnold’s definition of a classic?

Ans: Classic means the works of literature or art of the first rank or authority of acknowledged excellence.

43. What is the touchstone method?

Ans: It is a method of comparison between the truly great poets of the past with the new poets in the qualities of their creations.

44. When does a poet achieve ‘high seriousness’ in his poetry?

Ans: When he treats a serious subject in a simple and intense manner.

45. What is Eliot’s brief comment on Grierson’s anthology?

Ans: He comments that it is a ‘piece of criticism and a provocation of criticism’.

46. In what sense is a poet better when he is more intelligent?

Ans: In the sense that when he is more intelligent, he will have more interests.

47. What is the connection between “Culture and Imperialism” and “Orientalism”?

Ans: A general worldwide pattern of imperial culture and a historical experience of resistance against empire form Culture and Imperialism and this makes it different from Orientalism.

48. Why is Donne more successful than Cowley?

Ans: For using brief words and sudden contrasts.

49. How does Edward Said associate ‘culture’ with ‘art’?

Ans: Said associates ‘culture’ with ‘art’ in the sense that it exists in aesthetic forms aiming at giving pleasure and it includes all the practices in the art of description, communication, and representation which are autonomous from economic social, and political fields.

50. When does culture become a source of identity?

Ans: When there is a difference between ‘us’ (the colonizers) and ‘them’ (the colonized), culture becomes a source of identity.

51. What was ‘Scrutiny’?

Ans: It was a quarterly periodical of literary criticism, founded in 1932 by L.C. Knights and F.R. Leavis.

52. What kind of writing is “The Study of Poetry”?

Ans: Critical Writing.

53. What is the role of poetry in human life?

Ans: It sustains and consoles human beings by interpreting life.

54. How does Eliot characterize Donne’s line ‘A bracelet of bright hair about the bone”?

Ans: He characterizes it as the telescoping of images and multiplied associations.

55. How is the language of the metaphysical poets?

Ans: Simple and pure.

56. How does Said admire Dante and Shakespeare?

Ans: They gave mankind ‘the best that was thought and known’, the realistic picture of life.

57. What kind of writing is “The Rise of English?

Ans: It is an essay which is the first chapter after introduction in Terry Eagleton’s famous book Literary Theory: An Introduction.

58. What is An Apology for Poetry?

Ans: It is a long essay of Sir Philip Sidney to defend the superiority of poetry.

59. What according to Eagleton should be the motive of literature?

Ans: Literature should convey timeless truths, thus distracting the masses from their immediate commitments.

60. What is the difference between idea and illusion?

Ans: Idea is a thought in the mind and exists, but illusion is something that does not exist.

61. What element of poetry is common for Donne and Cowley?

Ans: Both employ metaphysical devices.

62. What is A Defense of Poetry?

Ans: An essay of P.B. Shelley.

63. Name some of Arnold’s best poems.

Ans: The Scholar Gipsy, Dover Beach, Thyrsis, Rugby Chapel.

64. What has Arnold said about religion in “The Study of Poetry”?

Ans: The religious faith has crumbled and become subject to question and change.

65. How is the language of Herbert?

Ans: Simple and elegant.

66. How is poetry greater than history?

Ans: Poetry deals with universal and deeper human truths, is undoubtedly greater than history which deals with what happens in reality or dry facts of life.

67. What was worrying for the Victorian ruling class?

Ans: Loss of faith or failure of religion.

68. How does Eliot characterize the work of the 17th century?

Ans: As “more often named than reading, and more often read than profitably studied”.

69. Who, according to Eliot, is more profound and less sectarian than the other metaphysical poets?

Ans: Crashaw.

70. Who is Montaigne?

Ans: Famous French writer is known as the first essayist in world literature.

Part – B

  1. Question: Discuss the term “poetry is the criticism of life”.

Or, evaluate Arnold’s theory or definition of poetry.

Introduction: One of the most prestigious forms of writing is poetry. It is an art that is embedded in the soul and spirit of the people. The ‘first modern critic’ Matthew Arnold (1822-1888) shows high conception on poetry in his literary criticism “The Study of Poetry” which is his attempt to establish the standard of what poetry should be. He asserts that the best poetry is the “criticism of life by the laws of poetic truth and poetic beauty”.

ভূমিকা: লেখার অন্যতম মর্যাদাপূর্ণ রূপ হ’ল কবিতা। এটি এমন একটি শিল্প যা মানুষের আত্মা এবং চেতনায় অন্তর্ভুক্ত। ‘প্রথম আধুনিক সমালোচক’ ম্যাথু আর্নল্ড (1822-1888) কবিতার উপর উচ্চ ধারণা দেখায় তাঁর সাহিত্যের সমালোচনা “কবিতা অধ্যয়ন”এ যা তার প্রয়াস স্ট্যান্ডার্ড প্রতিষ্ঠার জন্য যে কবিতা কেমন হওয়া উচিত । তিনি বলে যে সেরা কাব্যগ্রন্থ হ’ল “কাব্যিক সত্য ও কাব্যিক সৌন্দর্যের বিধি দ্বারা জীবনের সমালোচনা”।

The “Criticism of Life”: The phrase “Criticism of life” means proper interpretation of life. Poetry accurately explains life. Here we discover and analyze how poetry is the criticism of life.

জীবনের সমালোচনা

“জীবনের সমালোচনা” শব্দটির অর্থ জীবনের যথাযথ ব্যাখ্যা। কবিতা জীবনকে সঠিকভাবে ব্যাখ্যা করে। এখানে আমরা আবিষ্কার এবং বিশ্লেষণ করব যে কবিতা কীভাবে জীবনের সমালোচনা।

Integrity between poetry and human life: Arnold defines poetry as a critique of life. To put it differently, poetry must concern itself with life and the problems of life. It should not be remote in a way that does not directly connect to our lives.

কবিতা এবং মানব জীবনের মধ্যে অখণ্ডতা

আর্নল্ড কবিতাকে জীবনের সমালোচনা হিসাবে সংজ্ঞা দিয়েছেন। এটিকে অন্যভাবে বলতে গেলে কবিতা অবশ্যই জীবন এবং জীবনের সমস্যাগুলির সাথে নিজেকে উদ্বেগিত করে। এটি এমনভাবে দূরবর্তী হওয়া উচিত নয় যা আমাদের জীবনের সাথে সরাসরি সংযোগ না করে।

Source of ingredients of life: By the phrase “Criticism of Life” Arnold means to say that the readers can identify their faults and mistakes for the purpose of rectification by going through poems. They must apply the powerful ideas which they pick up through reading poetry.

জীবনের উপাদানগুলির উত্স

“জীবনের সমালোচনা” এই বাক্যটির দ্বারা আর্নল্ড বলতে চেয়েছেন যে পাঠকরা তাদের ত্রুটি এবং ভুলগুলি সনাক্ত করতে পারেন সংশোধন করার উদ্দেশ্যে কবিতা পড়ে । তাদের অবশ্যই শক্তিশালী ধারণাগুলি প্রয়োগ করতে হবে যা তারা কবিতা পড়ার মাধ্যমে গ্রহণ করে।

The ways of leading life: Arnold claims that poetry teaches us how to lead life since it is filled with moral ideas. By emphasizing the moral system, Arnold does not mean the composing of moral or didactic poems. Rather, according to Arnold, it is the question of how to live and whatever comes under it, that is moral. Arnold quotes Milton:

“Nor love thy life nor hate; but what thou liv’st

Live well; how long or short, permit to heaven”

Besides poetry gives shelter and consolation in crisis.

জীবন যাপনের উপায়

আর্নল্ড দাবি করেছেন যে কবিতা আমাদের শেখায় যে কীভাবে জীবনকে পরিচালনা করতে হয় যেহেতু কবিতা নৈতিক ধারণা দিয়ে পূর্ণ। নৈতিক ব্যবস্থাতে জোর দিয়ে, আর্নল্ড শুধু নৈতিক বা অনুমানমূলক কবিতা রচনাকে বোঝাইনি। বরং আর্নল্ডের মতে, কীভাবে বাঁচতে হবে এবং যা কিছু এর নৈতিক আওতায় আসে, এটাই প্রশ্ন। আর্নল্ড মিল্টনের উদ্ধৃতি দিয়েছেন:

তোমাদের জীবনকে খুব ভালোবেসোনা না বা ঘৃণা করো না; তবে পছন্দ মতো ভালোভাবে বাঁচো

ভাল থাক; স্বর্গীয় সুখের মতো কারণ জীবন সংক্ষিপ্ত

Conclusion: To sum up, we can say that poetry is the criticism of life. It is the responsibility of the reviewer to examine both poetry and life at the same time. Arnold performs his duty as a father of modern criticism, although his theory of poetry has extended the hornet’s nest or numerous reactions.

  • Question: Discuss the characteristic features of good poetry.

Introduction: Matthew Arnold (1822-1888) is a prominent English poet and critic of the twentieth century. He has brought a revolution to the world of English literature with his critical essays, prose, and poetry. As poetry is a high-quality literary work that shows deep feelings with beauty and elegance, it should be written following a number of organized requirements.

ভূমিকা: ম্যাথু আর্নল্ড (1822-1888) বিশ শতকের বিশিষ্ট ইংরেজী কবি এবং সমালোচক। তিনি তাঁর সমালোচনামূলক প্রবন্ধ, গদ্য এবং কবিতা দিয়ে ইংরেজি সাহিত্যের জগতে একটি বিপ্লব নিয়ে এসেছেন। কবিতা যেহেতু একটি উচ্চমানের সাহিত্যকর্ম যা সৌন্দর্য এবং কমনীয়তার সাথে গভীর অনুভূতি প্রদর্শন করে, এটি বেশ কয়েকটি সংগঠিত প্রয়োজনীয়তার অনুসরণ করে রচনা করা উচিত।

Features of good poetry: According to Arnold, high-quality poetry contains the following features.

The criticism of life: A poetry cannot be good without having the criticism of life since Matthew Arnold has declared the high position of poetry. The term “criticism of life” means the proper interpretation of life. Poetry accurately explains life. Arnold defines poetry as a critique of life. To put it differently, poetry must concern itself with life and the problems of life.

Poetic truth and poetic beauty: Poetic truth and poetic beauty are the souls of poetry. They are so vital that a poet cannot imagine his poetical success without them.

“But for supreme poetical success more is required than the powerful application of ideas to life;

it must be an application under the conditions fixed, by the laws of poetic beauty and poetic truth.”

By poetic truth, Arnold indicates the representation of life in a true way, and by poetic beauty, he refers to the manner and style of poetry. The subject matter of the best poem is characterized by truth, and seriously to a certain degree.

কাব্যিক সত্য এবং সৌন্দর্য

কাব্যিক সত্য এবং কাব্যিক সৌন্দর্য কবিতার প্রাণ। এগুলি এতটাই প্রাণবন্ত যে একজন কবি এগুলি ছাড়া তাঁর কাব্যিক সাফল্য কল্পনা করতে পারে না।

তবে সর্বোচ্চ কাব্যিক সাফল্যের জন্য জীবনে ধারণার শক্তিশালী প্রয়োগের চেয়ে আরও বেশি প্রয়োজন; কাব্যিক সৌন্দর্য এবং কাব্যিক সত্যের আইন অনুসারে এটি অবশ্যই নির্ধারিত শর্তের অধীনে একটি অ্যাপ্লিকেশন হতে হবে

কাব্যিক সত্য দ্বারা, আর্নল্ড সত্য উপায়ে জীবনের উপস্থাপনা নির্দেশ করে, এবং কাব্যিক সৌন্দর্যে তিনি কবিতার স্টাইলকে বোঝান। সেরা কাব্যগ্রন্থের বিষয় সত্য দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছে, এবং গুরুত্ব সহকারে একটি নির্দিষ্ট ডিগ্রি পর্যন্ত।

High seriousness: The laws of the poetic truth and poetic beauty insist on the condition of “high seriousness” in poetry. This is the quality that gives poetry its power and strength. It comes from absolute sincerity that the poet feels for his subject. A poet’s sincerity consists in his speaking because when the readers can feel the sincerity of the poet about his subject matter, it is sure that he speaks from his very inmost soul. The quality of high seriousness is found in the poetry of Dante, Homer, and Milton. It is the power of sincerity that gives poets the power to interpret life properly.

উচ্চ গম্ভীরতা

কাব্যিক সত্য এবং কাব্যিক সৌন্দর্যের আইনগুলি কবিতায় “উচ্চ গম্ভীরতার” অবস্থার উপর জোর দেয়। এটি সেই গুণ যা কবিতাকে তার শক্তি দেয়। এটি পরম আন্তরিকতা থেকে আসে যা কবি তার বিষয়টির জন্য অনুভব করেন। একজন কবির আন্তরিকতা তার বক্তৃতায় অন্তর্ভুক্ত কারণ পাঠকরা যখন তাঁর বিষয় সম্পর্কে কবির আন্তরিকতা অনুভব করতে পারেন, এটা নিশ্চিত যে সে তার অন্তর থেকে কথা বলে। দান্তে, হোমার এবং মিল্টনের কবিতায় উচ্চ গম্ভীরতার গুণটি পাওয়া যায়। এটি আন্তরিকতার শক্তি যা কবিদের জীবনকে সঠিকভাবে ব্যাখ্যা করার শক্তি দেয়।

Conclusion: To sum up, we can say that truth, high seriousness, a powerful application of ideas to life, absolute sincerity, excellence of diction, and movement in the matter of style are the essential requirements of great poetry. And we also understand that Matthew Arnold had a broad idea about criticism and poetry.

Introduction: The style is not mere decoration. It is rather a way of searching and explaining the truth. Its purpose is not to impress, but to express. Since Terry Eagleton is the most renowned critic of modern English literature, his critical writing has a number of prominent features.

ভূমিকা: শৈলী নিছক সাজসজ্জা নয়। এটি বরং সত্য অনুসন্ধান এবং ব্যাখ্যা করার একটি উপায়। এর উদ্দেশ্য প্রভাবিত করা নয়, বরং প্রকাশ করা। টেরি ইগল্টন যেহেতু আধুনিক ইংরেজি সাহিত্যের সর্বাধিক খ্যাতিমান সমালোচক, তাই তাঁর সমালোচনা লেখার বেশ কয়েকটি বিশিষ্ট বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

Dialectical style: One of the key features of Eagleton’s critical prose is the brilliant inverse logical style. He intelligently considers social and cultural conflicts and raises the opposing arguments so strongly in the conflict that they burst and suddenly some unexpected insight or vision is revealed.

দ্বান্দ্বিক স্টাইল: ইগল্টনের সমালোচনামূলক গদ্যের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হ’ল উজ্জ্বল বিপরীত লজিক্যাল স্টাইল। তিনি বুদ্ধিমানভাবে সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক দ্বন্দ্বকে বিবেচনা করেন এবং বিরোধের পক্ষে যুক্তি এতটা দৃড় তার সাথে উত্থাপন করেন যে তারা আবির্ভাব হয় এবং হঠাৎ করে কিছু অপ্রত্যাশিত অন্তর্দৃষ্টি বা দৃষ্টিভঙ্গি প্রকাশ পায়।

Lightening opacity: Absolute ambiguity is one of the most permanent and attractive qualities in Terry Eagleton’s writings. It has helped him to be one of the most colorful and controversial figures in cultural politics today. So, Eagleton’s style is unclear due to the riddle of the question. But whenever questions are solved, his idea shines. His “The Rise of English” is the paradigm of sheer audacity.

আলোকিত অস্বচ্ছতা

সম্পূর্ণ অস্পষ্টতা টেরি ইগল্টনের লেখাগুলির মধ্যে অন্যতম স্থায়ী এবং আকর্ষণীয় গুণ। এটি তাকে সাংস্কৃতিক রাজনীতির অন্যতম বর্ণময় এবং বিতর্কিত ব্যক্তিত্ব হতে সাহায্য করেছে। সুতরাং, প্রশ্নের ধাঁধার কারণে ইগল্টনের স্টাইল অস্পষ্ট। কিন্তু যখনই প্রশ্নগুলির সমাধান হয়ে যায় , তার ধারণাটি জ্বলজ্বল করে। তাঁর “রাইস অফ ইংলিশ” নিছক চরম অস্পষ্টতার দৃষ্টান্ত।

Historical references: Eagleton is an outspoken critic his generation. His best-selling publication “Literary Theory: An Introduction” published in 1983 reflects the breadth of his theory of knowledge. In this book the second chapter entitled “The Rise of English” contains many historical references of literature.

ঐতিহাসিক তথ্যসূত্র: ইগলটন তাঁর প্রজন্মের একটি স্পষ্টবাদী সমালোচক। 1983 সালে প্রকাশিত তাঁর সর্বাধিক বিক্রিত বই “লিটারারি  থিওরি : এন  ইন্ট্রোডাকশন ” তাঁর জ্ঞানের তত্ত্বের প্রশস্ততা প্রতিফলিত করে। এই বইতে “রাইস অফ ইংলিশ”  দ্বিতীয় অধ্যায়ের অন্তর্ভুক্ত  সাহিত্যের অনেক ঐতিহাসিক রেফারেন্স রয়েছে।

Humor: Most of the reversal comments in “The Rise of English” are humorous. In this work, Eagleton offers scathing assessments of various currents of criticism. While discussing the concept of value-judgement, he notes:

 “Nobody would bother to say that a bus ticket was an example of inferior literature, but someone might well say that the poetry of Ernest Dowson was”.

কৌতুকরসবোধ: “দ্য রাইজ অব ইংলিশ” -র বেশিরভাগ বিপরীত মন্তব্য হাস্যকর। এই রচনায়, ইগলটন সমালোচনার বিভিন্ন স্রোতের বিশদ মূল্যায়ন প্রদান করে, মূল্য-রায় ধারণাটি নিয়ে আলোচনার সময় তিনি মন্তব্য করে:

“কেউই এটা বলার মাথা ঘামায় না যে বাসের টিকিট নিকৃষ্ট সাহিত্যের উদাহরণ, তবে কেউ হয়তো বলতে পারেন যে আর্নেস্ট ডওসনের কবিতা নিকৃষ্ট সাহিত্যে ছিল”।

The satirical reversal in argument: Another technique often employed by Eagleton is the Swift-like satirical reversal in the argument.

যুক্তিতে ব্যঙ্গাত্মক বিপরীত: ইগল্টনের মাঝেমধ্যে নিযুক্ত আরেকটি কৌশল হ’ল যুক্তি  সুইফটের মতো যুক্তিতে ব্যঙ্গাত্মক বিপরীত বা তিনি সুইফটের মতো বিদ্রূপকারী ।

Tiresome extent: Pointless is not the staple of Eagleton’s prose. In fact, his style is clearer than most of the formal methods. But long stretches of text can be tiring. In spite of the tedious limitations, there is something different in his prose that can regenerate the text and the readers separately independent, it means that his criticism works like a catalyst.

ক্লান্তিকর বিশদ

অর্থহীন হ’ল ইগল্টনের গদ্যের মূল নয়। আসলে, তাঁর রীতিটি বেশিরভাগ আনুষ্ঠানিক পদ্ধতির চেয়ে পরিষ্কার। তবে পাঠ্যের দীর্ঘ প্রসার ক্লান্তিকর হতে পারে। ক্লান্তিকর সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও, তাঁর গদ্যের মধ্যে আলাদা কিছু রয়েছে যা পাঠ্য এবং পাঠকদের আলাদাভাবে স্বাধীন করতে পারে অর্থাৎ তার সমালোচনা সাহিত্য ক্যাটালিস্ট হিসাবে কাজ করে ।

Conclusion: Thus, writing in a style is accessible. Eagleton has specifically argued in the field of literary theory. His rhetorical skills are perhaps unequalled by contemporary critics. These are something that many critical theorists could benefit from studying.

উপসংহার: এইভাবে, একটি স্টাইলে লেখা প্রবেশযোগ্য। ইগলটন সাহিত্য তত্ত্বের ক্ষেত্রে বিশেষভাবে যুক্তি দেখিয়েছেন। তাঁর অলঙ্কৃত দক্ষতা সম্ভবত সমকালীন সমালোচকদের চাইতে অনেক বেশি উৎকৃষ্ট। এগুলি এমন কিছু যা অনেক সমালোচক তাত্ত্বিকরা অধ্যয়ন করে উপকৃত হতে পারে।

Or, what are the reasons for which Said has written “Culture and Imperialism”?

Introduction: “Culture and Imperialism” published in 1993 is a collection of essays by Edward Said (1935-2003). This was followed by his highly influential “Orientalism”, published in 1978. In his series of essays, the author attempts to identify the connection between imperialism and culture in the 18th, 19th, and 20th centuries. In the “Introduction”, Mr. Said himself describes the reasons and resources for which he is going to write his internationally acclaimed book.

ভূমিকা: ১৯৯৩ সালে প্রকাশিত “সংস্কৃতি ও সাম্রাজ্যবাদ” অ্যাডওয়ার্ড সাইদ (১৯৩৫-২০০৩) রচনা সংকলন। এটি তার অত্যন্ত প্রভাবশালী “প্রাচ্যবাদ” দ্বারা অনুসরণ করা হয়েছিল, 1978 সালে প্রকাশিত। তাঁর রচনামূলক সিরিজে লেখক 18 তম, 19 এবং 20 শতকে সাম্রাজ্যবাদ এবং সংস্কৃতির মধ্যে সংযোগ সনাক্ত করার চেষ্টা করেছেন। “ভূমিকা” তে, মিঃ সাইদ নিজেই যে কারণগুলি এবং সংস্থানগুলির জন্য তাঁর আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংসিত বইটি লিখতে চলেছেন তা বর্ণনা করেছেন।

Limitation of “Orientalism”: In his internationally acclaimed book Orientalism, Edward Said suggests that a general essay on the relationship between culture and empire has not yet been written. He composes “Culture and Imperialism” as an attempt to expand the “logics” of orientalism in order to describe a more general pattern of relationship between the western imperialists and their overseas territories.

প্রাচ্যবাদএর সীমাবদ্ধতা: তাঁর আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংসিত বই ওরিয়েন্টালিজমে, এডওয়ার্ড সাইদ ইঙ্গিত দেয় যে সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যের মধ্যে সম্পর্কের উপর একটি সাধারণ রচনা এখনও রচনা করা হয়নি। তিনি “সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদ” রচনা করেছেন প্রাচ্যবাদের “লজিকস” প্রসারিত করার প্রয়াস হিসাবে সম্পর্কের আরও সাধারণ প্যাটার্ন বর্ণনা করার জন্য পশ্চিমা সাম্রাজ্যবাদীদের এবং তাদের বিদেশের অঞ্চলগুলির মধ্যে।

To expose the hidden meaning of culture: In order to point out the furtive two-fold facets of culture, Said writes “Culture and Imperialism”. According to him, culture means two things from the surface and inner perspectives.

সংস্কৃতির গোপন অর্থ প্রকাশ করতে: সংস্কৃতির দুগুণযুক্ত দিকগুলি চিহ্নিত করার জন্য, সাইদ লিখেছেন “সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদ”। তাঁর মতে সংস্কৃতি মানে দুটি জিনিস পৃষ্ঠ এবং অভ্যন্তরীণ দৃষ্টিকোণ থেকে।

The secret strength of the imperialists: It is surprising and praiseworthy that Edward Said is the first mammoth critic who discovers the power of literature to sustain imperialism. Since literature is the mirror of society, he critically focuses on the French and English literature of the 19th and 20th which displayed the imperialistic experiences throughout the world but especially in Africa, India, Australia, the Caribbean, Ireland, Latin America.

সাম্রাজ্যবাদীদের গোপন শক্তি: এটা অবাক এবং প্রশংসনীয় যে এডওয়ার্ড সাইদ হলেন প্রথম বিশাল সমালোচক যিনি সাম্রাজ্যবাদকে টিকিয়ে রাখতে সাহিত্যের শক্তি আবিষ্কার করেছিলেন। সাহিত্য যেহেতু সমাজের আয়না, তাই তিনি সমালোচকভাবে 19 ও 20 তম ফরাসি এবং ইংরেজি সাহিত্যের দিকে মনোনিবেশ করেন যা বিশ্বজুড়ে সাম্রাজ্যবাদী অভিজ্ঞতা প্রদর্শন করেছিল তবে বিশেষত আফ্রিকা, ভারত, অস্ট্রেলিয়া, ক্যারিবিয়ান, আয়ারল্যান্ড, লাতিন আমেরিকা।

Ethical point of view: Being a humanitarian, Mr. Said was forced to formulate “Culture and Imperialism”. He focuses on the challenges of imperialism and confidently declares that imperialism must always encounter resistance which creates conflict and destruction. So, he preaches that it is better to refrain than reign. And the people of the third world have to be well-conceived and united to establish peace and progress.

নৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি

মানবিক হওয়া, জনাব সাঈদ “সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদ” লিখতে বাধ্য হয়েছিলেন। তিনি সাম্রাজ্যবাদের চ্যালেঞ্জগুলিতে মনোনিবেশ করেন এবং আত্মবিশ্বাসের সাথে এটি ঘোষণা করেন সাম্রাজ্যবাদকে সর্বদা প্রতিরোধের মুখোমুখি হতে হবে যা দ্বন্দ্ব ও ধ্বংস সৃষ্টি করে। সুতরাং, তিনি প্রচার করেছেন যে রাজত্বের চেয়ে বিরত থাকা ভাল। এবং তৃতীয় বিশ্বের জনগণকে শান্তি ও অগ্রগতি প্রতিষ্ঠায় সু-কল্পনা ও সংহত হতে হবে।

Conclusion: In termination, it can be asserted though it is difficult to accept Edward Said starkly, it is undoubted that his critical power has brought about a revolution in the field of criticism. And one can get a vast vista of the secret sources of imperialism by reading his “Culture and Imperialism”.

Introduction: Edward W. Said (1935-2003) is considered to be one of the illustrious critics and philosophers of late 20th century who has expounded the most critical concept in his collection of essays “Introduction to Culture and Imperialism” published in 1993 that there is a very subtle relationship between culture and imperialism. He looks into the relationship between culture and imperialism from a different angle as he has got different instruments of culture for imperialism.

ভূমিকা: এডওয়ার্ড ডাব্লু সাইদ (১৯৩৫-২০০৩) বিশ শতকের শেষের অন্যতম বিশিষ্ট সমালোচক এবং দার্শনিক হিসাবে বিবেচিত যা তিনি ১৯৯৩ সালে প্রকাশিত “সংস্কৃতি ও সাম্রাজ্যবাদের পরিচয়” রচনামূলক সংকলনে সবচেয়ে সমালোচনামূলক ধারণাটি ব্যাখ্যা করেছেন। সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদের মধ্যে একটি খুব সূক্ষ্ম সম্পর্ক। তিনি সাম্রাজ্যবাদের জন্য সংস্কৃতির বিভিন্ন উপকরণ পেয়েছেন বলে সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদের মধ্যে সম্পর্কের বিষয়টি অন্য একটি কোণ থেকে দেখেন।

Fragile culture of the natives: At the very outset of the essay Said says that the culture of the third world is very fragile which was the strength of the imperialists. The imperialists always left contest among the natives. Said considers that supine or inert natives were the main strength of the imperialists.

স্থানীয়দের নাজুক সংস্কৃতি: রচনাটির একেবারে শুরুতে সাইদ বলে যে তৃতীয় বিশ্বের সংস্কৃতি অত্যন্ত নাজুক যা ছিল সাম্রাজ্যবাদীদের শক্তি। সাম্রাজ্যবাদীরা সর্বদা স্থানীয়দের মধ্যে প্রতিযোগিতা ছেড়ে দেয়। তিনি বিবেচনা করেন যে জড় দেশীয়রা ছিল সাম্রাজ্যবাদীদের প্রধান শক্তি।

Ethical power of culture: The imperialists of Britain and France were the so-called light-bearers and makers of civilization. They went to spread the light of education and religion that was not only so-called but also namely to make the people of overseas colonies fool. In Said’s analysis, the search of trade and commerce and civilizing missions in India and Africa provided an ethical power to the colonialists but they went to the countries for looting and dominating.

“Culture conceived in this way can become a protective enclosure:

check your politics at the door before you enter it.”

সংস্কৃতির নৈতিক শক্তি

ব্রিটেন এবং ফ্রান্সের সাম্রাজ্যবাদীরা তথাকথিত আলোক বহনকারী এবং সভ্যতার নির্মাতা বলা হত। তারা শিক্ষা এবং ধর্মের আলো ছড়িয়ে দিতে গিয়েছিল যা কেবল তথাকথিত নয় বরং বিদেশী উপনিবেশের লোকদের বোকা বানানোর উদ্দেশ্যে তৈরি করেছিল। সাইদের বিশ্লেষণে, ভারত ও আফ্রিকার বাণিজ্য এবং সভ্য মিশনের অনুসন্ধানগুলি উপনিবেশবাদীদের একটি নৈতিক শক্তি প্রদান করেছিল কিন্তু তারা লুটপাট এবং আধিপত্যের জন্য দেশগুলিতে গিয়েছিল।

“এইভাবে কল্পনা করা সংস্কৃতি একটি প্রতিরক্ষামূলক ঘেরে পরিণত হতে পারে: আপনার রাজনীতি দ্বারে দ্বারে পরীক্ষা করুন প্রবেশ করার আগে। “

Literature as an institution of culture: It is universally accepted that literature is the mirror of society. Said opines through poetry, fiction, and philosophy teach how to practice and venerate culture, they discourse colonialism in an indirectly deep way. As a result, most professional humanists have been unable to connect between the prolonged practice of imperialism and the culture of literature. Here in this essay, Said especially talks about narrative fiction, novels, which play a vital role in the expansion of imperialism in the camouflage of culture.

সংস্কৃতির একটি প্রতিষ্ঠান হিসাবে সাহিত্য

এটা সর্বজনস্বীকৃত যে সাহিত্যই সমাজের আয়না। তিনি প্রকাশ করেছেন যদিও কবিতা, কল্পকাহিনী এবং দর্শন সংস্কৃতি চর্চা ও শ্রদ্ধা করতে শেখায়, তারা উপনিবেশবাদকে পরোক্ষভাবে গভীর উপায়ে আলোচনা করে। ফলস্বরূপ, বেশিরভাগ পেশাদার মানবতাবাদীরা দীর্ঘকাল সাম্রাজ্যবাদের চর্চা এবং সাহিত্যের সংস্কৃতির মধ্যে সংযোগ রাখতে অক্ষম হয়েছেন। এখানে এই প্রবন্ধে সৈয়দ বিশেষত বর্ণনামূলক কল্পকাহিনী, উপন্যাস সম্পর্কে কথা বলেছেন যা সংস্কৃতির ছদ্মবেশে সাম্রাজ্যবাদের প্রসারের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

Immigrating culture: Immigrating culture is an instrument of post-colonial capitalism. Edward Said relates that imperialism exists even in the 20th century but not in the shape of the 18th and 19th centuries because in fine of the essay he asserts:

“This is a book about past and present, about us and them.”

সংস্কৃতি অভিবাসন

উপনিবেশিক পুঁজিবাদের একটি উপকরণ হিজরত সংস্কৃতি। এডওয়ার্ড সাইদ বর্ণনা করেছেন যে সাম্রাজ্যবাদ বিংশ শতাব্দীতেও বিদ্যমান তবে 18 এবং 19 শতকের আকারে নয় কারণ প্রবন্ধের  শেষে তিনি দৃড়ভাবে বলেছেন:

“এটি আমাদের এবং তাদের সম্পর্কে অতীত ও বর্তমান সম্পর্কে একটি বই”

Conclusion: To sum up, Edward Said is such a genius who reveals the secret of improved culture as the instrument of imperialism and capitalism in a convincing and fabulous way so that the countries of this universe can enjoy freedom and sovereignty being aware of the culture.

Introduction: As Eliot fixes the goal that he will abolish all the overdone misconceptions about the metaphysical school of poetry, he introduces a new term in his essay that is known as ‘reflective and intellectual poet’. He distinguishes between the intellectual poet and the reflective poet in his famous critical essay “The Metaphysical Poets” to declare the superiority of the metaphysical poets.

ভূমিকা: এলিয়ট যেহেতু এই লক্ষ্য স্থির করেছেন যে তিনি কবিতার অধিবিদ্যামূলক বিদ্যালয় সম্পর্কে সমস্ত অতিভ্রষ্ট ধারণা বাতিল করবেন, তাই তিনি তাঁর রচনায় একটি নতুন শব্দ প্রবর্তন করেছেন যা ‘প্রতিবিম্বিত ও বৌদ্ধিক কবি’ নামে পরিচিত। তিনি আধ্যাত্মিক কবিদের শ্রেষ্ঠত্ব ঘোষণা করার জন্য তাঁর বিখ্যাত সমালোচক প্রবন্ধ “দ্য মেটিফিজিকাল পোয়েট” -এ বুদ্ধিজীবী কবি এবং প্রতিবিম্বিত কবির মধ্যে পার্থক্য করেছেন।

Definition: Eliot clearly defines that the poets who are passionate thinkers are called intellectual poets. To put it differently, the metaphysical poets are intellectual poets. But the poets who are deeply thoughtful but separated from passion and emotion are called reflective poets.

সংজ্ঞা: এলিয়ট স্পষ্টভাবে সংজ্ঞায়িত করেছেন যে অনুরাগী চিন্তাবিদ কবিদেরকে বুদ্ধিজীবী কবি বলা হয়। একে অন্যভাবে বলতে গেলে রূপক কবিরা হলেন বুদ্ধিজীবী কবি। তবে গভীরভাবে চিন্তাশীল কিন্তু আবেগ থেকে বিচ্ছিন্ন কবিদের প্রতিবিম্বিত কবি বলা হয়।

Versification technique: Eliot deeply suggests that the metaphysical poets have achieved their versification technique from their predecessors of sixteenth-century dramatists who were the master of ‘mechanism of sensibility’. On the other hand, the reflective poets especially Tennyson and Browning as a writer of dramatic monologue are the followers of the intellectual poets.

কবিতা রচনার কৌশল: এলিয়ট গভীরভাবে ইঙ্গিত দেয় যে রূপক কবিরা তাদের কবিতা রচনার কৌশল তাদের ষোড়শ শতাব্দীর পূর্বসূরী নাট্যকারদের কাছ থেকে অর্জন করেছেন যারা ‘সংবেদনশীলতার  কর্তা ছিলেন। অন্যদিকে প্রতিবিম্বিত কবিরা বিশেষত টেনিসন এবং ব্রাউনিং ড্রামাটিক মনোলোগ লেখক হিসাবে বুদ্ধিজীবী কবিদের অনুসারী।

Dissociation of sensibility: The term ‘dissociation of sensibility’ has been coined out by Eliot in his essay. Dr. Johnson blames the intellectual poets in the following manner:

‘the most heterogeneous ideas are yoked by violence together’

Such blame recommends that the metaphysical poets were the first to separate thought and passion. But it is crystal clear that the reflective poets are engulfed with dissociation of sensibility, but the intellectual poets are the lord of unification of sensibility.

সংবেদনশীলতা বিযুক্তি

এলিয়ট তাঁর প্রবন্ধে ‘সংবেদনশীলতার বিচ্ছিন্নতা’ শব্দটি আবিষ্কার করেছেন। ডাঃ জনসন নিম্নলিখিত পদ্ধতিতে বুদ্ধিজীবী কবিদের দোষ দিয়েছেন:

‘সর্বাধিক ভিন্নধর্মী ধারণা একসাথে সহিংসতা দ্বারা যোগ করা হয়’

এই ধরনের দোষ সুপারিশ করে যে রূপক কবিরা সর্ব প্রথম চিন্তা ও আবেগকে পৃথক করেছিলেন। সুতরাং, এটি স্ফটিক স্পষ্ট যে প্রতিবিম্বিত কবিরা সংবেদনশীলতা বিচ্ছিন্নতায় আবদ্ধ, তবে বুদ্ধিজীবী কবিগণ সংবেদনশীলতার একীকরণের কর্তা।

Diction vs feeling: Eliot presents a unique discovery between the intellectual poets and the reflective poets in the case of the use of language.

রচনাশৈলী বনাম অনুভূতি: এলিয়ট ভাষা ব্যবহারের ক্ষেত্রে বুদ্ধিজীবী কবি এবং প্রতিবিম্বিত কবিদের মধ্যে একটি অনন্য আবিষ্কার উপস্থাপন করেছেন।

Conclusion: In a nutshell, it can be said that though Eliot is not starkly accurate in differentiating between the intellectual poets and the reflective poets, his intention is perfect because he has just wanted to show that the metaphysical poets are the inevitable part of the galaxy of English literature.

  • Question: How does T.S. Eliot praise Donne’s ability to unify the intellectual thoughts and sensation of feeling?

Introduction: T.S. Eliot (1888-1965) is the first critic who in his essay “The Metaphysical Poets” has praised the ability of John Donne. Sensuous apprehension of thought is called the unification of sensibility. To put it differently, unified sensibility means the combination of emotion and thought. Donne’s power of fusing intellectual thoughts and sensation of feeling is the key issue of Eliot’s essay.

ভূমিকা: টি.এস. এলিয়ট (1888-1965) হলেন প্রথম সমালোচক যিনি তাঁর রচনা “দ্য মেটিফিজিকাল পোয়েট” এ জন ডোন-এর দক্ষতার প্রশংসা করেছেন। চিন্তার সংবেদনশীল ধারণা যাকে বলা হয় সংবেদনশীলতা একীকরণ। এটিকে অন্যভাবে বলতে গেলে সংহত সংবেদনশীলতা মানে আবেগ এবং চিন্তার সংমিশ্রণ। ডানের বুদ্ধিজীবী চিন্তাভাবনা এবং অনুভূতির সংবেদনকে মিশ্রিত করার  শক্তি ইলিয়টের রচনার মূল বিষয়।

The Variety of mood and experience: Eliot argues that Donne’s poetry is chiefly remarkable for the range and variety of mood and attitude. By dint of the variety of moods, Donne has been able to blend thought and emotion in a bizarre way that has been designated as ‘a mechanism of sensibility’ which can devour any kind of experience. 

মেজাজ এবং অভিজ্ঞতার বৈচিত্র্য: এলিয়ট যুক্তি দেখান যে ডোনের কবিতা প্রধানত উল্লেখযোগ্য মেজাজ এবং মনোভাবের পরিসীমা এবং বিভিন্নতার জন্য। Donne চিন্তা এবং আবেগ মিশ্রিত করতে সক্ষম হয়েছে উদ্ভট উপায়ে যা মনোনীত করা হয়েছে ‘সংবেদনশীলতার ব্যবস্থা’ হিসাবে যা কোনও ধরণের অভিজ্ঞতা গ্রাস করতে পারে।

Intellectualism and logical quality: According to Eliot, the metaphysical poets are called intellectual poets, but their intellectuality is not devoid of passionate thinking. But rather they are logically associated. The critic refers one of the love poems of Donne entitled “A valediction: Forbidding Mourning” in which Donne moves from thought to thought with measured and weighty music.

বৌদ্ধিকতা এবং যৌক্তিক গুণ: এলিয়টের মতে, রূপক কবিদের বুদ্ধিজীবী কবি বলা হয়, তবে তাদের বৌদ্ধিকতা সংবেদনশীল চিন্তাভাবনা থেকে বঞ্চিত নয়। বরং তারা যুক্তিযুক্তভাবে যুক্ত হয়। সমালোচক  “একটি শপথ: শোককে হারাম” শিরোনামে ডানের একটি প্রেমের কবিতা উল্লেখ করেছেন যার মধ্যে ডোন একটি পরিমাপযোগ্য এবং ওজনযুক্ত সংগীত নিয়ে চিন্তাভাবনা থেকে চিন্তায় চলে আসে।

Using imagery and conceits: Eliot remarks that Donne’s poems arise from an emotional situation. Then the poet argues to make his attitude acceptable and, in this process, the conceits are used as instruments. His originality is reflected when he uses images and conceits from various sources and fields. Eliot specially mentions “The Relic” that is one of the famous poems of John Donne.

“A bracelet of bright hair about the bone,”

Using Imagery and conceits: এলিয়ট মন্তব্য করেছেন যে ডোনের কবিতাগুলি একটি সংবেদনশীল পরিস্থিতি থেকে উদ্ভূত হয়। তারপরে কবি তার মনোভাবকে গ্রহণযোগ্য করার পক্ষে যুক্তি দেখান এবং, এই প্রক্রিয়াতে, অহঙ্কার যন্ত্র হিসাবে ব্যবহৃত হয় যখন তিনি বিভিন্ন উত্স এবং ক্ষেত্রের চিত্র এবং অহঙ্কার ব্যবহার করেন তখন তাঁর মৌলিকতা প্রতিফলিত হয়। এলিয়ট বিশেষভাবে “দ্য রিলিক” উল্লেখ করেছেন এলিয়ট বিশেষভাবে  জন ডোনির অন্যতম বিখ্যাত কবিতা”দ্য রিলিক” কে উল্লেখ করেছেন।

হাড় সম্পর্কে উজ্জ্বল চুলের একটি ব্রেসলেট,”

Conclusion: Thus, Donne achieves the power of unification of sensibility very successfully and artificially. His poetry gives the impression that the thought and arguments are arising immediately out of passionate feelings. It is part of the dramatic realism of his style. He could combine disparate experiences and build something new by a variety of subjects.

  • Write a short note on Chaucer.

Introduction: Geoffrey Chaucer (1343-1400) was a poet, scientific thinker, author, philosopher, and diplomat. He made a huge contribution to the development of English literature and language. The three stages of his literary career make him not only famous but also recognizable. According to John Dryden, Chaucer is the father of English poetry. He is given this title for a number of reasons.

Arnold’s evaluation of Chaucer: In “The Study of Poetry” Matthew Arnold refers to Chaucer and seeks to establish a real estimate of his poetry. He says that the poetical importance of Chaucer does not need the assistance of the historic estimate. He is a genuine source of joy. He admits that the language of Chaucer is a cause of difficulty for us but he believes that it is a difficulty to be unhesitatingly accepted and overcome. In the recognition of Chaucer as a classic, the famous Arnoldian touchstone method stands in the way and spoils the whole game. Arnold is prepared to acknowledge the fact that the poetry of Chaucer is far better than the poetry before him. He is prepared to accept that he enjoys Chaucer’s writing. He says in most emphatic terms that it was dependent upon his talent. It is by the own words of Arnold:

“Chaucer is not one of the great classics. His poetry transcends and effaces,

easily and without effort,………”

Conclusion: Arnold’s evaluation of Chaucer has been generally accepted by subsequent critics. G. K. Chesterton says that Chaucer was a humorist in the grand style. Some critics are also shocked to see Arnold’s notion of seriousness.

  • What do you mean by consolidation of imperialism?

Introduction: Imperialism is the process of expanding European overseas territories. To put it differently, it is the process of domination over weaker nations by powerful hypocrite nations. The whole process of imperialism is based on the consolidation of imperialism which is transparently coined out by Edward Said in literature.

Consolidation of imperialism: The consolidation of imperialism was the procedure of building of armies based on conscription, compulsory schooling, and the use of imperialism as a means of deflecting internal discontent and strengthening loyalties to the nation. To make easy the term ‘consolidation of imperialism’, Said discovers the two-fold meanings of culture that help the imperialists by focusing on the following aspects of culture:

  1. Fragile culture of the natives
  2. Ethical power of culture
  3. Literature as an institution of culture

Conclusion: Thus, the term consolidation of imperialism is a venture of permanent domination in the legalized process.

  1. What do you mean by post-colonialism or post-colonial theory?

Introduction: The history of colonialism is deeply rooted in the ups and downs of human history. The post-colonial theory was invented with the concept of post-modernism, but it spread around the world in the 1980s when the United Kingdom and the United States incorporated this theory into their academics.

Defined concept: Postcolonialism or postcolonial theory is the academic study of the cultural legacy of colonialism and imperialism. This theory focuses on the human consequences of the control and exploitation of colonized people and their lands. It is a critical analysis of the history, culture, literature, and discourse of European imperial power.

Expansion of the theory: The field of postcolonial studies was influenced by Edward Said’s path-breaking book Orientalism. Said uses the term Orientalism in several different ways. Orientalism is a specific field of academic study about the Middle East and Asia. This term described a structured set of concepts, assumptions, and discursive practices that were used to produce, interpret, and evaluate knowledge about non-European people. Said’s analysis made it possible for scholars to deconstruct literary and historical texts in order to understand how they reflected and reinforced the imperialist project. In “Introduction to Culture and Imperialism”, Said clearly states the theory of post-colonialism by referring to immigrating culture.

Conclusion: Thus, post-colonialism is a new term to enhance imperialistic power. This theory is a golden key for the imperialists to dominate the weaker nations sitting in a fixed place.

What similarity do you find between the metaphysical poets and modern poets?

Introduction: T. S. Eliot (1888-1965) in his critical essay “The Metaphysical Poets” has shown the affinity between the metaphysical poets and the modern poets. He asserts that modern poetry is the result of metaphysical poetry. To put it differently, he is in the opinion that without the shadow of the metaphysical poets, modern poetry cannot get its way of improvement.

Variety and complexity: Variety and complexity have been the key fact against the metaphysical poets raised by Dr. Samuel Johnson (1709-1784). It is in Johnson’s tongue:

“The most heterogeneous ideas are yoked by violence together”

But Eliot finds a great link between metaphysical poets and modern poets on a great variety of moods and complexity. Because juxtaposition is one of the significant features of modern poetry.

The use of language: Eliot says that the poet must become more and more comprehensive, allusive, and indirect in order to force language into his meaning. Comprehensive, allusive, and indirect qualities of the metaphysical poets are produced by the use of conceits. And today, the name of conceits is changed into obscure words mingled with simple phrasing.

Other similarities: Besides these, we also find some other similarities which are as follow:

  1. The quality of transforming ideas into sensations
  2. Dramatic beginning
  3. Intellectual quality

Conclusion: To sum up, it can be said that Eliot has wanted to say that the modern poets are the perfect imitators of the metaphysical poets because modern poetry descends in a direct line to the metaphysical poets.

Part: C

  1. Discuss “Touchstone Method”.

Or, discuss the merits and demerits of the “Touchstone Method”.

Introduction: Matthew Arnold (1822-1888) was the critic poet of the Victorian Period. He is considered to be the father of Modern Criticism. The method which is advocated by Arnold is known as the touch-stone method. According to Arnold, the term touchstone must be applicable for the purpose of judging and evaluating the standard of poets’ literary works whether they are classic or not. This method is recognized as the masterpiece of the critical essay “The Study of Poetry” (1880).

ভূমিকা: Matthew Arnold (1822-1888) ভিক্টোরিয়ান পিরিয়ডের সমালোচক কবি ছিলেন । তাকে আধুনিক সমালোচনার জনক হিসাবে বিবেচনা করা হয় । Arnold যে পদ্ধতিকে সমর্থন করেছেন তা touch-stone পদ্ধতি নামে পরিচিত। Arnold-এর মতে, touch-stone পদ্ধতিটি অবশ্যই কবিদের সাহিত্যের রচনাগুলোর মান বিচার এবং মূল্যায়নের উদ্দেশ্যে প্রযোজ্য, সেগুলো ক্লাসিক হোক বা না হোক । এই পদ্ধতিটি সমালোচনামূলক প্রবন্ধ “The Study of Poetry” (1880) এর সেরা শিল্পকর্ম হিসেবে স্বীকৃত ।

The scientific process of evaluation

Aristotle assigns excellent and high seriousness as one of the grand virtues of poetry. Here in the essay “The Study of Poetry”, Arnold has cited some lines of Homer, Dante, Shakespeare, and Milton as touchstones for testing the high poetic quality. As the “Touchstone Method” introduces the scientific process for critical evaluation and judgment of individual poets, Chaucer, Dryden, Pope and Shelley fail to be the best poet or classics because they have lack ‘high seriousness’. Even Shakespeare thinks too much for expression and little conception that is the slight flaw of Shakespeare but he is classic in accordance with Arnold. Actually, Arnold means to say that Chaucer, Dryden, Pope, and Shelley are genius but not classic.

বৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়ার মূল্যায়ন

Aristotle যেমন চমৎকার এবং উচ্চ গম্ভীরতাকে  নির্ধারণ করেছেন কবিতার অন্যতম গুণ হিসাবে  । এখানে “The Study of Poetry” প্রবন্ধে, Arnold কাব্যের উচ্চ  মানের গুণ পরীক্ষা করার জন্য Homer, Dante, Shakespeare এবং Milton-এর কয়েকটি লাইনকে touchstone হিসাবে উল্ল্যেখ করেছেন । “Touchstone Method” যেমন পৃথক কবিদের সমালোচনামূলক মূল্যায়ন ও বিচারের জন্য বৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়ার সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়, Chaucer, Dryden, Pope এবং Shelleyর সেরা কবি বা ক্লাসিক হতে ব্যর্থ হন কারণ তাদের মধ্যে ‘high seriousness’-এর অভাব রয়েছে । এমনকি শেক্সপিয়ার ভাব প্রকাশ এবং সামান্য ধারণার জন্য খুব বেশি চিন্তা করেন যা শেক্সপিয়ারের সামান্য ত্রুটি, তবুও তিনি আর্নল্ডের মতে ক্লাসিক । আসলে, আর্নল্ড বলতে চেয়েছেন যে Chaucer, Dryden, Pope এবং Shelley প্রতিভাবান কিন্তু ক্লাসিক নন ।

The yardstick of finding ideal poets

As a result of the application of this method in his essay, the critic finds his ideal poets too. Homer and Sophocles are his ideal poets of ancient times. Dante and Milton have also been classic and he finds Goethe and Wordsworth as an ideal among the modernists. Arnold gives Wordsworth high rank not for his poetry but for his “Criticism of Life”.

আদর্শ কবিদের সন্ধানের আঙ্গিনা

তাঁর রচনায় এই পদ্ধতি প্রয়োগের ফলস্বরূপ, সমালোচক তাঁর আদর্শ কবিদেরও খুঁজে পান । তাঁর প্রাচীন সময়ের আদর্শ কবি হলেন Homer এবং Sophocles। Dante এবং Miltonও ক্লাসিক ছিলেন এবং তিনি আধুনিকতাবাদীদের মধ্যে Goethe এবং Wordsworthকে আদর্শ হিসাবে খুঁজে পান । Arnold Wordsworthকে তাঁর কবিতার জন্য নয় বরং তাঁর “Criticism of Life”- এর জন্য উচ্চ পদমর্যাদা দিয়েছেন ।

The method of evaluation, not rejection

Arnold asserts that in order to judge a poet’s work properly a critic should compare it, poet’s literary work, to the passages of the classics. If the work has high seriousness or criticism of life, it will be recognized as a classical piece of writing and the poet must be included in the line of the classics. But it is also remembered that the literary work will not be rejected completely as we cannot reject Dryden, pope, and Shelley. To prove Arnold’s touchstone method, a few lines can be cited:

“And courage never to submit or yield

And what is else not to be overcome…………”

According to Arnold if we tact these few lines, they are enough even to save us from the fallacious estimate of poetry and to conduct us to real estimate.

মূল্যায়নের পদ্ধতি, প্রত্যাখ্যানের নয়

Arnold জোর দিয়ে বলেছেন যে, কোনও কবির কাজের যথাযথ বিচার করার জন্য একজন সমালোচককে অবশ্যই কবির সাহিত্যকর্মকে ক্লাসিক অনুচ্ছেদের সাথে তুলনা করা উচিত । যদি সাহিত্যকর্মটিতে উচ্চ গম্ভীরতা বা জীবনের সমালোচনা থাকে, তবে এটি লেখার ক্লাসিক্যাল অংশ হিসাবে স্বীকৃত হবে এবং সেই কবিকে অবশ্যই ক্লাসিকদের সারিতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে । তবে এটাও মনে রাখতে হবে যে সাহিত্যকর্মটি অবশ্যই সম্পূর্ণরুপে প্রত্যাখ্যাত হবে না যেহেতু আমরা Dryden, pope এবং Shelleyকে অস্বীকার করতে পারি না । Arnold-এর touchstone পদ্ধতিটি প্রমাণ করার জন্য কয়েকটি লাইন উদ্ধৃত করা যেতে পারে:

“এবং সাহস কখনও জমা বা উত্পাদন হয় না

এবং কাটিয়ে ওঠার আর কী নেই ……… …”

Arnold-এর মতে আমরা যদি এই কয়েকটি লাইনটি রপ্ত করি তবে এগুলি আমাদের কবিতার মিথ্যা অনুমান থেকে বাঁচতে এবং আমাদেরকে সত্যিকারের অনুমানের দিকে পরিচালিত করতে যথেষ্ট।

Categorization of the poets

Arnold surveys the entire track of English poetry by comparing the passages of Homer and Shakespeare and divides the poets into sundry categories of the good and great and not so good and so great. We can summarize Arnold’s view that is recommended for the critic by him in the following sentences:

“It is important therefore, to hold fast to this: that is at bottom a criticism of life: that a greatness of a poet lies in his powerful and beautiful application of ideas to life, and to the question, how to live”.

কবিদের শ্রেণীবদ্ধকরণ

Arnold Homer এবং Shakespeare-এর অনুচ্ছেদের সাথে তুলনা করে ইংরেজি কবিতার পুরো ধারাটি সমীক্ষা করেছেন এবং কবিদেরকে good ও great এবং not so good ও not so great ইত্যাদি বিভিন্ন বিভাগে ভাগ করেছেন । আমরা সমালোচকদের উদ্দেশ্যে Arnold-এর দৃষ্টিভঙ্গির সংক্ষিপ্তসার জানতে পারি যা নিম্নলিখিত বাক্যগুলিতে দেয়া হলো:

“অতএব, এই বিষয়টিকে দৃঢ়ভাবে ধরে রাখা গুরুত্বপূর্ণ: যেটি জীবনের সমালোচনায় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে: যে একজন কবির মহিমা নিহিত রয়েছে তাঁর ধারণাগুলির দৃঢ় ও সুন্দর প্রয়োগের মধ্যে, এবং এই প্রশ্নটির মধ্যে- কিভাবে বাঁচতে হয়

Criticism or demerits

The touch-stone method introduced and proved by Matthew Arnold is neither very safe nor very sane. There are a number of disagreements as to the method. According to the critics, this comparative method is not perfect to determine the proper estimate of poetry because the personal and historical estimates are neglected in the method. Besides the contemporary presentation of poetic writing is also neglected by the touch-stone method. According to Van Doren, most of the touch-stone of Arnold deals in pain and sad memories.

সমালোচনা বা ত্রুটি

Matthew Arnold দ্বারা প্রবর্তিত এবং প্রমাণিত touch-stone পদ্ধতিটি খুব নিরাপদ নয় আবার খুব আদর্শও নয় । পদ্ধতিটি সম্পর্কে অনেক মতভেদ রয়েছে । সমালোচকদের মতে, এই তুলনামূলক পদ্ধতিটি কবিতার যথাযথ অনুমান নির্ধারণের জন্য উপযুক্ত নয় কারণ পদ্ধতিটিতে ব্যক্তিগত এবং ঐতিহাসিক অনুমান প্রত্যাখ্যাত রয়েছে । সমসাময়িক উপস্থাপনার পাশাপাশি কাব্যিক লেখা touch-stone পদ্ধতি দ্বারাও প্রত্যাখ্যাত । Van Doren-এর মতে, Arnold-এর বেশিরভাগ touch-stone পদ্ধতি ব্যথা এবং দুঃখের স্মৃতির সাথে সম্পর্কিত ।

Conclusion: To sum up, it is asserted that the “Touchstone Method” is a landmark in the history of English Literature as it makes the poet thoughtful about the far-reaching effects of poetry, and as a result of this method the acceptance of poetry has been enhanced to the readers.

উপসংহার: সারসংক্ষেপে, এটি দৃঢ়ভাবে বলা যায় যে “Touchstone Method” ইংরেজি সাহিত্যের ইতিহাসের একটি মাইল ফলক কারণ এটি কবিকে কবিতার সুদূরপ্রসারী প্রভাব সম্পর্কে বিবেচনাপূর্ণ করে তোলে এবং এই পদ্ধতির ফলে পাঠকদের কাছে কবিতার গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধি পেয়েছে ।

2. Discuss Matthew Arnold as a critic with reference to “The Study of Poetry.

Introduction: Matthew Arnold was a Victorian poet and critic. He is considered to be the first modern critic and could be called the critic of critics because he became not only the champion of great poetry but also of literary criticism. As a critic, he talks about social issues, science, religion, and education. He was the first to pose questions in industrial Victorian society.

ভূমিকা: ম্যাথিউ আর্নল্ড ছিলেন একজন ভিক্টোরিয়ান কবি এবং সমালোচক। তাঁকে প্রথম আধুনিক সমালোচক হিসাবে বিবেচনা করা হয় এবং সমালোচকদের সমালোচক বলা যেতে পারে কারণ তিনি কেবল দুর্দান্ত কবিতার চ্যাম্পিয়নই হননি, তিনি সাহিত্যিক সমালোচনার চ্যাম্পিয়নও হয়েছিলেন। সমালোচক হিসাবে তিনি সামাজিক বিষয়, বিজ্ঞান, ধর্ম এবং শিক্ষা নিয়ে কথা বলেন। শিল্প ভিক্টোরিয়ান সমাজে তিনিই প্রথম প্রশ্নটি করেছিলেন।

Influential critic

According to Matthew Arnold, the purpose of literary criticism is to know the best that is known and thought in the world and to generate a flow of genuine and fresh ideas that is why he has been able to influence the whole school of critics including T. S. Eliot and Allen Tate.

প্রভাবশালী সমালোচক

ম্যাথু আর্নল্ডের মতে, সাহিত্যের সমালোচনার উদ্দেশ্য হ’ল বিশ্বের সর্বাধিক পরিচিত এবং চিন্তাধারা জানা এবং সত্যিকারের এবং সতেজ ধারণাগুলির একটি প্রবাহ তৈরি করা এই কারণেই তিনি টিএস এলিয়ট এবং   অ্যালেন টেট সহ সমালোচকদের পুরো স্কুলকে প্রভাবিত করতে সক্ষম হয়েছেন

Founder of sociological school of criticism

The sociological school of criticism was founded by Matthew Arnold. His touchstone method introduced scientific objectivity to critical evaluation by providing comparison and analysis as the two primary tools of criticism. His touchstone method and objective approach to critical evaluation have been praised by Allen Tate and T. S. Eliot.

সমাজতাত্ত্বিক সমালোচনা স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা

সমাজতাত্ত্বিক সমালোচনার স্কুলটি ম্যাথু আর্নল্ড প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তাঁর টাচস্টোন পদ্ধতি সমালোচনার দুটি প্রাথমিক সরঞ্জাম হিসাবে তুলনা এবং বিশ্লেষণ প্রদান করে সমালোচনামূলক মূল্যায়নের বৈজ্ঞানিক অবাস্তবতার পরিচয় দেয়। অ্যালেন টেট এবং টি. এস. এলিয়ট প্রশংসিত হয়েছেন তাঁর টাচস্টোন পদ্ধতি এবং সমালোচনামূলক মূল্যায়নের  উদ্দেশ্যপ্রণালী এর  জন্য

Critical view on social role of poetry

As a critic, Arnold has presented the social role of poetry. He thinks a critic is a social benefactor. He asserts that a creative artist would cut the sorry figure and should only care for the beauties and defects of literary works. As cultural and social values are synonymous to Arnold, he suggests that a poet should be very careful while he writes poetry because cultural values give us principles and the best poems should be selected and made known by the principles. Besides, poetry is the criticism of life. In the seminal essay “The Study of Poetry”, 1888, he claims the elevated status of poetry that is that poetry is superior to philosophy, religion, science, and politics. He also claims that poetry can alone be our sustenance and succor. Thus, he calls poetry the breath and finer spirit of knowledge.

কবিতার সামাজিক ভূমিকা নিয়ে সমালোচক দৃষ্টিভঙ্গি

সমালোচক হিসাবে আর্নল্ড কবিতার সামাজিক ভূমিকা উপস্থাপন করেছেন। তিনি মনে করেন একজন  সমালোচক  সামাজিকভাবে  উপকারী। তিনি দৃঢ়ভাবে  দাবি করেন যে একজন সৃজনশীল শিল্পী হবে বিশিষ্ট ব্যাক্তি এবং কেবল সাহিত্যকর্মের সৌন্দর্যের  এবং ত্রূটিগুলোর  দেখাশোনা করা উচিত। যেহেতু সাংস্কৃতিক ও সামাজিক মূল্যবোধ আর্নল্ডের সমার্থক, তাই তিনি পরামর্শ দিয়েছিলেন যে কোনও কবির কবিতা লেখার সময় খুব যত্নশীল হওয়া উচিত কারণ সাংস্কৃতিক মূল্যবোধ আমাদের মূল নীতি দেয় এবং সেরা কবিতা নির্বাচন করা উচিত এবং নীতিগুলি দ্বারা পরিচিত হওয়া উচিত। এছাড়া কবিতা জীবনের সমালোচনা। ১৮৮৮ খ্রিস্টাব্দে “The Study of Poerty” শীর্ষক প্রবন্ধে তিনি কবিতার উচ্চতর মর্যাদাকে দাবী করেন যে কবিতা দর্শন, ধর্ম, বিজ্ঞান এবং রাজনীতির চেয়ে উচ্চতর। তিনি আরও দাবি করেছেন যে কবিতা একাই আমাদের ভরণপোষণ ও সহায়ক হতে পারে। সুতরাং, তিনি কবিতাকে জ্ঞানের শ্বাস এবং সূক্ষ্ম চেতনা বলেছেন।

Moral critic

Arnold as a critic is essentially a moralist and he has very definite ideas about what poetry should and should not be. He says that poetry of revolt against moral ideas is a poetry of revolt against life and poetry of indifference to moral ideas is a poetry of indifference to life. He believes ‘high seriousness is impossible if poetry is devoid of moral ideas and replete with charlatanism. He mentions Aristotle’s reference “poetry is superior to history” as poetry bears high seriousness and truth. So, the field of poetry should be free from charlatanism and packed up with moral ideas.

নৈতিক সমালোচক

সমালোচক হিসাবে আর্নল্ড মূলত একজন নৈতিকতাবাদী এবং কবিতাটি কী হওয়া উচিত এবং কী হওয়া উচিত নয়  তা সম্পর্কে তার খুব সুনির্দিষ্ট ধারণা রয়েছে। তিনি বলেছেন যে কবিতা  নৈতিক ধারণার বিরুদ্ধে বিদ্রোহের , কবিতা  জীবনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের,  এবং কবিতা  নৈতিক ধারণার প্রতি উদাসীনতার,কবিতা জীবনের প্রতি  উদাসীনতার । তিনি বিশ্বাস করেন যে ‘উচ্চ গম্ভীরতা অসম্ভব যদি কোনও কবিতা নৈতিক ধারণাগুলি থেকে বঞ্চিত হয় এবং চার্ল্যাটানিজম পূর্ণ হয়। তিনি অ্যারিস্টটলে উল্লেখ করেছেন “কবিতা ইতিহাসের চেয়ে উচ্চতর” কারণ কবিতা উচ্চ গম্ভীরতা এবং সত্য বহন করে। সুতরাং, কবিতার ক্ষেত্রটি চার্ল্যাটানিজমমুক্ত এবং নৈতিক ধারণাগুলি দ্বারা সজ্জিত হওয়া উচিত।

Evaluator of classical values

In his essay “The Study of Poetry”, Arnold returns to the classical values. He believes that a modern writer should be aware that contemporary literature is built on the foundation of the past. He evaluates and judges the English poets from Chaucer to onwards, ancient Greek poet Homer, Latin poet Dante, southern and northern French poets, and Scottish poet Burns so that he can ensure the classical values of poetry because poetry has antiquity and universality that has been proved by Sir Philip Sidney in the essay “An Apology for Poetry”. He censors, by applying the scientific touchstone method, the poets like Chaucer, Dryden, Pope, Burns, and Shelley because of lacking of high seriousness but on the other hand, he praises Dante, Milton, Gray, and Wordsworth because of their proper interpretation of life.

ক্লাসিকাল  মূল্যবোধের মূল্যায়নকারী

আর্নল্ড তাঁর ”The Study of Poerty” প্রবন্ধে, ক্লাসিকাল  মূল্যবোধে  ফিরে আসেন। তিনি বিশ্বাস করেন যে আধুনিক লেখকের সচেতন হওয়া উচিত যে সমসাময়িক সাহিত্য অতীতের ভিত্তিতে নির্মিত। তিনি চৈসার থেকে শুরু করে প্রাচীন গ্রীক কবি হোমার, লাতিন কবি দান্তে, দক্ষিণ ও উত্তর ফরাসি কবি এবং স্কটিশ কবি বার্নসকে ইংরেজ কবিদের মূল্যায়ন ও বিচার করেছেন যাতে তিনি কবিতার ক্লাসিকাল  মূল্যবোধ নিশ্চিত করতে পারেন কারণ কবিতায় প্রাচীনত্ব এবং সর্বজনীনতা প্রমাণিত হয়েছে স্যার ফিলিপ সিডনি রচনা ” এন আপলোজি ফর পোয়ের্টি ” প্রবন্ধে। তিনি সমালোচলা  করেছিলেন , বৈজ্ঞানিক টাচস্টোন পদ্ধতি প্রয়োগ করে চৌসার, ড্রাইডেন, পোপ, বার্নস এবং শেলির মতো কবি উচ্চ গম্ভীরতার অভাবের কারণে তবে তিনি ড্যান্ট, মিল্টন, গ্রে এবং ওয়ার্ডসওয়ার্থের প্রশংসা করেছেন কারণ তাদের জীবনের সঠিক ব্যাখ্যা রয়েছে।

Arnold’s limitation as a critic

Though Arnold is given the title of the father of modern literary criticism, he has a number of limitations too. His first and foremost limitation is that he has even shown the significance of Keats’ sentimental letters to Fenny Browne. He is not a critic but a satirical critic and he has provided decisions too quickly. He cannot see and even realize the beauty and significance of lyricism or lyrical poems due to his blindness and adoration of classicism. His lack of historical sense is another failing and his touchstone method is not out and out perfect.

সমালোচক হিসাবে আর্নল্ডের সীমাবদ্ধতা

যদিও আর্নল্ডকে আধুনিক সাহিত্য সমালোচনার জনক উপাধি দেওয়া হলেও তাঁরও অনেকগুলি সীমাবদ্ধতা রয়েছে। তার প্রথম এবং সর্বাধিক সীমাবদ্ধতা হ’ল তিনি ফেনি ব্রাউনকে কীটসের সংবেদনশীল চিঠির তাত্পর্যও দেখিয়েছেন। তিনি কোনও সমালোচক নয় বরং একটি ব্যঙ্গাত্মক সমালোচক এবং তিনি খুব দ্রুত সিদ্ধান্তও দিয়েছেন। তিনি অন্ধত্ব এবং ক্ল্যাসিকিজমের উপাসনার কারণে গীতিকাব্য বা গীতিকার কবিতার সৌন্দর্য এবং তাৎপর্য  দেখতে এবং বুঝতেও পারেন না। তাঁর ঐতিহাসিক  বোধের অভাব আরেকটি ব্যর্থতা এবং তার টাচস্টোন পদ্ধতিটি পুরোপুরি  সঠিক নয়।

Conclusion: From the light of the above discussion, it can be said that Arnold has fixed his position in the rich galaxy of English critic-poet particularly for his “The Study of Poetry”. The critics like T. S. Eliot have been influenced by him too and Scott James has compared him to Aristotle in spite of having criticism.

3. Discuss the two-fold meaning of culture.

Or, how does Edward W. Said show culture as an instrument of imperialism?

Introduction: Edward W. Said (1935-2003) is considered to be one of the illustrious critics and philosophers of the late 20th century who has expounded the most critical concept in his collection of essays “Introduction to Culture and Imperialism” published in 1993 that there is a very subtle relationship between culture and imperialism. He looks into the relationship between culture and imperialism from a different angle as he has got different instruments of culture for imperialism.

ভূমিকা: Edward W. Said (1935-2003) বিশ শতকের শেষের দিকের অন্যতম বিশিষ্ট সমালোচক এবং দার্শনিক হিসাবে পরিচিত যিনি ১৯৯৩ সালে প্রকাশিত তাঁর রচনামূলক সংকলন “Introduction to Culture and Imperialism”-এ সবচেয়ে সমালোচনামূলক ধারণাটি ব্যাখ্যা করেছেন যেটি হলো সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদের মধ্যে একটি খুব সূক্ষ্ম সম্পর্ক রয়েছে । তিনি সাম্রাজ্যবাদের জন্য সংস্কৃতির বিভিন্ন ইনস্ট্রুমেন্ট পেয়েছেন বলে সংস্কৃতি এবং সাম্রাজ্যবাদের মধ্যকার সম্পর্ককে একটি ভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে দেখেন ।

Fundamental concept on culture

For well understand “culture as an instrument of imperialism”, it is needed to go into deeply. First of all, the aspects of culture should be clarified. According to Edward Said, culture means two things in particular. It primarily means practices of arts and aesthetic forms. Secondly, culture is a concept of refining and elevating elements and reservoirs of the best in accordance with what Matthew Arnold said in the 1860s. This fundamental concept of culture provides information that the natives of India, Africa, America, and so on could not preserve their arts and aesthetic forms that this why the imperialists could be able to be aggressive and search for so-called civilization.

সংস্কৃতি সম্পর্কে মৌলিক ধারণা

সংস্কৃতিকে সাম্রাজ্যবাদের একটি ইনস্ট্রুমেন্ট হিসাবে ভালো করে বোঝার জন্য, এর গভীরে যাওয়া প্রয়োজন । প্রথমত, সংস্কৃতির দিকগুলো জানা উচিত। Edward Said-এর মতে, সংস্কৃতির অর্থ বলতে বিশেষত দুইটি জিনিস বোঝায় । প্রধানত এর অর্থ হলো চারুকলা এবং নান্দনিক বিন্যাসের অনুশীলন । দ্বিতীয়ত, ১৮৬০-এর দশকে Matthew Arnold যেমন বলেছিলেন যে সংস্কৃতি হলো বিশোধন এবং উন্নত উপাদান এবং সর্বোত্তম আধারের ধারণা । সংস্কৃতির এই মৌলিক ধারণাটি এমন তথ্য সরবরাহ করে যে ভারত, আফ্রিকা, আমেরিকা ইত্যাদি স্থানীয় নাগরিকরা তাদের শিল্পকলা এবং নান্দনিক বিন্যাসগুলোর সংরক্ষণ করতে পারেনি যার কারণে সাম্রাজ্যবাদীরা তথাকথিত সভ্যতার জন্য আক্রমণাত্মক হতে এবং অনুসন্ধান করতে সক্ষম হয়েছিল ।

Fragile culture of the natives

 At the very outset of the essay, Said says that the culture of the third world is very fragile which was the strength of the imperialists. The imperialists always left contest among the natives. Said considers that supine or inert natives were the main strength of the imperialists.

“These two factors-a general worldwide pattern of the imperial culture

and a historical experience of resistance against empire”

Besides, the critic mentions that the people of the third world are mean-minded and conservative. On the other hand, the imperialists are so conceived and concerned. Thus, the culture of the overseas colonies became the instrument for the imperialists.

স্থানীয়দের দুর্বল সংস্কৃতি

প্রবন্ধের একেবারে শুরুতে Said বলেছেন যে তৃতীয় বিশ্বের সংস্কৃতি অত্যন্ত নাজুক যা ছিল সাম্রাজ্যবাদীদের শক্তি । সাম্রাজ্যবাদীরা সর্বদা স্থানীয়দের মধ্যে প্রতিযোগিতা সৃষ্টি করতো । Said বলেছেন যে সুপাইন বা জড় দেশীয়রা ছিল সাম্রাজ্যবাদীদের প্রধান শক্তি.

এই দুটি কারণ- সাম্রাজ্য সংস্কৃতির এক বিশ্বব্যাপী প্যাটার্ন

এবং সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে প্রতিরোধের একটি ঐতিহাসিক অভিজ্ঞতা”

পাশাপাশি, সমালোচকরা উল্লেখ করেছেন যে তৃতীয় বিশ্বের মানুষরা নীচমনা এবং রক্ষণশীল ছিল । অন্যদিকে, সাম্রাজ্যবাদীরা খুবই সুদূরপ্রসারী এবং উদ্বিগ্ন ছিল । এইভাবে, বিদেশী উপনিবেশগুলির সংস্কৃতি সাম্রাজ্যবাদীদের হাতিয়ারে পরিণত হয়েছিল ।

Ethical power of culture

The imperialists of Britain and France were the so-called light bearers and makers of civilization. They went to spread the light of education and religion that was not only so-called but also namely to make the people of overseas colonies fool. In Said’s analysis, the search of trade and commerce and civilizing missions in India and Africa provided an ethical power to the colonialists but they went to the countries for looting and dominating. Despite this, they were unquestionable to the international community for almost two centuries due to their surface motives of civilizing and trade and commerce. Hence Said suggests checking culture before the entrance.

“Culture conceived in this way can become a protective enclosure:

check your politics at the door before you enter it.”

সংস্কৃতির নৈতিক শক্তি

ব্রিটেন এবং ফ্রান্সের সাম্রাজ্যবাদীদের তথাকথিত আলোক বহনকারী এবং সভ্যতার নির্মাতা বলা হতো । তারা শিক্ষা এবং ধর্মের আলো ছড়িয়ে দিতে গিয়েছিল যা কেবল তথাকথিতই ছিল না বরং বিদেশী উপনিবেশের জনগণকে বোকা বানানোর উদ্দেশ্য সৃষ্টি করেছিল । Said-এর বিশ্লেষণে, ভারত ও আফ্রিকার ট্রেড, কমার্স এবং সভ্যতার অনুসন্ধানগুলো উপনিবেশবাদীদের নৈতিক শক্তি প্রদান করেছিল কিন্তু তারা লুটপাট এবং আধিপত্যের জন্য দেশগুলোতে গিয়েছিল । তা সত্ত্বেও, সভ্যতা, ট্রেড ও কমার্সের উদ্দেশ্যগুলোর কারণে তারা প্রায় দুই শতাব্দী ধরে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে সন্দেহাতীত ছিল । তাই Said সংস্কৃতিতে প্রবেশের আগে তা যাচাই করার পরামর্শ দেন।

“এইভাবে কল্পনা করা সংস্কৃতি একটি প্রতিরক্ষামূলক ঘেরে পরিণত হতে পারে:

আপনার রাজনীতিতে প্রবেশের আগে তা যাচাই করে দেখুন ।”

Literature as an institution of culture

It is universally accepted that literature is the mirror of society. Said opines through poetry, fiction, and philosophy teach how to practice and venerate culture, they discourse colonialism in an indirectly deep way. As a result, most professional humanists have been unable to connect between the prolonged practice of imperialism and the culture of literature. Here in this essay, Said especially talks about narrative fiction, novels, which play a vital role in the expansion of imperialism in the camouflage of culture.

“In thinking of Carlyle or Ruskin, or even Dickens and Thackeray, critics have often,

I believe, relegated these writers’ ideas about colonial expansion,”

He gives evidence by mentioning and illustrating sundry novels such as “Great Expectations” (1861) by Charles Dickens (1812-1870) which is primarily a novel of self-delusion or misconception about oneself but deeply it is a rogue one of practicing penal colony in Australia. “Nostromo” published in 1904 by Joseph Conrad (1857-1924) regarding the proliferation and malformation of imperialism in the South American Republic allows the readers to see that imperialism is a system. Therefore, literary culture is an instrument of imperialism.

সংস্কৃতির একটি প্রতিষ্ঠান হিসাবে সাহিত্য

এটা সর্বজনস্বীকৃত যে সাহিত্যই সমাজের আয়না । Said বলেছেন, যদিও কবিতা, কল্পকাহিনী এবং দর্শন সংস্কৃতি-চর্চা ও সংস্কৃতিকে শ্রদ্ধা করতে শেখায়, তারা উপনিবেশবাদকে পরোক্ষভাবে গভীর উপায়ে আলোচনা করে । ফলস্বরূপ, বেশিরভাগ পেশাদার মানবতাবাদীরা দীর্ঘকাল সাম্রাজ্যবাদের চর্চা এবং সাহিত্যের সংস্কৃতির মধ্যে সংযোগ স্থাপন করতে অক্ষম হয়েছে । এখানে এই প্রবন্ধে, Said বিশেষত বর্ণনামূলক কল্পকাহিনী, উপন্যাস সম্পর্কে কথা বলেছেন যেগুলো সংস্কৃতির ছদ্মবেশে সাম্রাজ্যবাদের প্রসারের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ।

“Carlyle বা Ruskin, এমনকি Dickens এবং Thackerayর কথা ভেবে সমালোচকরা প্রায়শই,

আমি বিশ্বাস করি, এই লেখকদের ধারণাকে উপনিবেশিক প্রসারের উপর ন্যস্ত করেছেন,”

তিনি Charles Dickens (1812-1870) রচিত “Great Expectations” (1861) -এর মতো স্বতন্ত্র উপন্যাসগুলো উল্লেখ এবং বিশ্লেষণ করে প্রমাণ দিয়েছেন যা মূলত নিজের সম্পর্কে বিভ্রান্তি বা ভুল ধারণা ধারণার একটি উপন্যাস তবে গভীরভাবে এটি অস্ট্রেলিয়ায় পেনাল কলোনী অনুশীলনকারীদের মধ্যে অন্যতম প্রতারক । ১৯০৪ সালে প্রকাশিত Joseph Conrad (1857-1924)-এর  “Nostromo” দক্ষিণ আমেরিকা প্রজাতন্ত্রের সাম্রাজ্যবাদের বিস্তার ও বিকৃতি সম্পর্কে পাঠকদের কাছে তুলে ধরে যে সাম্রাজ্যবাদ একটি ব্যবস্থা। এইজন্য সাহিত্য সংস্কৃতি সাম্রাজ্যবাদের একটি উপকরণ ।

Immigrating culture

Immigrating culture is an instrument of post-colonial capitalism. Edward Said relates that imperialism exists even in 20th century but not in shape of 18th and 19th centuries because in fine of the essay he asserts:

“This is a book about past and present, about us and them.”

It has changed its fervidity and character through capitalism and globalization process. The people of third world are immigrating to the capitalists’ countries in search of better fortunes that is also a strong token of subservience and separation.

সংস্কৃতির অভিবাসন

উপনিবেশিক পুঁজিবাদের একটি উপকরণ হলো ইমিগ্র্যাটিং সংস্কৃতি। Edward Said বর্ণনা করেছেন যে সাম্রাজ্যবাদ বিংশ শতাব্দীতেও বিদ্যমান তবে ১৮ এবং ১৯ শতকের মতো নয় কারণ তিনি রচনাটিতে বলেছেন:

“এটি আমাদের এবং তাদের অতীত ও বর্তমান সম্পর্কে একটি বই ।”

এটি পুঁজিবাদ এবং বিশ্বায়ন প্রক্রিয়াটির মাধ্যমে তার বেহায়াপনা ও চরিত্রকে পরিবর্তন করেছে । তৃতীয় বিশ্বের লোকেরা আরও বেশি ভাগ্যের সন্ধানে পুঁজিপতিদের দেশগুলিতে অভিবাসিত হচ্ছে যা আজ্ঞাবহতা ও বিচ্ছিন্নতার দৃঢ়তম প্রতীক ।

Conclusion: To sum up, Edward Said is such a genius who reveals the secret of improved culture as the instrument of imperialism and capitalism in a convincing and fabulous way so that the countries of this universe can enjoy freedom and sovereignty being aware of culture.

4.  How does Eagleton evaluate the Romantics? Discuss.

Introduction: Terry Eagleton (1943- ) in his “The Rise of English” represents that the modern sense of the word “Literature” started in the nineteenth century. The Romantic period (1798-1832) was the mark of transition or change that is why the true definition of literature began to develop in this period.

ভূমিকা: টেরি ইগলটন (1943-) তাঁর “দা রাইস অফ ইংলিশ” -এ উপস্থাপন করেছেন যে “সাহিত্য” শব্দের আধুনিক উপলব্ধি উনিশ শতকে শুরু হয়েছিল । রোমান্টিক সময়কাল (1798-1832) ছিল রূপান্তর বা পরিবর্তনের নিদর্শন এই জন্যই এই সময়ের মধ্যে সাহিত্যের আসল সংজ্ঞার বিকাশ শুরু হয়েছিল ।

The implementor of modern English literature

In the third para of the essay, the essayist has upheld the modern sense of literature. According to him, “literature is a historically recent phenomenon: it was invented sometime around the turn of the eighteen century and would have thought extremely strange by Chaucer (1343-1400) and even Pope (1688-1744)”. By this Eagleton means to say that the modernity of English literature started in the middle English period by the hand of Geoffrey Chaucer who is considered to be the father of English poetry but it was really incomplete and Chaucer was only the seeder of modernity. By the second part of the modern sense of literature, Eagleton implies that the true modern sense of English literature started positively in the eighteenth Century but this time was also incomplete, but better than that of Chaucer, as creative or imaginative literary work was so-called. So, till the final decades of eighteenth century true modern sense of literature was not completed.

আধুনিক ইংরেজি সাহিত্যের প্রয়োগকারী

প্রবন্ধের তৃতীয় অনুচ্ছেদে প্রবন্ধকার সাহিত্যের আধুনিক বোধকে সমর্থন করেছেন । তাঁর মতে, “সাহিত্য ঐতিহাসিকভাবে একটি সাম্প্রতিক ঘটনা: এটি আঠারো শতকের শেষের দিকে আবিষ্কার করা হয়েছিল এবং চসার  (১৩৩৪-১৪০০) এমনকি পোপ (১88৮৮-১4৪৪) দ্বারা এটি অত্যন্ত বিস্ময়কর বলে মনে হত” । এটি দ্বারা  ইগলটন বলতে চায় যে ইংরেজি সাহিত্যের আধুনিকতা মধ্য ইংরেজি সময় থেকেই শুরু হয়েছিল জিওফ্রে চসারের হাত ধরে যাকে ইংরেজি কবিতার জনক হিসাবে বিবেচনা করা হয় তবে এটি সত্যিই অসম্পুর্ণ ছিল এবং চসারই কেবল আধুনিকতার বীজবপক ছিলেন । সাহিত্যের আধুনিক বোধের দ্বিতীয় অংশের মাধ্যমে, ইগলটন  ইঙ্গিত দেয় যে ইংরেজী সাহিত্যের সত্যিকারের আধুনিক জ্ঞানটি আঠারো শতকে ইতিবাচকভাবে শুরু হয়েছিল তবে এই সময়টিও অসম্পূর্ণ ছিল, তবে চসারের চেয়েও ভাল, কারণ সৃজনশীল বা কল্পনাপ্রসূত সাহিত্যকর্ম ছিল তথাকথিত । সুতরাং, আঠারো শতকের চূড়ান্ত দশক পর্যন্ত সাহিত্যের সত্যিকারের আধুনিক জ্ঞান সম্পন্ন হয়নি ।

Violator of the tradition with creativity

He points out that the final decades of the eighteen Century witnessed a new division and demarcation or indication of limitation of discourses. He mentions that English society got reorganized from the discursive or chaotic formation. Poetry comes to mean a good deal more than a verse when “Defence of Poetry”, composed by P. B. Shelley (1792-1821), was published in 1821. “Defence of Poetry” signifies a concept of human creativity that is radically opposite to the utilitarian ideology of early industrial capitalist England. This means that literature began to be synonymous with the imaginative that means to violate the tradition of poetry writing.

সৃজনশীলতার সাথে ঐতিহ্যের লঙ্ঘনকারী

তিনি উল্লেখ করেছেন যে আঠারো শতকের শেষ দশকগুলি সাক্ষ্য দেয়  একটি নতুন বিভাগের এবং সীমানা বা বক্তৃতার সীমাবদ্ধতার ইঙ্গিত দেয় । তিনি উল্লেখ করেছেন যে ইংরেজী সমাজ গঠিত হয়েছিল  বিচ্ছিন্ন বা বিশৃঙ্খলাবদ্ধ গঠন থেকে । কবিতা বলতে পদ্যের চেয়ে একটি ভাল চুক্তিকে বোঝায় যখন পি বি শেলি (1792-1821) দ্বারা রচিত “ডিফেন্স অফ পোয়েট্রি” প্রকাশিত হয়েছিল 1821 সালে । “ডিফেন্স অফ পোয়েট্রি” মানব সৃজনশীলতার ধারণাকে গুরুত্ব দেয় যা সম্পূর্ণরূপে বিপরীত প্রাথমিক শিল্প পুঁজিবাদী ইংল্যান্ডের উপযোগবাদী আদর্শের বিপরীত । এর অর্থ হ’ল সাহিত্যটি কল্পনার সমার্থক হতে শুরু করেছিল যার অর্থ কবিতা লেখার ঐতিহ্য লঙ্ঘন করা ।

Visionary and inventive thinker

Eagleton then illustrates that the term imaginative does not mean literary untrue. It actually means visionary and inventive thinking and creative power that is really scientific. He asserts that the imaginative vision of the Romantics is above the merely prosaic discourses. He also reminds us that only factual dramatic events cannot be the subject – matter for poetry or the creative one. Therefore, poetry which meant imagination in the Romantic Period was obviously over prose or ‘hard fact’.

দর্শনীয় এবং উদ্ভাবক চিন্তাবিদ

ইগলটন তখন ব্যাখ্যা করেছেন যে কল্পিত শব্দটির অর্থ সাহিত্যিক অসত্য নয়।আসলে এটির অর্থ স্বপ্নদর্শন এবং উদ্ভাবক চিন্তাভাবনা এবং সৃজনশীল শক্তি যা সত্যই বৈজ্ঞানিক । তিনি দৃঢ়ভাবে দাবি করেছেন যে রোমান্টিকসের কল্পিত দৃষ্টি কেবল গতানুগতিক বক্তৃতা ছাড়াই । তিনি আরও মনে করিয়ে দেন যে কেবল বাস্তবিক নাটকীয় ঘটনাগুলিই বিষয় হতে পারে না – কবিতা বা সৃজনশীলতার জন্য বিষয় । সুতরাং, কবিতা যার অর্থ রোম্যান্টিক সময়কালের কল্পনা স্পষ্টতই গদ্য বা ‘কঠিন সত্য’ এর ওপরে ছিল ।

The introducer of aesthetic experience

He considers the Romantics to be the introducer of the ideas of the symbol and aesthetic experience in the modern English literature. He mentions the name of Coleridge side by side Kant Hegel, Schiller and others. Eagleton also mentions that the over-emphasis on aesthetic form and imaginative vision runs the risk of making literature a little isolated from social life. Thus, though literature gained its modern look for the first time in Romantic Period, it also got alienated from the realistic traits of the social events.

নান্দনিক অভিজ্ঞতার পরিচয়দাতা

তিনি আধুনিক ইংরেজি সাহিত্যের  প্রতীক এবং নান্দনিক অভিজ্ঞতার ধারণার প্রবর্তক হিসাবে রোমান্টিকদের বিবেচনা করেন । তিনি কোলরিজ এর  পাশাপাশি ক্যান্ট হেগেল, শিলার প্রমুখের নাম উল্লেখ করেছেন । ইগলটন আরও উল্লেখ করেছেন যে নান্দনিক রূপ এবং কাল্পনিক দৃষ্টিভঙ্গির অত্যধিক জোর সাহিত্যকে সামাজিক জীবন থেকে কিছুটা বিচ্ছিন্ন করার ঝুঁকিতে । সুতরাং, যদিও রোম্যান্টিক পিরিয়ডে সাহিত্য প্রথমবারের মতো আধুনিক চেহারা অর্জন করেছিল, তবে এটি সামাজিক ঘটনাগুলির বাস্তব বৈশিষ্ট্য থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে ।

Conclusion: From the light of the above discussion, it is out and out neat and clean that Terry Eagleton evaluates the Romantics as the first complete modernists in the history of English literature.

5. How does Eliot refute Johnson’s remark on the poet whom he classified as metaphysical?

Introduction: T. S. Eliot (1888-1965) is a celebrated poet critic and philosopher of the 20th century who has never been criticized as a critic in his lifetime and after his death even till now. He is a discoverer and defender in English literary criticism as he has defended and classified the so-called metaphysical poets.

ভূমিকা: টি এস এলিয়ট (1888-1965) ২০ শতকের একজন খ্যাতিমান কবি, সমালোচক এবং দার্শনিক যিনি তাঁর জীবদ্দশায় এবং তাঁর মৃত্যুর পরেও এখনও সমালোচক হিসাবে সমালোচিত হন নি। তিনি তথাকথিত মেটাফিজিক্যাল কবিদের প্রতিরক্ষা এবং শ্রেণিবদ্ধ করেছেন বলে তিনি ইংরেজী সাহিত্যের সমালোচনায় একজন আবিষ্কারক এবং রক্ষাকর্তা।

Origin of crude criticism against metaphysical poets

The term “metaphysical poets” has been criticized by critics from time to time in the history of English literature. This term was first rebuked by Dryden in 1692 and later by Samuel Johnson. The remark or observation of Dryden and Johnson on Donne is:

“Metaphysics as a pretense Donne boasted his erudition or wisdom.

Even with syllables and rime, not poet but mere technician.”

In the modern period, Professor Grierson’s book “Metaphysical Lyrics and Poems of the Seventeenth Century: Donne to Butler (1921) is a piece of criticism and provocation of criticism for metaphysical poets. But for the first time, T. S. Eliot comes forward to defend and recognize the so-called metaphysical poets.

মেটাফিজিক্যাল কবিদের বিরুদ্ধে অপরিশোধিত সমালোচনার উত্পত্তি

ইংরেজী সাহিত্যের ইতিহাসে “মেটাফিজিক্যাল কবি ” শব্দটি সমালোচকদের দ্বারা সময়ে সময়ে সমালোচিত হয়েছিল। এই শব্দটি প্রথমে 1692 সালে ড্রাইডেন এবং পরে স্যামুয়েল জনসন দ্বারা সোমালোচনা করা হয়েছিল। জন ডানের ওপরে  ড্রাইডেন ও জনসনের মন্তব্য বা পর্যবেক্ষণটি হ’ল:

মেটাফিজিক্স এর প্রতারক হিসাবে Donne তার বুদ্ধি বা প্রজ্ঞা নিয়ে অহংকার করেছিলেন। এমনকি সিলেবল এবং রাইম দিয়ে কবি নয় বরং নিছক প্রযুক্তিবিদ।”

আধুনিক যুগে, অধ্যাপক গিয়ারসনের বই “Metaphysical Lyrics and Poems of the Seventeenth Century: Donne to Butler” (১৯২১) মেটাফিজিক্যাল কবিদের জন্য সমালোচনা ও উস্কানি দেওয়ার একটি  সমালোচনার অংশ। কিন্তু প্রথমবারের মতো টি এস এলিয়ট মেটাফিজিক্যাল কবিদের রক্ষা করার জন্য এগিয়ে এসেছিলেন এবং তথাকথিত মেটাফিজিক্যাল কবিদের স্বীকৃতি দান করেছিলেন।

Objections of Samuel Johnson (1709-1784)

Before going to present Eliot’s defending arguments, the objections of Johnson against metaphysical poets should be learned. The objections are:

  1. Metaphysical poetry has long done duty as a term of abuse, or as the label of quaint and pleasant taste.
  2. The most heterogeneous ideas are yoked by violence together, or divers in character or content.
  3. Inventive use of conceit.
  4. Loose structure of poetry.

স্যামুয়েল জনসনের আপত্তি

এলিয়টের প্রতিরক্ষা যুক্তি উপস্থাপন করার আগে মেটাফিজিক্যাল কবিদের বিরুদ্ধে জনসনের আপত্তিগুলি জানতে হবে। আপত্তিগুলি হল:

  1. রূপক কবিতা দীর্ঘকাল ধরে অপব্যবহারের শব্দ হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছে, বা উদাসীন এবং মনোরম স্বাদ লেবেল হিসাবে।
  2. বিভিন্ন ধারণাগুলিকে জোর করে একসাথে জুড়ে দেয়া হয়েছে যা চরিত্র বা বিষয়বস্তুতে আলাদা।
  3. কন্সিত এর ব্যবহার করেছে।
  4. কবিতাতে লুস স্ট্রাকচার ব্যবহার করেছে।

Protecting logics of T.S. Eliot

It is true that Eliot has pointed out some arguments against Johnson and also refuted him not to censure but only to defend metaphysical poets or nothing else. Eliot’s logics are here.

টি এস এলিয়ট এর রক্ষণীয় যুক্তিগুলো

এটা সত্য যে এলিয়ট জনসনের বিরুদ্ধে কিছু যুক্তি দেখিয়েছেন এবং তাকে তিরস্কার করার জন্য এই ব্যাখ্যা করেন নি, কেবলমাত্র মেটাফিজিক্যাল কবিদের রক্ষা করার জন্যই। এখানে, এলিয়টের যুক্তিগুলো তুলে ধরা হলো:

Extremely difficult to define metaphysical poetry

Eliot’s first and foremost defending argument is that it is extremely crux to define metaphysical poetry and decide what poets practice it. The poetry of Donne and Marvell is very close to late Elizabethan poet and translator Chapman in respect of feeling. Romantic and devotional verses of Cristiana Rossetti and mystic verses Francis Thompson, both belonged to the Victorian period, are really similar to the devotional verse of Vaughan, Herbert, and Crashaw. Thus, Eliot opines that metaphysical concept in writing poetry is the fundamental.

মেটাফিজিক্যাল কবিতা সংজ্ঞায়িত করা অত্যন্ত কঠিন

এলিয়টের প্রথম এবং সর্বাধিক সুরক্ষিত যুক্তি হ’ল মেটাফিজিক্যাল কবিতা সংজ্ঞায়িত করা এবং কবিরা কী অনুশীলন করে তা স্থির করে নেওয়া অত্যন্ত কঠিন। ডান এবং মারভেলের কবিতার অনুভূতির ক্ষেত্রে প্রায় এলিজাবেদান কবি ও অনুবাদক চ্যাপম্যানের সাথে মিলে যায়। ক্রিশ্চিয়ানা রোসেট্তির রোমান্টিক এবং ভক্তিমূলক শ্লোক এবং মরমী শ্লোক ফ্রান্সিস থম্পসন, উভয়ই ভিক্টোরিয় যুগের অন্তর্ভুক্ত, ভান, হারবার্ট এবং ক্র্যাশ-এর ভক্তিমূলক শ্লোকের সাথে সত্যই মিলে যায়। সুতরাং, এলিয়ট মন্তব্য করেছেন যে, কবিতা লেখার ক্ষেত্রে মেটাফিজিক্যাল ধারণাটি একটি মৌলিক ধারণা।

Use of figure of speech

Johnson criticizes metaphysical poets for their use of so-called inventive conceit. Eliot opines that it is difficult to find any precise or particular use of simile, metaphor, or other conceit because the use of the figure of speech is common to all poets and at the same time important enough as an element of style. Therefore, it is exactly futile to isolate metaphysical poets as a loose group based on only the use of conceit.

ফিগার অফ স্পীচ এর বাবহার

জনসন তথাকথিত উদ্ভাবনী কন্সিত ব্যবহারের জন্য মেটাফিজিক্যাল কবিদের সমালোচনা করেছেন। এলিয়ট ব্যাখ্যা করেছেন যে উপমা, রূপক বা অন্যান্য অনুমানের নির্দিষ্ট বা নির্দিষ্ট ব্যবহার সন্ধান করা কঠিন কারণ বক্তৃতার চিত্রের ব্যবহার সমস্ত কবিদের কাছে সাধারণ এবং একই সাথে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ উপাদানের ধরণ হিসাবে। সুতরাং, কেবল শুধুমাত্র কন্সিত ব্যবহারের ভিত্তিতে মেটাফিজিক্যাল কবিদের একটি আলগা দল হিসাবে বিচ্ছিন্ন করা একেবারে নিরর্থক।

The most heterogeneous ideas yoked by violence together

Eliot confesses that it is a fact that often the ideas are yoked and not united in metaphysical poetry. But he asserts that it is a matter of omnipresence in poetry. He cites the example of a French poet to justify this and also relates that Johnson himself is not free from this fault. “The Vanity of Human Wishes” is a poem by Johnson is the best example of heterogeneous ideas yoked violently together. Eliot presents four lines of the poem of Johnson as evidence:

“His fate was destined to barren strand,

A petty fortress, and dubious hand;

He left a name at which the world grew pale,

To point a moral, or adorn a tale,”

বিভিন্ন ধারণাগুলিকে জোর করে একসাথে জুড়ে দেয়া

এলিয়ট স্বীকার করেছেন যে এটি এমন একটি সত্য যে প্রায় ধারণাগুলি একত্র করা হয় শুধুমাত্র মেটাফিজিক্যাল কবিতাতেই একত্রিত হয় না। তবে তিনি দৃহ ভাবে বলেছেন যে এটি কবিতায় সর্বব্যাপী একটি বিষয়। তিনি এটিকে ন্যায়সঙ্গত করার জন্য ফরাসি কবির উদাহরণ উল্লেখ করেছেন এবং জনসন নিজেও এই দোষ থেকে মুক্ত নয় বলে উল্লেখ করেছেন। জনসনের একটি কবিতা “হিউম্যান ইচ্ছার ভ্যানিটি” হল একসাথে হিংসাত্মকভাবে জোড়ালো ভিন্ন ভিন্ন ধারণার সর্বোত্তম উদাহরণ।  এলিয়ট প্রমাণ হিসাবে জনসনের কবিতার চারটি লাইন উপস্থাপন করেছেন:

তাঁর ভাগ্য নির্ধারিত ছিল বন্ধ্যা কান্ডের,

একটি ক্ষুদ্র দুর্গ, এবং সন্দেহজনক হাত;

তিনি একটি নাম রেখেছিলেন যেখানে বিশ্ব ম্লান হয়ে গেছে,

একটি নৈতিক নির্দেশ, বা একটি গল্প শোভাকর, “

Defense of miscellaneous objections

Beside these objections, Eliot has refuted other objections of Johnson as to metaphysical poets. He strongly says that Johnson’s general observation on the metaphysical poets in his essay “The Life of Cowley” is often fit but the language of the prescribed poets is simple, clear and elegant and their thought and feeling are unified very close to the modern poets.

Johnson objects that metaphysical poets’ attempts were always analytic but Eliot would not agree with Johnson because the dramatist of late Elizabethan period was extremely analytical. Here Eliot especially mentions Cristopher Marlowe who was man of superb erudition like metaphysical poets from analytic perspective. Thus, Eliot shows that metaphysical poets were the successor of Elizabethan dramatists.

বিবিধ আপত্তি প্রতিরক্ষা

এই আপত্তিগুলির পাশাপাশি, এলিয়ট জনসনের অন্যান্য আপত্তিগুলিকে মেটাফিজিক্যাল কবি হিসাবে অস্বীকার করেছেন। তিনি দৃহতার সাথে বলেছেন যে জনসনের তাঁর রচনা “The Life of Cowley”  মেটাফিজিক্যাল কবিদের সম্পর্কে সাধারণ পর্যবেক্ষণ প্রায় মিলে যায়  তবে নির্ধারিত কবিদের ভাষা সহজ, স্পষ্ট এবং মার্জিত এবং তাদের চিন্তাভাবনা এবং অনুভূতি আধুনিক কবিদের সাথে একত্রিত হয়েছে।

জনসন অভিযোগ করে যে মেটাফিজিক্যাল কবিদের প্রচেষ্টা সর্বদা বিশ্লেষণাত্মক ছিল তবে এলিয়ট জনসনের সাথে একমত হবেন না কারণ এলিজাবেদান যুগের শেষের নাট্যকার অত্যন্ত বিশ্লেষণাত্মক ছিলেন। এখানে এলিয়ট বিশেষ করে ক্রিস্টোফার মারলোকে উল্লেখ করেছেন যিনি বিশ্লেষণাত্মক দৃষ্টিকোণ থেকে মেটাফিজিক্যাল কবিদের মতো দুর্দান্ত জ্ঞানি  ছিলেন। সুতরাং, এলিয়ট দেখায় যে মেটাফিজিক্যাল কবিরা ছিলেন এলিজাবেথন নাট্যকারদের উত্তরসূরি।

Conclusion: Now, it may be said that Johnson failed to define metaphysical poetry by its faults but Eliot also asserts that we must not reject the criticism of Johnson who is a dangerous person to disagree with.

6. Discuss the role of the English novels in perpetuating imperial rule.

Introduction: The English novels which have been scrutinized by Edward Wadie Said (1935-2003) for the first time in the history of English literature have duality. He blazons that the primary purpose of novels is to learn the cultural forms pleasurably and lucratively. Second, they have played a gigantic role in the formation of sustainable imperial attitudes, references, and experiences.

ভূমিকা: ইংরেজি সাহিত্যের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো এডওয়ার্ড ওয়েডি সাইদ (১৯৩৫-২০০৩) যে ইংরেজি উপন্যাসগুলি যাচাই-বাছাই করেছে তাদের দ্বৈততা রয়েছে। তিনি ঘোষণা করেন যে উপন্যাসের প্রাথমিক উদ্দেশ্য হ’ল সাংস্কৃতিক রূপগুলি আনন্দদায়ক এবং লাভজনকভাবে শেখা। দ্বিতীয়ত, এগুলো স্থায়ীভাবে সাম্রাজ্যবাদী মনোভাব, প্রসঙ্গ এবং অভিজ্ঞতা গঠনে বিশাল ভূমিকা পালন করে।

Divers role of English novels:

Mr. Said alludes sundry role of English novels in his international essay “Introduction to Culture and Imperialism”, 1993, which is illustrated here by pointing out with sufficient references from the essay.

ইংরেজি উপন্যাসগুলির একাধিক ভূমিকা:

মিঃ সাইদ তাঁর আন্তর্জাতিক প্রবন্ধ “Introduction to Culture and Imperialism”, এ ইংরেজী উপন্যাসগুলির স্বতন্ত্র ভূমিকার ইঙ্গিত দিয়েছেন, যা এখানে আলোচনা করা হলো এই প্রবন্ধ থেকে পর্যাপ্ত  দৃষ্টান্ত সহকারে।

Exploration of strange regions:

 As it is known that the main battle of imperialism is over land and overlapping the land. The English novelists, side by side explorers, say about strange regions of the world and also represent the cultural habit of people of that very land so that imperialism functions well after trespassing. For this, Said has referred to the prototypical modern novel “Robinson Crusoe.” Thus, English novels are inevitable for colonial expansion and perpetuation in accordance with Edward Said.

অদ্ভুত অঞ্চলগুলির অনুসন্ধান:

যেমনটি জানা যায় যে সাম্রাজ্যবাদের মূল যুদ্ধটি দেশ নিয়ে এবং দেশটিকে দখল করার জন্য। অনুসন্ধান এর পাশাপাশি, ইংরেজ উপন্যাসিকরা বিশ্বের অদ্ভুত দেশগুলি সম্পর্কে বলেছেন এবং সেই দেশের লোকদের সাংস্কৃতিক অভ্যাসেরও প্রতিনিধিত্ব করেছেন যাতে সাম্রাজ্যবাদ দোষারোপ করার পরে ভালভাবে কাজ করে। এর জন্য, সাইড প্রোটোটাইপিকাল আধুনিক উপন্যাস “রবিনসন ক্রুসো” উল্লেখ করেছেন।সুতরাং, এডওয়ার্ড সাইদ মতে, সাম্রাজ্যবাদ বিস্তার এবং স্থায়ীত্বের জন্য ইংরেজি উপন্যাসগুলি অনিবার্য।

Psychological study:

 No other branches of knowledge do well as narrative fiction does in discovering xenophobia. The word xenophobia refers to dislike of foreigners or racial intolerance. By discussing this term, English novels inform imperialists to be conscious. Such discovery is helpful for the newly appointed inexperienced imperialists to understand natives amply. Such divers’ psychological studies are found in English novels that assist imperialism to hold down. In David Copperfield (1840s) by Charles Dickens (1812-1870), that it has been shown is quoted by Said in the following way:

“A sort of free system where the lobourers could do well

on their own if allowed to do so.”

মনস্তাত্ত্বিক অধ্যয়ন:

জেনোফোবিয়া আবিষ্কার করতে আধ্যাত্মিক কল্পকাহিনী জ্ঞানের অন্য কোন শাখায় তেমন ভালো কাজ করে না। জেনোফোবিয়া শব্দটি বিদেশী বা জাতিগত অসহিষ্ণুতা অপছন্দকে বোঝায়। এই পদটি নিয়ে আলোচনা করে ইংরেজী উপন্যাসগুলি সাম্রাজ্যবাদীদের সচেতন হতে নির্দেশ দেয়। সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত অনভিজ্ঞ সাম্রাজ্যবাদীদের পক্ষে স্থানীয়দের বোঝতে এ জাতীয় আবিষ্কার সহায়ক। এই জাতীয় বিভিন্ন মনস্তত্ত্বিক বিষয়গুলি ইংলিশ উপন্যাসগুলিতে পাওয়া যায় যা সাম্রাজ্যবাদকে  ধরে রাখতে সহায়তা করে। চার্লস ডিকেন্স (1812-1870) এর  ডেভিড কপারফিল্ডে (1840), এটি দেখানো হয়েছে যে নিম্নলিখিতভাবে সাইডের দ্বারা উদ্ধৃত হয়েছে:

এক ধরণের মুক্ত ব্যবস্থা যেখানে শ্রমিকরা ভাল করতে পারত

তাদের নিজস্বভাবে, যদি এটি করার অনুমতি দেওয়া হতো। “

Britain’s imperial intercourse through trade and travel:

 The British novelists are so cunning that by writing novels they prove that presently imperialism is free from criticism and will remain free from flaw and criticism because the purpose of imperialism was not to dominate but trade and travel. For short space of time, Said only examines two novels, “Great Expectations” by Dickens and “Nostromo” by Joseph Conrad, which are the token of colonial purification and packed with the procedures of establishing penal colony in Australia and powerful and corrupted one in South American Republic. Hence English novels are the advocate for eternality of imperialism.

বাণিজ্য ও ভ্রমণের মাধ্যমে ব্রিটেনের সাম্রাজ্য বিস্তার:

ব্রিটিশ উপন্যাসিকরা এতটাই ধূর্ত যে উপন্যাস লিখে তারা প্রমাণ করেছেন যে বর্তমানে সাম্রাজ্যবাদ সমালোচনা থেকে মুক্ত এবং ত্রুটি-বিচ্যুতি থেকে মুক্ত থাকবে কারণ সাম্রাজ্যবাদের উদ্দেশ্য দাপট নয়, বাণিজ্য ও ভ্রমণ ছিল। অল্প সময়ের জন্য, সাইদ কেবল দুটি উপন্যাস পরীক্ষা করেছেন, ডিকেন্সের “Great Expectations” এবং জোসেফ কনরাডের “Nostromo”, যেগুলি উপনিবেশিক শুদ্ধির চিহ্ন এবং অস্ট্রেলিয়ায় শাস্তিমূলক উপনিবেশ স্থাপনের পদ্ধতিতে প্রস্তুত এবং শক্তিশালী এবং দুর্নীতিগ্রস্থ একটি দক্ষিণ আমেরিকা প্রজাতন্ত্র। সুতরাং ইংরেজী উপন্যাসগুলি সাম্রাজ্যবাদের চিরন্তনতার প্রবক্তা।

La mission civilisatrice or civilizing mission:

Civilizing mission was inaugurated by Portugal and France in 15th century and flourished by Great Britain. According to Edward said, Joseph Conrad is the precursor of the western views of the third world. Conrad’s novel “Nostromo” published in 1904 embodies paternalistic arrogance of imperialism. The term paternalistic arrogance concerns the imperialists that dominate the natives as an intruder providing all kinds of necessities without giving rights and it is noticed that such kind of bloody political thinking is pertinent in the third world even nowadays. He, Joseph Conrad, seems to be saying in the subtle going into of Said.

“We westerners will decide who is a good native or bad,

because all natives have sufficient existence by virtue of our recognition.”

So, the English novels have been able to understand and realize the imperialists that the other name of “la mission civilisatrice” is eternal domination and looting in a non-violent way.

লা মিশন সিভিলিয়াসট্রাইস বা সভ্য মিশন:

সভ্য মিশনটি 15 শতাব্দীতে পর্তুগাল এবং ফ্রান্স দ্বারা উদ্বোধন করা হয়েছিল এবং এটি গ্রেট ব্রিটেনের দ্বারা বিকাশ লাভ করেছিল। এডওয়ার্ডের মতে, জোসেফ কনরাড তৃতীয় বিশ্বের পশ্চিমী দৃষ্টিভঙ্গির অগ্রদূত ছিলেন। 1904 সালে প্রকাশিত কনরাডের উপন্যাস “নস্ট্রোমো” সাম্রাজ্যবাদের পৈতৃক অভিমানকে মূর্ত করেছে। প্যাটার্নালিস্টিক এই শব্দটি সাম্রাজ্যবাদীদের সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ করে যে কোনও অনুপ্রবেশকারী হিসাবে অধিকার না দিয়ে তাদেরকে সমস্ত প্রকারের সরবরাহকারী হিসাবে আধিপত্য বিস্তার করে এবং এটি লক্ষ করা যায় যে আজকাল তৃতীয় বিশ্বে এই জাতীয় রক্তাক্ত রাজনৈতিক চিন্তাভাবনা প্রাসঙ্গিক।

আমরা পশ্চিমারা সিদ্ধান্ত নেব কোন নেটিভ ভাল বা খারাপ,

কারণ আমাদের স্বীকৃতি অনুসারে সমস্ত নেটিভের পর্যাপ্ত অস্তিত্ব আছে। “

সুতরাং, ইংরেজী উপন্যাসগুলি সাম্রাজ্যবাদীদের বুঝতে এবং বুঝতে সক্ষম হয়েছে যে “লা মিশন সিভিলিয়াসট্রাইস” এর অপর নাম অহিংস উপায়ে চিরস্থায়ী আধিপত্য এবং লুটপাট।

Anti-imperialistic view:

Now it must be a question of how the anti-imperialistic view can be an issue of expanding and eternalizing imperialism. It is very interesting to note that Mr. Said has blazoned his mastery to figure out this. In conformity with Said, Conrad’s vilification against imperialism has better concerned the imperialists as to the following facts.

  1. Comprehension of foreign cultures.
  2. Political willingness as alternative to imperialism etc.

That is why Said tells the world:

“To the extent that we see Conrad both criticizing

and reproducing the imperial ideology of his time”

সাম্রাজ্যবাদবিরোধী দৃষ্টিভঙ্গি:

সাম্রাজ্যবাদবিরোধী দৃষ্টিভঙ্গি কীভাবে সাম্রাজ্যবাদের বিস্তৃতি ও চিরস্থায়ীকরণের বিষয় হতে পারে তা এখনই প্রশ্ন হওয়া উচিত। এটা লক্ষণীয় বিষয় যে জনাব সাইদ এই বিষয়টি সনাক্ত করার জন্য তাঁর প্রভুত্বকে ঘোষণা করেছেন। সৈয়দের সাথে সঙ্গতিপূর্ণভাবে, সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে কনরাডের চূড়ান্ত ঘটনা সাম্রাজ্যবাদীদের নিম্নলিখিত বিষয়গুলির সম্পর্কে আরও ভালভাবে প্রকাশ করে।

  • বিদেশী সংস্কৃতির উপলব্ধি
  • সাম্রাজ্যবাদের বিকল্প হিসাবে রাজনৈতিক সদিচ্ছা ইত্যাদি

এই কারণেই সাইদ বিশ্বকে বলে:

কনরাড উভয়কেই সমালোচনা করতে দেখছি

এবং তাঁর সময়ের রাজকীয় আদর্শের পুনরুত্পাদন ”

Conclusion: In termination, it can be simultaneously related that if there is no English novel, there is no perpetuation of imperialism and there is no imperialism, there is no progress of English novel as Dickens is the prolific master of narrative fiction.

7. Discuss how Eagleton links the rise of English to the crisis in modern civilization.

Introduction: Terry Eagleton is a British literary theorist, critic, and public intellectual. “The Rise of English” is one of his critical essays in which he has depicted the significance of literature because of the crisis of modern civilization. From the very outset of the modern sense of literature, modern civilization started to suffer from different types of crises.

ভূমিকা: টেরি ইগলটন হলেন একজন ব্রিটিশ সাহিত্যিক তাত্ত্বিক, সমালোচক এবং বুদ্ধিজীবী। “The Rise of English” তাঁর অন্যতম সমালোচনামূলক প্রবন্ধ যা আধুনিক সভ্যতার সংকটের কারণে তিনি সাহিত্যের তাত্পর্য চিত্রিত করেছেন। আধুনিক সাহিত্যে বোধের সূচনা থেকেই আধুনিক সভ্যতা বিভিন্ন ধরণের সংকটে ভুগতে শুরু করে।

The failure of religion

The first and foremost crisis of modern civilization we get in the essay “The Rise of English” is the failure of religion in the mid-Victorian period. Religion and science became rivals for each other and the twin impacts of science and social change made religion unreliable at the bottom. The Victorian ruling class was worried because it is universally accepted that religion is an effective form of ideological control. Like all successful ideologies, it works much less by explicit concepts than by image, symbol, habit, ritual, and mythology. To save the nation from this crisis English literature came forward and showed its success too.

ধর্মের ব্যর্থতা

আধুনিক সভ্যতার প্রথম এবং সর্বাধিক সংকট যা আমরা “The Rise of English” প্রবন্ধে পাই, এটি হ’ল মধ্য-ভিক্টোরিয়ান সময়কালে ধর্মের ব্যর্থতা। ধর্ম এবং বিজ্ঞান একে অপরের প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে ওঠে এবং বিজ্ঞান এবং সামাজিক পরিবর্তনের দ্বিগুণ প্রভাব ধর্মকে অবিশ্বাস্য করে তোলে। ভিক্টোরিয়ান শাসক শ্রেণি চিন্তিত ছিল কারণ সর্বজনস্বীকৃত যে ধর্ম আদর্শিক নিয়ন্ত্রণের জন্য কার্যকর রূপ। সমস্ত সফল মতাদর্শের মতো, এটি চিত্র, প্রতীক, অভ্যাস, আচার এবং পৌরাণিক কাহিনীগুলির তুলনায় সুস্পষ্ট ধারণা দ্বারা অনেক কম কাজ করে। এই সংকট থেকে জাতিকে বাঁচাতে ইংরেজী সাহিত্য এগিয়ে এসেছিল এবং এর সাফল্যও দেখিয়েছিল।

The wasteland

Terry Eagleton has cited that modern “England is sick” that was commented by George Gordon, who was an early professor of English Literature at Oxford, in his inaugural lecture. The churches were failed and social remedies were slow. English literature has now a triple function to delight, instruct and save us. Thus, English is constructed as a subject to carry away the burden from the Victorian period onwards. According to Eagleton, Matthew Arnold is here the key figure because he recognizes the urgent social need.

“It is of itself a serious calamity for a nation that its tone of feeling and grandeur of spirit should be lowered or dulled”

পরিত্যাক্ত স্থান

টেরি ইগলটন প্রকাশ করেছেন যে আধুনিক “ইংল্যান্ড অসুস্থ” তার উদ্বোধনী বক্তৃতায় মন্তব্য করেছিলেন অক্সফোর্ডের ইংরেজি সাহিত্যের প্রারম্ভিক অধ্যাপক জর্জ গর্ডন । গীর্জাগুলি ব্যর্থ হয়েছিল এবং সামাজিক প্রতিকারগুলি নিম্ন গতিসম্পূর্ণ হয়ে গিয়েছিলো।ইংরাজী সাহিত্যে এখন আমাদের আনন্দ, প্রশিক্ষণ এবং বাঁচাতে কাজ করেছে। সুতরাং, ভিক্টোরিয়ান সময় থেকে দায়িত্ব বহন করার জন্য ইংরেজী একটি বিষয়ে পরিণত হয়। ইগল্টনের মতে, ম্যাথিউ আর্নল্ড এখানে মূল ব্যক্তিত্ব কারণ তিনি জরুরি সামাজিক প্রয়োজনকে স্বীকৃতি দিয়েছেন।

এটি নিজেই একটি মারাত্মক বিপর্যয় যে এর অনুভূতি এবং চেতনার মহিমা স্বরকে হ্রাস করা বা আটকানো উচিত”

Political bigotry and ideological extremism

Another traceable crisis of modern civilization is political bigotry and ideological extremism. Getting rid of the crisis, literature is the potent antidote as we know that it deals with universal human values rather than the historical civil wars, oppression of women or the dispossession of the English peasantry. And, certainly, literature helps to promote sympathy and fellow feeling among all classes.

রাজনৈতিক গোঁড়ামি এবং আদর্শিক চরমপন্থা

আধুনিক সভ্যতার আরেকটি অনুসরণযোগ্য সঙ্কট হ’ল রাজনৈতিক গোঁড়ামি এবং আদর্শিক চরমপন্থা। সংকট থেকে মুক্তি পাওয়া, সাহিত্যর  একটি শক্তিশালী প্রতিষেধক হিসাবে আমরা জানি যে এটি ঐতিহাসিক গৃহযুদ্ধ, মহিলাদের উপর নিপীড়ন বা ইংরেজ কৃষককে বিতাড়নের পরিবর্তে সর্বজনীন মানবিক মূল্যবোধের সাথে সম্পর্কিত। এবং, অবশ্যই সাহিত্য সমস্ত শ্রেণীর মধ্যে সহানুভূতি প্রচার করতে সহায়তা করে।

Bourgeois or conservative civilization

Bourgeois or conservative civilization is acute in the habits of thought and feeling of modern civilization. People are very much self-centered and not at all cooperative with each other. They pursue knowledge for their moral riches but their educational pursuit must be called a scanty education. According to a study of English Literature written in 1891, people need political culture and instruction so that they can perform their duties as citizens.

বুর্জোয়া বা রক্ষণশীল সভ্যতা

বুর্জোয়া বা রক্ষণশীল সভ্যতা আধুনিক সভ্যতার চিন্তাভাবনা এবং অনুভূতিগুলির তীব্র স্বভাব। লোকেরা খুব স্ব-কেন্দ্রিক এবং একে অপরকে মোটেও সহযোগিতা করে না। তারা তাদের নৈতিক ধন-সম্পদের জন্য জ্ঞান অর্জন করে তবে তাদের শিক্ষাগ্রহণকে অবশ্যই একটি স্বল্প শিক্ষাদান বলা যেতে পারে। 1891 সালে রচিত ইংরেজি সাহিত্যের একটি অধ্যয়ন অনুসারে, লোকেরা রাজনৈতিক সংস্কৃতি এবং নির্দেশনা প্রয়োজন যাতে তারা নাগরিক হিসাবে তাদের দায়িত্ব পালন করতে পারে।

Lack of light, knowledge, and morality

According to Eagleton, literature from Arnold onwards is an enemy of ideological dogma that seems irrelevant when we read the writing of Dante, Milton and Pope, and of course Shakespeare. He also suggests that if anyone wants to get ideas about the evil of imperialism, he needs to travel to Africa but his demand can be fulfilled without going to Africa if he reads Conrad or Kipling. Thus, literature is the preacher of light, knowledge, and morality.

আলো, জ্ঞান এবং নৈতিকতার অভাব

ইগলটনের মতে ,আর্নল্ডের সাহিত্যের আদর্শিক মতবাদের শত্রূ  যা দান্ত, মিল্টন এবং পোপের লেখা এবং অবশ্যই শেক্সপিয়ারের লেখা পড়লে অপ্রাসঙ্গিক বলে মনে হয়। তিনি আরও পরামর্শ দিয়েছিলেন যে যদি কেউ সাম্রাজ্যবাদের কুফল সম্পর্কে ধারণা পেতে চায় তবে তাকে আফ্রিকা ভ্রমণ করতে হবে তবে তিনি  কনরাড বা কিপলিং পড়লে আফ্রিকা না গিয়েই তার চাহিদা পূরণ হতে পারে। সুতরাং, সাহিত্য আলো, জ্ঞান এবং নৈতিকতার প্রচারক।

Conclusion: In termination, it is transparent that The Rise of English means the development of English literature has been smooth because of the acute problem of modern civilization as it meets the demand of the time in the time of crisis.

8. Question: Discuss the term dissociation of Sensibility.

Introduction: The term dissociation of sensibility was first used by Thomas Stearns Eliot (1888-1865) in his famous essay “The Metaphysical Poets”. It refers to the way in which intellectual thought was separated from the experience of feeling in the seventeenth century.

Basic concept on the dissociation of sensibility: The term dissociation of sensibility comprises two words which are dissociation and sensibility. The meaning of the word dissociation is separation or detachment and sensibility is sensation or feeling. So, this term stands for detachment of thought from sensation in the case of poetry writing.

Clear concept on the unification of sensibility: Before elaborating the dissociation of sensibility, the unification of sensibility should be clarified so that we can appreciate the intellectual or metaphysical poets very well and conspicuously. The term “unification of sensibility” means fusion of thought and feeling by the early Jacobean poets, especially by John Donne first. By this term, Eliot links between the modern poets and metaphysical poets.

Difference between intellectual and reflective poets: Eliot points out that the term dissociation of sensibility has made the difference between the intellectual poets, which means the metaphysical poets and the reflective poets. The intellectual poets unified thought and feeling together but the reflective poets separated the feeling or sensibility from thought. According to Eliot, Tennyson and Browning are great poets but they are devoid of fidelity of thought and feeling simultaneously like Donne or Lord Herbert of Cherbury.

“Tennyson and Browning are poets, and they think; but they do not feel their thought as immediately as the odour of a rose.”

Thus, Eliot argues that dissociation of sensibility is not better than the unification of sensibility to produce good poetry. “A Valediction Forbidding Morning” is a superb example of unification of sensibility in which the poet compares two lovers to a pair of compasses.

The natural development of poetry: According to Eliot, the dissociation of sensibility was the result of the natural development of poetry after the metaphysical. Eliot asserts that dissociation of sensibility was established by the influence of two powerful poets of the late seventeenth century – Milton and Dryden and we have never recovered. In fact, Eliot means to say that the poetic functions of Milton and Dryden were so magnificently well that the magnitude of expansion of their poetic effects concealed or covered the other poets’ merits. The critic says that their use of language was so refined but there was a huge lack of feeling in their writings that is why Eliot has preferred the unification of sensibility which means simply fusion of feeling and thought together to the dissociation of sensibility.

Distinguishing between language and feelings: Eliot goes on telling that the other poets such as Collins, Gray, Johnson, and Goldsmith who followed this term perfectly satisfy our fastidious demands better than that of Donne, Marvell, or King. Their language also becomes more refined but the feeling is cruder. He cites an example from Gray’s poem “Country Churchyard” because the feeling or sensibility expressed in the poem is cruder than that in “Coy Mistress” by Andrew Marvell who is one of the excellent metaphysical poets in accordance with Eliot. Thus, he evaluates the intellectual or metaphysical poets from a very different angle which is really praiseworthy.

Criticism: Though Eliot is unanimously accepted for his term “dissociation of sensibility”, he has to face a very critical question that the very term was originated because of the English civil war. He does not agree or disagree with this question and he also tells us that it is very perilous to reject Johnson’s arguments as to metaphysical poets and poetry.

Conclusion: From the light of the above discussion it can be said that Eliot is not only a genius critic but also a founder of intellectual poets in the mind of the readers forever by the dint of his two terms which are the dissociation of sensibility and unification of sensibility.

SR Sarker
SR Sarker
Articles: 380

Leave a Reply

x
error: Sorry !!